রুহুল আমিন ভূঁইয়া: ১৯৮৮ সালে জনপ্রিয় প্রতিভা অন্বেষণ মূলক অনুষ্ঠান ‘নতুন কুড়ি’তে শিশুশিল্পী হিসেব ‘ফেলানী’ চরিত্রে তার অসাধারণ অভিনয় দেখে কান্না ধরে রাখতে পারেননি তৎকালীন প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। শিশুশিল্পী হিসেবে জয় করেন ‘নতুন কুড়ি’ তে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি। সাধারণ মানুষের কাছেও জনপ্রিয়তা লাভ করেন। তারপরের গল্পটা শুধুই এগিয়ে যাবার। বলছি অভিনেত্রী ঈশিতার কথা। পুরো নাম রুমানা রশীদ ঈশিতা। আজ এই অভিনেত্রীর জন্মদিন। জন্মদিনে নেই কোনো আয়োজন। ঘরোয়া ভাবেই জন্মদিন পালন করছেন।

ছোট্ট বেলার দারুণ জনপ্রিয় এই শিশুশিল্পী পরিনত বয়সে এসেও নাটকে অভিনয়ের মাধ্যমে জনপ্রিয়তা এবং খ্যাতি লাভ করেন। সব শ্রেণির মানুষের কাছেই মিষ্টি মেয়ে হিসেবে নিজেকে আলাদাভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন ঈশিতা। ইমদাদুল হক মিলনের রচনায় ও ফখরুল আবেদীনের পরিচালনায় ‘দু’জনে’ নাটক ছিল তার প্রথম অভিনীত নাটক। তারপরে একে একে আপনাঘর, চক্রবলয়, দেখা, সাদা পাতায় কালো দাগ, দুজনে, তিথি, থাকা না থাকার মাঝখানে, কাগজের গল্প, আমাদের গল্প, পাতা ঝরার দিন সহ অসংখ্যা জনপ্রিয় নাটকে কাজ করেছেন ঈশিতা। অভিনয়ে নিয়মিত ছিলেন না তিনি তবুও আজো তার জনপ্রিয়তা অসামান্য। অভিনয়ের পাশাপাশি মডেল, গায়িকা, নৃত্যশিল্পী এবং লেখিকা হিসেবেও নিজের দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। মডেল হিসেবেও অসম্ভব জনপ্রিয় ছিলেন ঈশিতা। বিশ্ববিখ্যাত বিউটি সোপ ‘লাক্স’র মডেল হয়েছেন তিনি। ৭টি গানের অ্যালবাম রিলিজের পাশাপাশি দুটি বই লিখেছেন এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী।

এই অভিনেত্রী এখন মিডিয়াতে কাজ করেন খুবই বেছে বেছে। শিক্ষকতা এবং সংসার সামলে যদি কোনো গল্প মন ছুয়ে যায় তবেই দেখা মিলে এই জনপ্রিয় অভিনেত্রীর। তার ভক্তদের জন্য তার নতুন কোন কাজ যেনো তীব্র গরমে এক পশলা বৃষ্টি। কারণ পর্দায় ঈশিতা মানেই ভিন্ন কিছু, ঈশিতা মানেই চমৎকার গল্প আর দক্ষ অভিনয়ে ডুব দেয়ার সুযোগ। এবার ঈদে দুটি টেলিফিল্মে দেখা গেছে এই জনপ্রিয় অভিনেত্রীকে। একটি টেলিফিল্মের নাম ‘কেন’ অন্যটি ‘ইতি, মা’। টেলিফিল্ম দুটি এবারের ঈদ আয়োজনের সেরা তালিকায় স্থান করে নেয়। এবং বরাবরের মতো এবারো প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। বিশেষ করে ‘ইতি,মা’ টেলিফিল্মে মধ্যবিত্ত পরিবারের এক বড় মেয়ের চরিত্রে তার অসাধারণ অভিনয় মন ছুয়েছে সবার। এই দুটি কাজ করেই ঈদের সেরা অভিনেত্রীদের তালিকায় সবার উপরে তিনি।

করোনা পরিস্থিতির কারণে এর মাঝে গত চার মাসে কোনো কাজ করেননি ঈশিতা। ঈশিতা বলেন, একজন অভিনয় শিল্পী হিসাবে অভিনয়ের প্রতি আগ্রহ কখনো কমেনি। অভিনয়ের প্রতি ভেতর থেকে এক ধরনের টান অনুভব করি। তবে গল্প ও চরিত্র নিয়ে আমি সিরিয়াস। এ ব্যাপারে আমি বেশ খুঁতখুঁতে। ভালো গল্প ও চরিত্র দেখে লোভ সামলাতে পারি না। তেমনি গল্প ও চরিত্র ভালো না লাগলে কাজে আগ্রহ পাই না। ২০১৮ সালে রেদোয়ান রনি’র পরিচালনায় ‘পাতা ঝরার দিন’ নাটকের মধ্য দিয়ে প্রায় চার বছরের বিরতি দিয়ে ফিরেছিলেন ঈশিতা। এই নাটকে অনবদ্য অভিনয়ের মধ্য দিয়ে নতুন করে আবারও আলোচনায় আসেন ঈশিতা। এরপর গত বছর ঈশিতা সচেতনতামূলক নাটক ‘আগুনের নোনাজল’-এ অভিনয় করেছিলেন। এতে তার সহশিল্পী ছিলেন চিত্রনায়ক রিয়াজ। অভিনয়ের পাশাপাশি সংগীতেও বেশ সমাদৃত ঈশিতা।

তবে অভিনয়-গান কোনোটিই নিয়মিত নন তিনি। সংসার এবং সন্তানদের নিয়েই তার বর্তমান জীবন। সর্বশেষ ‘আমার অভিমান’ নামে একটি গানের কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। মিডিয়ায় কাজের পাশাপাশি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতাও করছেন এ অভিনেত্রী। এ জন্য নিজেকে নিয়মিত পড়াশোনার মধ্যে রাখছেন তিনি। পাশাপাশি বাসায় বসে গল্প, উপন্যাস পড়া ও ক্লাসিক্যাল সিনেমাও দেখা হচ্ছে তার। আর গানের চর্চা তো নিয়মিত করছেনই।

Previous articleসিজন্স প্লে’র মডেল হলেন তনামি
Next articleআজ তরুণ নির্মাতা সজীব’র জন্মদিন

Leave a Reply