ছবি: এম এ এইচ সাগর

এম এ এইচ সাগর: স্বপ্ন দেখতে আমরা সবাই ভালোবাসি। ছোটবেলা থেকে কত রকমের স্বপ্ন নিয়ে আমরা বড় হই। পৃথিবীর প্রতিটি মানুষই স্বপ্ন দেখতে পছন্দ করেন। তবে কেউর স্বপ্ন পূরণ হয় কেউর বা স্বপ্নগুলো অধরাই থেকে যায়। তেমনই একজন এ সময়ের স্বপ্নবাজ তরুণ নির্মাতা সুমন ধর। ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন ছিলো অভিনেতা হবেন। সুমন যতই বড় হতে থাকলেন ততোই স্বপ্নগুলো ডালপালা মেলতে শুরু করে। এ জন্য স্কুল কলেজের যত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হতো সব গুলোতেই অংশ নিতেন। এসএসসি পাশ করার পর মিডিয়াতে পা রাখেন। তবে শুরুতে পোহাতে হয়েছে অনেক কাটঘর। প্রথমে দেখা মেলে নির্মাতা অনিমেষ আইচের সাথে। তার সাথে কাজের অনেক বায়না করলেও শুরুতে পাত্তা দিতেন না। সুমনও নাছোরবান্দা যতই অনিমেষ এরিয়ে যেতেন ততোই আরও শক্ত করে ধরতেন। এরইমধ্যে সুমন প্রাচ্যনাট্যের ছয় মাসের একটি থিয়েটার কোর্স করেন। অভিনয়ের স্বপ্ন নিয়ে থিয়েটারেও যুক্ত হয়। কাজ করতে থাকেন আর্ট ডিরেকশন হিসেবে। কিছু দিন পর বুঝতে পারলেন আর্ট ডিরেকশনে মন টানছে না। যার স্বপ্ন অভিনয় তিনি তো অন্য মাধ্যমে কখনোই মনোযোগ রাখতে পারবেন না। যা সুমন নিজেও বুঝতে পেরেছন। কিছু দিন যেতেই সুমন এর মাথা থেকে অভিনয়ের ভূতটি চলে যায়।

ছবি: এম এ এইচ সাগর

কর্ম পরিকল্পনা করেন পরিচালক হিসেবে কাজ করার। ফের সুমনের নতুন স্বপ্ন ডালপালা মেলে। সব কিছুর মাঝেও অনিমেষ আইচের সাথে নিয়মিত কাজের চেষ্টা চলতে থাকে। হঠাৎ একদিন ডাক পেলেন অনিমেষ আইচের সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজের। সেই থেকে শুরু একটানা আট বছর কাজ করেন। যে অনিমেষের দেখা পাওয়া কঠিন ছিল তখন সেই সুমন নির্মাতা অনিমেষ আইচের বাসায় থেকেই কাজ করতেন। পরিচালক হওয়ার নতুন স্বপ্ন নিয়ে আস্তে আস্তে নিজেকে তৈরি করেন।

সুমন প্রথম পরিচালনায় আসেন ২০১২ সালে। প্রথম নির্মাণ ছিল ‘তপুর সাইকেল’। যা ছিল নন্দিত অভিনেত্রী জয়া আহসানের টেলিভিশনের শেষ নাটক। এ পর্যন্ত প্রায় ৫০টিরও অধিক নাটক-টেলিফিল্ম নির্মাণ করেছেন। বানিয়েছেন বেশ কিছু বিজ্ঞাপন। কাজ করতে করতে একটা সময় সুমন চিশতির সাথে ভালো একটা সম্পর্ক তৈরি হয়। ২০১৫ সালে প্রথম সিনেমা নির্মাণ করেন। শিশু-সাহিত্যিক ফরিদুর রেজা সাগরের গল্পে প্রথম নির্মিত চলচ্চিত্র ‘অমি ও আইসক্রিম ওয়ালা’। যদিও প্রথমে ফরিদুর রেজা সাগর নবাগত এই নির্মাতার প্রতি ভরসা রাখতে পার ছিলেন না। কিন্তু সুমন চিশতি দায়িত্ব নিলে কাজটি করার অনুমতি দেন ফরিদুর রেজা সাগর। সুমনের নির্মিত প্রথম চলচ্চিত্রটি কলকাতায় বেশ সুনাম অর্জন করে। ২০১৫ সালে কলকাতার ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ছবিটি প্রদর্শণী হয় এবং সমালোচকদের মাঝে বেশ প্রসংশিত হয়।

ছবি: এম এ এইচ সাগর

এরপর ২০১৬ সালে নির্মাণ করেন দ্বিতীয় চলচ্চিত্র ‘দর্পণ বিসর্জন’। পল্লীকবি জসীম উদ্দীন রচিত ‘আয়না’ গল্প ছায়া অবলম্বনে ছবিটির চিত্রনাট্য রচনা ও পরিচালনা করেছেন সুমন ধর। ছবিটি একটি ক্যাটাগরিতে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে।
এবং মেরিল প্রথম আলো পুরস্কারের জন্য বেষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে নমিনেশন পায়। সুমন সব ধরনের গল্প নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করেন। এ তরুণ নির্মাতা জমজমাটকে বলেন, গ্রামের গল্প হোক বা শহরের গল্প, মৌলিক গল্পেই কাজ করতে পছন্দ করি। প্রেমে বা গ্রামের গল্প বুঝি না দর্শকের চাহিদার কথা চিন্তা করেই আমি নির্মাণ করি। আমি সব সময় দর্শকের পক্ষে। এই ধারাটা দর্শককেই পরিবর্তন করতে হবে। আমি সিনেমা ও নাটকে দেখেছি আমাদের গল্পের নাট্যকারদের যেভাবে হেয়ারস্টাইল পরিবর্তন করতাম আমাদের গ্রাম বাংলার মানুষও এগুলো ফলো করতেন। মাঝখানে আমরা গল্পের জায়গায় মূল্যায়ন না করে মানুষের কথায় মূল্যায়ন করেছি। যার কারণে আমাদের ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। অভিযোগ বর্তমানে অনেক পরিচালকই শিল্পী নির্ভর। বিষয়টি কিভাবে দেখছেন? নতুনদের কাজ করতে গেলে অনেক সমস্যা পড়তে হয়। তারা মনে করে জনপ্রিয় শিল্পীদের নিয়ে কাজ করলেই হয় যায়। বিষয়টি যতটা সহজ মনে হয় আসলে ততোটা সহজ নয়। এভাবে নির্বাচন করে একটা নাটক বানানোর পর পরবর্তীতে ছিটকে পড়তে হয়। কখনোই সফল পরিচালক হওয়া যায় না।

এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে নির্মাতা সুমন ধর নির্মাণ করেছেন জাতীয় শোক দিবসের বিশেষ কাহিনিচিত্র ‘আমাদের খোকা’। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মাসুম আজিজ, বড়দা মিঠু, পাভেল, পায়েল, রানা মল্লিক’সহ আরও অনেকে। ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত কাহিনিচিত্রটি দীপ্ত টিভিতে প্রচার হয়। ‘আমাদের খোকা’ প্রচারের পর ব্যাপক সাড়া পান বলে জানান এ নির্মাতা। সুমন বলেন, শোক দিবসের জন্য নির্মিত ‘আমাদের খোকা’ নাটেকের এতো রেসপন্স পাবো যা আমি কল্পনাও করিনি। সত্যিই এত সাড়া পেয়ে ভীষণ ভালো লাগছে।

Previous articleবিপাশা-জন’র ‘দ্য নিউ নরমাল’
Next articleইরফান-মিম’র ‘লাভ ইস এ খেলা’

Leave a Reply