‘প্রেক্ষাগৃহ হোক প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত সাংস্কৃতিক বিকাশের অংশ। আমরা তার দেখানো পথে এগিয়ে যেতে চাই। আর সেজন্য আমাদের স্বতন্ত্র অবস্থান নিশ্চিত করতে হবে’- এমনটাই জানালেন বাংলাদেশ প্রদর্শক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দিন এলাহী সম্রাট।

তিনি বলেন, ১৪শ’ সিনেমা হলের স্থলে এখন সংখ্যা দুই অংকের ঘরে। অথচ সংখ্যাটি বাড়তেই পারতো। বিগত চারদলীয় জোট সরকারের সময়ে অশ্লীলতা, পাইরেসি, সেন্সর বোর্ডে অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে হল থেকে মধ্যবিত্ত পরিবার হারাতে শুরু করি। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ওই সময়ে অদূরদর্শী সরকারি মনোভাব যার প্রভাবে পুরো সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির দেয়ালে শেষ পেরেক ঠুকে দিয়েছে। সুখের কথা হচ্ছে গত ২০১২ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সিনেমাকে শিল্প ঘোষণা দিয়ে আমাদের বাঁচার স্বপ্ন দেখিয়েছেন। এজন্য সব সময়ই আমরা কৃতজ্ঞ।

তবে সম্রাট কিছুটা হতাশা প্রকাশ করে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা মোতাবেক প্রেক্ষাগৃহগুলো কেন শিল্পের সুযোগ সুবিধা পাচ্ছি না তার কারণ অজানা। অথচ সাংস্কৃতিক মানসিকতার প্রধানমন্ত্রী আপাদমস্তক একজন সিনেমার পৃষ্টপোষক। সিনেমার ব্যাপারে তার দুর্বলতা সর্বজনবিদিত। এরপরও শিল্পের সুবিধা পাচ্ছি না। তবে আমরা আস্থা রাখতে চাই তার ভিশনের ওপর।

করোনা প্রকোপে বড় অংকের ক্ষতির মুখে প্রেক্ষাগৃহ মালিকরা উল্লেখ করে সম্রাট বলেন, দীর্ঘ প্রায় পাঁচ মাস সিনেমা হল বন্ধ। এই বন্ধে প্রত্যেকটি হল মালিক বিপুল পরিমাণ ক্ষতির মুখে পড়েছে। হয়তো সরকার হল খুলে দেবে কিন্তু অনেক হল মালিকরাই আর হল খুলবে না। কারণ ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার মতো কোনা আশাব্যাঞ্জক উদ্যোগ এখনও দৃশ্যমান হয় নি। এতে করে শঙ্কা বাড়ছে হল মালিকদের মাঝে।

সম্রাট এ অবস্থার উত্তরণে কিছু পরামর্শ দিয়ে বলেন, দ্রুত হল খোলার অনুমতি প্রদান, বিদ্যুৎ বিল মওকুফকরণ, ভারতীয় ছবি আমদানির অনুমতি প্রদান, যৌথ-প্রযোজনায় সিনেমা নির্মাণের নিয়ম শিথিল করতে হবে।

সম্রাট বলেন, এগুলো কেবল ফাইলবন্দি রাখলে হবে না; দ্রুত বাস্তবায়নের পথও দেখিয়ে দিতে হবে। সরকার যদি এ সকল উদ্যোগ নেয় তাহলে আমার মনে হয় দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা হলও খুলে যাবে।

এ মুহূর্তে হলে দর্শক টানা দুরূহ হবে উল্লেখ করে শরফুদ্দিন এলাহী বলেন, হলগুলো জেলা প্রশাসন থেকে ডেকোরেট করে দিয়ে পজেটিভ প্রচারণার ভারটিও তারা নিতে পারে। সত্যি কথা হলো আমরা আতঙ্কে রয়েছি যদি উল্লেখিত বিষয়গুলোর ইতিবাচক সাড়া না পাই তাহলে হয়তো অনেক মালিকই তাদের হলগুলো আর খুলবে না। কিন্তু আমরা বিশ্বাস রাখতে চাই সাংস্কৃতির অগ্রপথিক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের নিরাশ করবেন না। মুজিব শতবর্ষ অপরদিকে স্বাধীনতার অর্ধশত বছরকে আরও বেশি সফল করতে তাই দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। আমজনতার বড় এই মাধ্যমটিকে টিকিয়ে রাখতে উদ্যোগগুলো দৃশ্যমান হতে হবে; কেবল তা হলেই বাঁচবে প্রযোজক, বাঁচবে সিনেমা হল, এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত লক্ষাধিক মানুষ, নতুন করে দৃশ্যমান হবে প্রচুর সিনেপ্লেক্স। শোকের এই মাসে প্রত্যাশা থাকবে আশাব্যাঞ্জক এমন কিছু ঘোষণার।

Previous articleসবাই আমার জন্য একটু দোয়া করবেন: টুটুল
Next articleইরফান-ফারিনের ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস যন্ত্রনা’

Leave a Reply