ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান অভিনীত ও প্রযোজিত ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটি মুক্তি পায় গত বছর। মারপিট-অপরাধধর্মী এই ছবিটি পরিচালনা করেছেন নির্মাতা মালেক আফসারী। এই ছবিতে অনুমতি ছাড়াই ব্যবহার করা হয় দিলরুবা খানের ‘পাগল মন’ গানটি।

এই কারণে কপিরাইট আইন ভঙ্গ করার দায়ে শাকিব খান ও একটি মোবাইল অপারেটর কম্পানির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অভিযোগ দায়ের করেন শিল্পী, গীতিকার ও সুরকারের পক্ষে আইনজীবী ওলোরা আফরিন। শিল্পী দিলরুবা খান, গীতিকার কায়সার আহমেদ ও সুরকার আশরাফ উদাস ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনি নোটিশও পাঠান শাকিব খানের কাছে।

এরপর চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে শাকিব খান নিজে আইনজীবী ওলোরার অফিসে সমঝোতার জন্য বসেছিলেন। তখন দুই লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টির সুরাহাও করতে চেয়েছিলেন শাকিব খান। কিন্তু শিল্পী, গীতিকার, সুরকার কেউ রাজি হননি সমঝোতা করতে। এরপর কেটে গেছে আরো ছয় মাস। শেষ পর্যন্ত ৩১ জুলাই চাঁদ রাতে উভয় পক্ষ বসে গানটির বিষয়ে সমঝোতায় আসেন।

সমঝোতার পরেও দিলরুবা খান আক্ষেপ করে বলেন, জীবনে আর কখনো পাগল মন গান নিয়ে কথা বলবো না। খুব কষ্ট পেয়েছি। সমঝোতার দিন প্রথম জানলাম, গানে শিল্পীর কোনো অধিকার নেই। সব অধিকার সুরকারের। কতো টাকায় সমঝোতা হবে, কে কতো পাবে সব যখন সুরকার ঠিক করেন, তখন নাম মাত্র শিল্পীর অধিকার নিয়ে কথা বলে আর লাভ কি! যা হয়েছে ভালো হয়েছে। কারো প্রতি অভিযোগ রাখবো না।

জানা গেছে, সমঝোতার দিন শাকিব খান নিজে উপস্থিত ছিলেন না। পাঠিয়েছিলেন তিনজন প্রতিনিধি। তাদের মধ্যে একজন ছিলেন শাকিবের চাচাতো ভাই মোল্লা মনির।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সমঝোতায় উপস্থিত থাকা একটি অডিও কম্পানির কর্ণধার বলেন, ছয় লাখ টাকায় বিষয়টা সমঝোতা হয়েছে।

‘পাসওয়ার্ড’ ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেছেন শবনম বুবলী। ছবিটি শাকিব খান প্রযোজিত দ্বিতীয় সিনেমা। এর আগে তিনি ২০১৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত হিরো: দ্যা সুপার স্টার নামের ছবি প্রযোজনা করেছিলেন।

Previous articleআড়াল ভেঙে চমকে দিলেন জেমস
Next articleরাজ্জাক বিহীন তিন বছর

Leave a Reply