বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি নায়ক, শক্তিমান অভিনেতা, প্রযোজক ও পরিচালক নায়করাজ রাজ্জাকের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৭ সালের ২১ আগস্টের এই দিনে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি পরলোকগমন করেন। বাংলা চলচ্চিত্রে দীর্ঘ সাড়ে ছয় দশক এই নন্দিত অভিনেতা অত্যন্ত দক্ষতার সাথে অভিনয় করে নায়করাজ হিসেবে উপাধি লাভ করেন।

অভিনেতা রাজ্জাক ১৯৪২ সালের ২৩ জানুয়ারি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার টালিগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৪ সালে রাজ্জাক তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে চলে আসেন। চলচ্চিত্রকার আবদুল জব্বার খানের সাথে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন। নায়ক হিসেব তার প্রথম চলচ্চিত্র হচ্ছে জহির রায়হান পরিচালিত `বেহুলা’। সেই থেকে তিনি ৩ শতাধিক চলচ্চিত্রে নায়ক হিসেবে অভিনয় করেন। প্রযোজনা ও পরিচালনা করেন ১৬টি চলচ্চিত্র।

শুধু এপার বাংলাতেই নয় ওপার বাংলায়ও অভিনয়ের দ্যুতি ছড়িয়েছেন রাজ্জাক। দেশীয় সিনেমায় যখন অশ্লীলতা ভর করে তখন ঢালিউড থেকে টালিউডে পা রাখেন নায়ক রাজ। টানা পাঁচ বছর অভিনয় করেন ত্রিশের বেশি ছবিতে। ওপার বাংলায় জন্ম নিলেও এপার বাংলার রুপালী রঙেই তিনি হয়ে উঠেছিলেন নায়করাজ।

রাজ্জাকের অভিনয় করা উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হচ্ছে- বেহুলা, আগুন নিয়ে খেলা, এতুটুকু আশা, নীল আকাশের নিচে, ক খ গ ঘ ঙ, জীবন থেকে নেয়া, নাচের পুতুল, অশ্রু দিয়ে লেখা, ওরা ১১ জন, অবুঝ মন, রংবাজ, আলোর মিছিল, কি যে করি, গুন্ডা, অনন্ত প্রেম, অশিক্ষিত, ছুটির ঘন্টা, মহানগর, বড় ভাল লোক ছিল, রাজলক্ষী শ্রীকান্ত, স্বরলিপি, বাদী থেকে বেগম, বাবা কেন চাকর প্রভৃতি। চলচ্চিত্রে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি সাতবার চলচ্চিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা হিসেবে জাতীয় পুরস্কার, চলচ্চিত্রের জন্য আজীবন সম্মাননাসহ অসংখ্য পুরস্কার লাভ করেন।

Previous article১০ কোটি টাকার সমঝোতা হলো ছয় লাখে
Next articleনাঈমের ‘রূপকথা মেঘবালিকা’ মম!

Leave a Reply