ছবি: এম এ এইচ সাগর

রঞ্জু সরকার: শাহেদ হোসেন ফ্যাক্টর থ্রি সলিউশন’র কর্ণধার। ফ্যাক্টর থ্রি গত কয়েক বছর ধরে টিভি নাটকের অন্যরকম প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে তাদের নাটক নির্মাণে বেশি ঝোঁক। শাহেদ হোসেন ২০০৫ সালে ঢাকায় আসেন। তারপর একটানা ১২ বছর চাকরি করেন। ২০১৮ সালে ফ্যাক্টর থ্রি সলিউশন প্রতিষ্ঠা করেন। এরইমধ্যে এ প্রতিষ্ঠানের ৪৫০টির মতো নাটক প্রচার হয়েছে। ঈদুল আযহায়ও ১৮টি নাটক প্রচার হয়। বর্তমানে কাজ করছেন লোভেল কোম্পানির কনটেন্ট প্রোভাইডার হিসেবে। ঈদ নাটকগুলো থেকে ভালো সাড়া পাচ্ছেন বলে আলাপকালে জানান।

তিনি বলেন, বর্তমানে নাটকের বাজেট বড় সমস্যা। যে বাজেট রয়েছে সে বাজেট দিয়ে বড় শিল্পী নিয়ে কাজ না করে ছোট শিল্পী যারা ভালো কাজ করছে তাদের নিয়ে করলে বেশি কাজ করা যায়। আর ইউটিউব ভিউ হিসেব করলেও ফ্যাক্টর থ্রি বর্তমানে এগিয়ে।

শাহেদ বলেন, নাটকের সবচেয়ে অসহায়ত্বের জায়গা হচ্ছে চ্যানেল এখন নাটক কিনতে চাচ্ছে না। আমাদের মতো এজেন্সি থেকে নাটকের সময় কিনে নেয়। সে জায়গা থেকে আমাদের বিজ্ঞাপন সংগ্রহ করে নাটক চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এ সময় নাটকের বাজেরে ইভেলি বড় অবদান রাখছে। এছাড়াও নগদ ও বিকাশ ভালো কাজ করছে। এটি আমাদের জন্য আশার দিন। বর্তমানে অনেক ভালো ভালো নাটক নির্মিত হচ্ছে।

কি পরিকল্পনা নিয়ে আগাচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে জমজমাটকে শাহেদ বলেন, ধারাবাহিক নাটকের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছি। ব্যতিক্রমী কিছু ধারাবাহিক করতে চাই। দর্শকের কথা চিন্তা করেই আমাদের ধারাবাহিক নির্মিত হবে। আগে ২৬ পর্বের বেশি নাটক নির্মিত হতো না কিন্তু বর্তমানে মেগা সিরিয়াল নির্মিত হচ্ছে। যার একটা সময় ধারাবাহিকতাই থাকে না। আমরা যে পরিকল্পনা করেছি সেখানে অনেকেরই কাজের সুযোগ হবে এবং মানও বজায় থাকবে। মনে রাখার মতো ধারাবাহিক হবে। বর্তমানে ইউটিউব ভিউ গুরুত্বপূর্ণ। ইউটিউব প্রতিষ্ঠানগুলোও নাটক প্রযোজনা করছেন। সব কিছুই ডিজিটাল হয়েছে। যে নাটকরে ভিউ বেশি সে নাটকের ততো ইনকাম।

বর্তমানে অনলাইন মাধ্যমের কদর বেড়েছে। এখন আশার দিক হচ্ছে অনলাইন প্লাটফর্ম। আমরাও ভালো ফিল করছি। আমাদের দেশে নাটকের সংখ্যা অনেক বেশি। দেশে যেই পরিমানে অ্যাপস বাড়ছে। এগুলোর কারণে আমাদের কোন ক্ষতি হচ্ছে না। আমরা একটু ভিন্ন ধরনের কাজ করার চেষ্টা করছি। মানুষ যেন মনে রাখতে পারে এমন কাজই করবো। নাটকের বাজেট ভালো দিলে ভালো নাটক নির্মাণ হবে। বর্তমানে একটা অভিযোগ শুনতে হচ্ছে যে, এখনকার নাটকে ঘুরেফিরে একই মুখ, একই গল্প। দর্শকদের বলতে চাই যে এটা আপনাদেরই পরিবর্তন করতে হবে। তাহলেই পারিবারিক ও গল্প নির্ভর নাটক হবে। বাজেট যে কম দেওয়া হচ্ছে তা কিন্তু নয়। ইউটিউব ভিউ বেশি হয়ে গেলে হাতেগোনা কয়েকজন শিল্পী বাজেটের সিংগভাগ নিয়ে নিচ্ছে। পরবর্তীতে কি হবে সেটি তারা চিন্তা করে না। তাদের কাছে আমার অনুরোধ আপনাদের নিয়ে আমরা এবং আমাদের নিয়ে আপনারা। আসুন একটা সেতু বন্ধন করে শিল্পটা রক্ষা করি। -বললেন শাহেদ।

Previous articleনায়িকা নয় অভিনেত্রী হতে চাই: সুবর্ণা
Next articleশিল্প অঙ্গনেই বাকি জীবনটা কাটাতে চাই: নিথর মাহবুব

Leave a Reply