ঢাকাই চলচ্চিত্রে মিয়াভাই খ্যাতি পাওয়া জনপ্রিয় একজন অভিনেতার নাম ফারুক। যার পুরো নাম আকবার হোসেন পাঠান দুলু। যিনি ফারুক নামে অধিক পরিচিত। শতাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। বলিষ্ঠ অভিনয় দিয়ে দর্শক হৃদয়ে স্থায়ী আসন গড়ে নিয়েছেন তিনি। তার আরেকটি পরিচয় তিনি রাজনৈতিক নেতা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সমর্থিত ঢাকা-১৭ আসনের সংসদ সদস্য। আজ (১৮ আগস্ট) তার জন্মদিন। তবে বিশেষ এই দিনে রাখছেন না কোনো আয়োজন।

৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর থেকে জন্মদিন পালন করেন না ফারুক। তিনি বলেন, আগস্ট মাস শোকের মাস। ৭৫ এর ১৫ আগস্টের সেই কালো রাতের পর থেকে বাঙালি জাতির জন্য এই আগস্ট মাস শোকের মাস, বেদনার মাস। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর আমার জীবন থেকে জন্মদিন পালন বা কেক কাটা তুলে নিয়েছি। আমি ৪৫ বছর ধরে জন্মদিনের কেক কাটি না।

১৯৭১ সালে এইচ আকবর পরিচালিত ‘জলছবি’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক। ১৯৭৩ সালে খান আতাউর রহমান পরিচালিত ‘আবার তোরা মানুষ হয়’। ১৯৭৪ সালে নারায়ণ ঘোষ মিতা পরিচালিত ‘আলোর মিছিল’ দুটি মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক চলচ্চিত্রে পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করেন। এরপর ১৯৭৫ সালে গ্রামীণ পটভূমিতে নির্মিত ‘সুজন সখী’ ও ‘লাঠিয়াল’ দুটি ব্যবসা সফল ও আলোচিত চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন এবং সে বছর ‘লাঠিয়াল’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্ব চরিত্রে অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।

১৯৭৬ সালে মুক্তি পায় তার অভিনীত ৩টি সিনেমা সূর্যগ্রহণ, মাটির মায়া ও নয়নমনি। আর এই চলচ্চিত্র ৩টি বিভিন্ন বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করে। পরের বছর শহীদুল্লাহ কায়সার রচিত কালজয়ী উপন্যাস ‘সারেং বৌ’ অবলম্বনে নির্মিত ‘সারেং বৌ’ ও আমজাদ হোসেন পরিচালিত ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। চলচ্চিত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৬ তাকে আজীবন সন্মাননা দেয়া হয়।

Previous article‘দর্শকদের চাহিদা এবং সচেতনতাকে প্রাধান্য দিয়ে আমরা লড়াইটা চালিয়ে যাচ্ছি’
Next articleতারকাবহুল ধারাবাহিক ‘স্বপ্ন আড্ডা’

Leave a Reply