শাপলা মিডিয়ার কর্ণধার সেলিম খানকে সতর্কবার্তা পাঠিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি। এ সতর্কবার্তা পাওয়ার পর সেলিম খান তিনদিনের আল্টিমেটাম দিয়ে পাল্টা চিঠি পাঠিয়েছে পরিচালক সমিতিকে।

পরিচালক সমিতিকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে-গত ১২ আগস্ট একটি সতর্কীকরণ পত্র পেয়েছি। যার কোনো স্মারক নাম্বার নেই। যা প্রচলিত আইন অনুযায়ী কোনোভাবেই কার্যকর পত্র হতে পারে না। পত্রটি আপত্তিকর ও দুঃখজনকও বটে। সতর্কীকরণ পত্রে মিশা সওদাগর ও জায়েদ খানকে চলচ্চিত্রের ১৮ সংগঠন বয়কট করেছে বলে উল্লেখ করেছেন। এ বিষয়ে আমাকে এবং আমার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিঠি দিয়ে অবহিত করা হয়নি।

ইতিহাসের আলোকে চলচ্চিত্র নির্মাণ করে এই রোষাণলে পড়েছেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সেলিম খান। তিনি লিখেন-প্রেরিতপত্র পর্যালোচনা করে দেখা যায়, গত ৬ আগস্ট এফডিসির জহির রায়হান ভিআইপি প্রজেকশন হলে আমার পরিচালনায় নির্মিত ‘আগস্ট ১৯৭৫’ চলচ্চিত্রের টিজার ও অফিশিয়াল পোস্টার রিলিজ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করি। এতে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতি ও পরিচালক সমিতিসহ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সকল সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, কলাকুশলীদের চিঠি, মোবাইল ফোন ও মৌখিকভাবে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। তবে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেন ডিপজল ও অভিনেতা মাসুম পারভেজ রুবেল, শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, প্রযোজক সমিতির সদস্য আরিফুর রহমান টিটু, পরিচালক সমিতির সহ-সাধারণ সম্পাদক শাহীন সুমন, অভিনেত্রী অঞ্জনা সুলতানা, দিলারা এবং অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন অংশগ্রহণ করেন।

কিন্তু এ অনুষ্ঠানে জায়েদ খান উপস্থিত থাকায় আমাকে সতর্কীকরণ পত্র দিয়েছে। ভেবেছিলাম চলচ্চিত্রটির পোস্টার ও টিজার মুক্তি অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার স্বপক্ষের সবাই অংশ নেবেন। কিন্তু আপনারা অংশগ্রহণ করেননি। জাতির পিতাকে হত্যা ও হত্যা পরবর্তী দাফন নিয়ে ইতিহাসের আলোকে চলচ্চিত্র নির্মাণ করার কারণেই কী পরিচালক সমিতির রোষাণলে পড়তে হচ্ছে? এই প্রশ্নই এখন আমার কাছে বড় হয়ে উঠেছে। সেই সঙ্গে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতিতে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বিরোধী চক্র এখনো বেশ তৎপর বলে ইঙ্গিত পাচ্ছি।

যারা সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ গ্রহণ করেও উপস্থিত হননি, তারা স্বাধীনতার স্বপক্ষে নন বলেও মনে করেন সেলিম খান। বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি লিখেন-বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি লিয়াকত শিকদার ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবুর কমিটির সম্মানিত সদস্য, ছাত্রলীগ নেতা জায়েদ খান সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন চেতনার টানে। এতে আমি সংগঠন বিরোধী কাজ করেছি বলে মনে করি না। আর যারা সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ গ্রহণ করেও আসেননি, অথচ নেতিবাচক মন্তব্য বা ষড়যন্ত্র করছেন তারা স্বাধীনতার স্বপক্ষের নয় বলেই আমি মনে করি। সেই সঙ্গে স্পষ্টভাবে বলতে চাই, বিএফডিসি ধ্বংস করতে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র উঠেপড়ে লেগেছে।

পরিচালক সমিতিকে দুঃখ প্রকাশ করার আহ্বান জানিয়ে সেলিম খান লিখেন-আগামী তিনদিনের মধ্যে উক্ত পত্রের বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ ও তা প্রত্যাহার করতে বলা হলো। তা না হলে আমি এবং আমাদের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোর কোনটিই নতুন কোনো চলচ্চিত্র নির্মাণ করব না। আর এই পরিস্থিতির জন্য সম্পূর্ণভাবে দায়ী থাকবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি। সতর্কীকরণ পত্র প্রত্যাহার করা না হলে প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থাও গ্রহণ করব।

চিঠিতে উল্লেখ করেন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি নতুন ৬টি চলচ্চিত্রের নাম নিবন্ধন করেছে। এসব চলচ্চিত্র হলো-‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’, ‘স্বাধীনতা বিরোধী কারা’, ‘দেখে পালায় কারা’, ‘বাবা তুমি ফিরে এসো’, ‘বর্ডার’ এবং ‘নরসুন্দরী’।

Previous article‘আমার সময় ফুরিয়ে আসছে’
Next articleনাগরিক টিভিতে ‘টু ইডিয়ট’

Leave a Reply