করোনাকালে এলো ঈদ। এবারের ঈদে বেশ কিছু নাটক প্রচার হয়েছে। তবে পূর্বের তুলনায় অনেক কম। তারমধ্যে কয়েকটি নাটক দর্শকের মনোযোগ কেড়েছে। কিন্তু টেলিভিশনের চেয়ে দর্শক প্রাধান্য পেয়েছে অনলাইনে। কয়েক বছর ধরে অনলাইনের কদর বেড়েছে। ঈদে আনোয়ার আজাদ ফিল্মস ইউটিউব চ্যানেলে অবমুক্ত হয় ‘প্রবাসী ভাবী’ শিরোনামের একটি নাটক। প্রবাস জীবনের কষ্টের পাশাপাশি প্রবাসে কার্যরত ব্যাক্তির স্বজনদের জীবনাচরণের গল্পে ঈদ নাটক ‘প্রবাসী ভাবী’ ব্যাপক আলোচিত হয়েছে।

নাট্যকার বরজাহান হোসেনের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন নির্মাতা সোয়েব সাদিক সজীব। ইউটিউব চ্যানেলে ‘প্রবাসী ভাবী’ নাটকটি মুক্তি পাওয়ার পরেই বাংলাদেশ সহ প্রবাসে অনেক আলোচিত হয়। ইউটিউব এনালিটিক্স থেকে জানা যায় বিশ্বের ৫৬টি দেশ থেকে নাটকটি জনপ্রিয়তা পেয়েছে। নাটক যে শুধু বিনোদন নয় বরং নাটক থেকে যে শিক্ষা নেয়া সম্ভব তা আবারও প্রমাণ হয়েছে।

যেখানে লাখ লাখ সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল গুলো তাদের নাটকে ১ থেকে ৫ লাখ ভিউ নিয়ে মিডিয়া মহলে নিজেরাই হৈচৈ করে। সেখানে ‘প্রবাসী ভাবী’ নাটকটি আনোয়ার আজাদ ফিল্মস ইউটিউব চ্যানেলের শূন্য সাবস্ক্রাইব থেকে আজ দর্শক মহলে ব্যাপক পরিচিতি লাভের পাশাপাশি ৫ দিনের ভিতর মনিটাইজেশন পেয়েছে। তবে কোন অশ্লীলতা বা দেহ দেখিয়ে নয় নাটকটির জনপ্রিয়তার মূল কারণ স্পর্শকাতর গল্প। নাটকটিতে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী শিরিন আলম, কাজী রাজু, প্রাণ রায় ও তানিন তানহা সহ আরো অনেকে।

অভিনেত্রী শিরিন বলেন, ‘গল্পটি অত্যন্ত জীবন ঘনিষ্ঠ প্রবাসে চলে যাওয়া একটা মানুষের পরিবারে যা হয় তার বাস্তব প্রতিফলন দেখানো হয়েছে এই গল্পে। এই নাটকে আমি শাশুড়ী চরিত্রে অভিনয় করেছিলাম কাজটি করতে গিয়ে আমি উপলব্ধি করি প্রবাস জীবনের অনূভুতিটা। একজন মায়ের সন্তান প্রবাসে থাকলে যেমন অনুভূত হয়। সব মিলিয়ে গল্পটি দর্শক মহলে প্রভাব ফেলার মতো ছিল।’

অভিনেতা কাজী রাজু বলেন, ‘কেউ ভাবে না যে প্রবাসীরা কত কষ্ট বুকে নিয়ে পরিবারের সুখের জন্য নিজের সুখ বিসর্জন দিয়ে যাচ্ছে। যেই মেয়েটি তার পরিবার ছেড়ে যার মায়ায়, যার উপর ভরসা করে নতুন জীবনে সন্ধানে আসে। কিন্তু সেই বউকে রেখেই তাদের পারি জমাতে হয় প্রবাসে। বেশি ভাগ মানুষ প্রবাসীর বউদের অন্য দৃষ্টিতে দেখে।’

নাটকটির প্রযোজক কানাডা প্রবাসী আনোয়ার আজাদ বলেন, ‘আমার প্রযোজিত বাংলা ঈদ নাটক প্রবাসী ভাবী গল্প নির্ভর একটি নাটক। বরাবরই আমি এমন গল্প নির্ভর নাটক ও সিনেমায় প্রযোজনা করতে আগ্রহী। এই নাটকটি নির্মাণের মধ্য দিয়ে নাট্যকার ও নির্মাতা আমাকে চমকৃত করেছে। তাদেরকে আমি বিশেষ ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এমন স্পর্শকাতর গল্প পেলে আমি আরো অনেক প্রযোজনা করতে আগ্রহী।’

নাট্যকার ও নির্মাতা উভয়েই এই নাটক নিয়ে উচ্ছ্বসিত। নাট্যকার বরজাহান হোসেন জানান, ‘প্রবাসে কোনো ব্যাক্তি চলে গেলে তার পরিবার যেই সকল সমস্যার সম্মুখীন হয় সেই চিত্রটি তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। নাটকটি অল্প সময়ে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে এ জন্য দর্শকদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ।’

নির্মাতা সোয়েব সাদিক সজীব বলেন, ‘এমন গল্প ছাড়া হয়তো আমার নির্মিত এই নাটকটি এত প্রশংসনীয় হতো না। গল্প নির্ভর নাটক আমি বেশি পছন্দ করি। এবং আমি স্বীকার করি যে, শিল্পী নির্ভর নয় বরং গল্প নির্ভর নাটকই দর্শক প্রিয়তা পায়। এবং ভবিষ্যতেও এমন ধরণের জীবনঘনিষ্ঠ গল্প ফ্রেম বন্দি করার প্রত্যয় ব্যাক্ত করি।’

Previous articleকে হচ্ছেন শাকিব খানের প্রিয়তমা?
Next articleসরব হলেন অপু বিশ্বাস

Leave a Reply