‘মিথ্যে প্রেম’ নাটকের দৃশ্যে অপূর্ব-তানহা তাসনিয়া

রুহুল আমিন ভূঁইয়া: বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম টেলিভিশন নাটক। কয়েক বছর আগেও টিভি নাটকের বেশ কদর ছিল। টিভিতে নাটক দেখার জন্য দলবদ্ধ হয়ে সবাই ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকত। তবে সেটি এখন অতীত! তথ্য প্রযুক্তির অগ্রগতির পাশাপাশি বিনোদনের অনেক মাধ্যম যোগ হয়েছে। সময়ের পরিক্রমায় বিলুপ্তির পথে টেলিভিশন নাটক! দিনদিন তরুণ প্রজন্ম এ মাধ্যমটির সাথে অপরিচিত হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে নাটক দেখার মাধ্যম হিসেবে ক্রমেই জনপ্রিয়তা পাচ্ছে ডিজিটাল মাধ্যম। টেলিভিশনের পরিবর্তে সবাই ঝুকছে ইউটিউবে নাটক দেখার জন্য। যার কারণে টেলিভিশন শব্দটি আমাদের জীবন থেকে হারিয়ে যাচ্ছে! এভাবে চলতে থাকলে একটা সময় আগামীর প্রজন্ম টেলিভিশন শব্দটি চিনতেই পারবে না বলে ধারণা করা হচ্ছে। বর্তমানে ইউটিউবের জন্য মোটা অংকের বাজেটেও দিচ্ছে প্রযোজক। যা টেলিভিশন নাটকের চেয়ে দিগুন।

কারণ, ইউটিউবের জন্য মোটা অংকের বাজেট না দিলে কাজের মান ঠিক থাকে না এবং ভালো কনন্টেনের জন্য বাজেট অবশ্যই ভালো হওয়া দরকার মনে করছেন প্রযোজকরা। কয়েক বছর ধরে ঈদে টেলিভিশন নাটকে ভাগ বসিয়ে আসছে অনলাইন প্লাটফর্ম ইউটিউব। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ডিজিটাল মাধ্যমের জন্য ওয়েব সিরিজ নিমার্ণেও ঝুকেছে নিমার্তারা। এবং সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা-অভিনেত্রীদের দেখা মিলছে সেই সব ওয়েব সিরিজে। তবে ওয়েব সিরিজে রয়েছে মানহীনের অভিযোগ। যার ফলে ইউটিউবের জন্য সেন্সর এখন সময়ের দাবি। এবারের ঈদেও ইউটিউবের জন্য বেশ কিছু নাটক নির্মিত হয়েছে। তবে বেশ কিছু নাটক বেশ সাড়াও ফেলেছে। অনেক নির্মাতার দাবি টেলিভিশনের চেয়ে ইউটিউবের জন্য এখন নাটক নির্মাণ লাভজনক। দর্শক নিজের মতো করেই ইউটিউবে নিজের পছন্দের নাটক দেখছে।

অভিনেতা অপূর্ব টিভি চ্যানেল ও ইউটিউব দুই মাধ্যমের দর্শকের কাছে জনপ্রিয়। অনেকে বলছেন, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের কারণে দর্শক টিভি নাটক বিমুখ হচ্ছে। আপনারও কি তাই মনে হয়? অপূর্ব; এখন ঈদের সময় অনেক নাটক নির্মাণ হয় সত্যি। তবে সব নাটক টিভি চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে না। কিছু নাটক কেবল ইউটিউবের জন্যই নির্মাণ হচ্ছে। আবার টিভি চ্যানেলে প্রচার হওয়া নাটকগুলোও ইউটিউবে যাচ্ছে। এ পরিবর্তন আমি পজিটিভ ভাবেই দেখছি। আমার কষ্টে করা কাজ সেটা দর্শকদের মাঝে কি ভাবে পৌছাচ্ছে সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়! আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ সেটা তাদের কাছে পৌছাচ্ছে কি-না। দর্শকরা নাটক দেখলেই হয়। সেটা তারা যে মাধ্যমেই দেখুক না কেন। এখান থেকে বুঝতে হবে এই সময়ে ইউটিউবের জনপ্রিয়তা কতটুকু।

অভিনেতা সিদ্দিক বলেন, ইউটিউবের জন্য সেন্সর সময়ের দাবি। কেননা বর্তমানে অখাদ্য কু-খাদ্য বানিয়ে ইউটিউব ছেড়ে শিল্পকে ধ্বংস করা হচ্ছে। নাটকে বাড়ছে অশ্লীলতা। অশ্লীল সংলাপ, পোশাক ও বিভিন্ন ধরনের সুড়সুড়ি দৃশ্য দিয়ে দর্শককে আকৃষ্ট করার প্রতিযোগিতা চলছে। গল্প ও শিল্পীদের চরিত্রের চেয়ে এসব নির্মাতার টার্গেট এখন ইউটিউব ভিউয়ার্স। ভিউয়ার্স বাড়ানোর প্রতিযোগিতায় মেতে তারা যা-তা নির্মাণ করছে। প্রমিত ভাষার মতো আঞ্চলিক ভাষারও সৌন্দর্য আছে। তবে কোনো অবস্থাতেই নাটকে আঞ্চলিক ভাষার নামে যেনো ভাষার বিকৃতি না হয় এমন পরামর্শ এ অভিনেতার।

Previous articleসরব হলেন অপু বিশ্বাস
Next articleপ্রকৃতি ‘বাটপার’

Leave a Reply