বাংলাদেশের টেলিভিশন নাটকের রয়েছে সুন্দর অতীত। বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম ছিলো টিভি নাটক। তবে বর্তমানে হাজারো প্রশ্নে জর্জরিত টেলিভিশন নাটক। দিনকে দিন মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে দর্শকরা। নাটকের সোনালী দিন এখন শুধুই অতীত। টেলিভিশনের দর্শক অনলাইন নির্ভর। টিভি নাটক থেকে ডিজিটাল মাধ্যমের জন্য বেশি বাজেট দেওয়া হচ্ছে। বর্তমানে ডিজিটাল আয়োজন চোখে পড়ার মতো। রয়েছে মানহীনতারও অভিযোগ। তবুও থেমে নেই ডিজিটাল মাধ্যমের জন্য নির্মাণ। করোনায় ওটিটি দেখতে অভ্যস্ত হয়েছে দর্শক। অভিযোগ বাংলা নাটকে ঘুরেফিরে একই মুখ, একই গল্প। এও শোনা যায় এখনকার নির্মাতারা প্রেমের গল্পে সীমাবদ্ধ।

তারপরও ভালো নাটক নির্মাণ যে হচ্ছে না তা কিন্তু নয়। এমন সংকটময় সময়ও কিছু নির্মাতা ভালো কিছু নাটক উপহার দিচ্ছে। এহেন অবস্থায় বাংলা নাটকের ব্যাপক পৃষ্টপোষকতা করছে ‘ইভ্যালি’। দীর্ঘ দিন ধরে বেশ সুনামের সাথে কাজ করছে তারা। ইভ্যালি এরইমধ্যে ব্যাতিক্রমধর্মী কাজ দিয়ে মিডিয়ায় সাড়া ফেলেছে। এমনও বলা যায় হতাশার মাঝে আশার আলো ‘ইভ্যালি’! সমাজের একেকজন মানুষের স্বপ্নপূরণের পাশাপাশি নাটকের পরিবর্তনে ‘ইভ্যালি’ ব্যাপক ভূমিকা রাখবে বলে অনেকে মনে করছেন। নাটকের জন্য তাদের পজিটিভ চিন্তা চেতনাকে নাটক সংশ্লিষ্টরা স্বাগতা জানিয়েছে। কঠিন সময়, কঠিন পরিস্থিতি। কঠিন দায়িত্ব নাট্যনির্মাতা ও গল্পকারদেরও হাতে। দর্শককে টেলিভিশন মুখি করার জন্য তাদের রণকৌশল বদলাতে হবে।

Previous articleচার পর্বের বিশেষ ধারাবাহিক ‘ফান্দে পড়িয়া’
Next articleবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানালেন শিল্পীরা

Leave a Reply