রুহুল আমিন ভূঁইয়া: তাকে বলা হয় বর্তমান সময়ের ঢালিউডের রাজা। সেই কিং খান অভিনয়গুনে এক মন করেছেন দুই বাংলার দর্শককে। যাকে নিয়ে এ লেখা তাকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেব কি। তার নামই সর্বসাধারণের কাছে তুমুল জনপ্রিয়। তার নামে হলে ছবি উঠে, প্রযোজক লগ্নি করতে সাহস পায়। বাংলা চলচ্চিত্রে যে কয়জন নায়ক রয়েছে তার মধ্যে তাকে নিয়ে সকল জল্পনা কল্পনা, রয়েছে তর্ক-বির্তক। তিনি ঢাকাই সিনেমার নাম্বার ওয়ান নায়ক শাকিব খান। শাকিব মানেই আলোচনা-সমলোচনা। এবার শাকিব প্রসঙ্গে বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য। ঢাকাই চলচ্চিত্রের সোনালী দিনগুলো এখন অতীত। যতোই দিন গড়াচ্ছে ততোই রুগ্ন হচ্ছে এই প্রতিষ্ঠান। চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ পুরো চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রি রুগ্ন হলেও তারকাদের অনেকেই ফুলে ফেঁপে উঠছেন। তারকাদের চলচ্চিত্রের শিডিউল ফাঁসানো, দেরীতে শুটিং সেটে আসা, চলচ্চিত্রের তারকাদের রাতারাতি সম্পদের পাহাড় গড়ে তোলার অভিযোগ তুলেছেন চলচ্চিত্রের পেছনের কারিগরেরা। এ নিয়ে সবচেয়ে বেশি অভিযোগ ঢাকাই ছবির কিং শাকিব খানের বিরুদ্ধে। নবীনরাও তাকে অনুসরন করে একই পথে হাঁটছে বলে অভিযোগ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের।

ঢাকাই চলচ্চিত্রে এখন একক রাজত্ব শাকিব খানের। গেলো এক যুগ ধরেই ঢাকাই চলচ্চিত্র একচেটিয়া শাসন করছেন তিনি। শাকিবের অভিনয়ে মুগ্ধ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সবাই তবে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গুরুতর। শিডিউল ফাঁসানোর কারণে তার অনেক ছবির মুক্তি আটকে গেছে যার কারনে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে চলচ্চিত্রের পরিচালক ও প্রযোজকেরা। এরই মধ্যে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের প্রতিবেদনে শাকিবের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে শিডিউল ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে। পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজর নিজেই নায়কের অনিয়মের শিকার হয়েছেন। শাকিবের কারণে অনেক প্রযোজক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

এ ব্যাপারে প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, শাকিব খানের কাজ থাকলে একটা বিশাল ইউনিট। ২০০-২৫০ জনের একটা ইউনিট। সেই ইউনিট বসে থেকে যদি কাজ না করতে পারে তাহলে একজন প্রযোজকের অনেক ক্ষতি। সেটা যদি দুই তিনদিন হয় আর সেটা যদি না জানিয়ে হয়। এটা একটা বিশাল লস।

মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, আমরা শাকিবের দু’চারটা বিষয় যখন দেখেছি তখনই আমাদের উচিত ছিল কঠোরভাবে তার বিরুদ্ধে দাঁড়ানো। বড় বড় প্রযোজককেই দেখেছি শাকিবের চামচামি করতে। সরি আমার এই ভাষাটা ব্যবহার করার জন্য। কিন্তু তারা করেছে। শাকিবের এই অনিয়মগুলোকে তারাই প্রশ্রয় দিয়েছে। অনেকেই ভোগান্তিতে পড়েছে। আমিও এই ভোগান্তিতে পড়েছি। আমার ‘আই লাভ ইউ’ ছবিটা ৭ বছর ধরে নির্মাণ করেছি। গুলজার মনে করেন, যদি চলচ্চিত্রের পেছনের কারিগরেরা শাকিবের চামচামি না করতো তাহলে হয়তো সে এমনটা করার সাহস পেতো না।

একসময় যিনি ছিলেন শাকিব খানের বন্ধু, যখন শাকিব খান থেকে পুরো চলচ্চিত্র পরিবার মুখ ফিরেয়ে নিয়েছিলো তিনিই তখন বাড়িয়ে দিয়েছিলেন সহযোগীতার হাত, এখন তার সাথেই শাকিব খানের সম্পর্কের অবনতি হয়েছে। কিন্তু কেনো? অনুসন্ধানে বের হয় সেই কথা। নিজের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের ছবির জন্যে অন্যের ছবি আটকে দেন চিত্রনায়ক শাকিব খান। যেমনটা তিনি করেছেন বর্তমান সময়ের অন্যতম বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়ার সাথে।

২০১৭ সালে শাকিব খানকে তার নানা অনিয়মের কারণে বয়কট করে চলচ্চিত্রের ১৮ টি সংগঠন। কুল হারা শাকিব খান যখন চলচ্চিত্রে ফিরে আসতে মরিয়া তখন সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন প্রযোজক সেলিম খান। শাকিব খানকে ১৮টি সংগঠনের বয়কটের প্রতিবাদে সেলিম খান উচ্চ আদালতে বয়কটের বিপরীতে রীট আবেদন করেন। উচ্চ আদালত সেলিম খানের সেই রীটে আবেদনে শাকিব খানকে বয়কটের সিদ্ধান্তকে স্থগিত ঘোষনা করে। সেলিম খানে চেষ্টায় কাজে ফেরে শাকিব।

এরপর তিনি শাকিব খানকে নিয়ে একের পর এক চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে থাকেন। তবে বিধিবাম, দু:সময়ের সেলিম খানের সেই সাহায্যের কথা বেমালুম ভুলে যান শাকিব। ২০১৯ সালে নিজ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান পাসওয়ার্ড চলচ্চিত্রের শুটিং এর জন্যে শিডিউল ফাসিয়ে আটকে দেন দু:সময়ের বন্ধু সেলিম খানের শাপলা মিডিয়া প্রযোজিত একটু প্রেম দরকার চলচ্চিত্রটি যা বর্তমানে বিদ্রোহী নামে পরিচিত।

পরে শাকিব খানকে ছবির বাদ বাকি কাজ শেষ করার জন্যে ৭ দিনের আল্টিমোটাম দেন সেলিম খান এবং পরে এক সপ্তাহ না পেরুতেই শাকিব সেই কাজ শেষ করেন। সেলিম খান বলেন, শাকিব তার প্রযোজিত শাহেন শাহ ছবিতেও একই কাজ করেন। সেলিম খান জানান, চলচ্চিত্রে বড় প্রযোজক হয়ে সে যদি আমার সাথেই এই কাজ করে তাহলে অন্যদের সাথে কি করে তা তিনি বুঝতে পারছেন।

চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ এই প্রজন্মের উঠতি তারকারাও শাকিব খানকে অনুসরন করে শিডিউল ফাঁসাচ্ছে এবং সেই একই পথ অনুসরন করছে। তারকারা নিজেরা ফুলে ফেঁপে উঠলেও ইন্ডাস্ট্রিকে রুগ্ন করার অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে।

এদিকে সম্প্রতি শাকিব খানের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন নব্বই দশকের দর্শকপ্রিয় কন্ঠশিল্পী দিলরুবা খান, গীতিকার আহমেদ কায়সার ও সুরকার আশরাফ উদাস। গত বছর ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিতে গানটির চুম্বক অংশ ‘পাগল মন মন রে, মন কেন এত কথা বলে’ চরণ দুটি ব্যবহার করেছেন ছবির প্রযোজক ও অভিনেতা শাকিব খান। এর মাধ্যমে তিনভাবে লঙ্ঘিত হয়েছে মেধাস্বত্ব আইন। অনুমতিবিহীন গান ব্যবহার করায় তারা আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। যদিও রফাদফা করার চেষ্টা করা হলেও তখন কোন ফলপ্রসূ হয়নি। মালেক আফসারী পরিচালিত ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটি শুরু থেকেই বিতর্কিত। রয়েছে কোরিয়ান ছবির নকলের অভিযোগ।

দিলরুবা খানের আইনজীবী ওলোরা আফরিন সে সময় বলেন, ‘গণমাধ্যম সূত্রে জেনেছি নকলে অভিযুক্ত হয়ে ‘সতর্ক নোটিশপ্রাপ্ত’ হয়েছিল ‘পাসওয়ার্ড’ চলচ্চিত্রটি। ছবিটি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ক্যাটাগরিতে জমা পড়েছে। কোনো বিতর্কিত ছবি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ক্যাটাগরিতে বিবেচিত হতে পারে বলে আমার মনে হয় না। এ নিয়ে শিগগিরিই সেন্সরবোর্ড ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে দেখা করে গানের মেধাসত্ব বিষয়ে মিমাংসা না হওয়া পর্যন্ত ছবিটিকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ক্যাটাগরি থেকে নাম স্থগিতের জন্য আবেদন করবো।’ এদিকে ‘অনুমতি ছাড়া একটি শব্দও ব্যবহার করলে সেটি কপিরাইট আইন লঙ্ঘন’- এমনটাই জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার অফ কপিরাইট অফিসের (যুগ্ম সচিব) জাফর রাজা চৌধুরী। তবে নতুন খবর হচ্ছে দুই পক্ষের মধ্যে এরইমধ্যে সমঝোতা হয়েছে। শাকিবের বিরুদ্ধে এখন আর কোন অভিযোগ নেই তাদের।

বাংলা চলচ্চিত্রের জন্য নায়ক শাকিব খানের দায়িত্ব কি? চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট অনেকেরই মনে এমন প্রশ্ন। যখন বাংলাদেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে, গতানুগতিক যে ধারা চলছিল তখন শাকিব খানের মতো একজন তারকা বাংলা চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করছে। তবে তিনি তার সময়ের সিংগভাগ দিয়েছেন যৌথ প্রযোজনার ছবিতে। শাকিবের বাংলাদেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যতটা সময় দেওয়া সম্ভব ছিল ততটা দিলেন না। এবং ব্যক্তি শাকিব খান আন্তজার্তিক পর্যায়ে গেলেও বাংলাদেশ যেতে পারেনি। শাকিবের কাজ করা নিয়ে ছিল তুমুল সমালোচনা। তখন বাংলাদেশের ইন্ডাস্ট্রির চেয়ে ভিনদেশী ছবির প্রতি জোর নজর দিয়েছিলেন তিনি। তবে সে ভাবে সফলতা অর্জন না করতে পারায় ফের দেশীয় চলচ্চিত্র মুখি হন শাকিব। তবে ততদিনে ইন্ডাস্ট্রির জন্য বড় ধরণের ক্ষতি হয়েছে বলে মনে করছেন চলচ্চিত্র বোদ্ধারা।

করোনার দুর্দিনে কেমন আছেন শাকিব পুত্র জয় একবারও জানতে চায়নি জয়ের জন্মদাতা পিতা শাকিব খান। এমনকি দীর্ঘ দিন ধরে দেন না কোন ভরণ পোষণ, অভিযোগ সাবেক স্ত্রী অপুর। চলচ্চিত্রপাড়ায় কান পাতলে শোনা যায় শাকিবের বর্তমান ও ভবিষ্যতের সাথে একটি নাম জড়িয়ে আছে তিনি হলেন বুবলী। প্রাক্তন স্ত্রী অপু বিশ্বাসের অভিযোগ ছিল তার সংসার ভাঙনের একমাত্র কারণ ছিল বুবলী। যদিও শাকিব বুবলী প্রসঙ্গে বরাবরই বলেছেন শুধুই সহশিল্পী। তবে অপুর বেলায়ও সহশিল্পী বলেছিলেন পরবর্তীতে সেই সহশিল্পীই শাকিবের বউ হয়ে ঘরে উঠে। যদিও সেই ঘর আলোকিত হবার আগেই ভেঙে যায়। এরপর একের পর এক শাকিব-বুবলী জুটি হতে দেখা যায়। তবে কি বুবলীর বেলায়ও কি তাই হচ্ছে? সম্প্রতি এমনও প্রশ্ন উঠেছে।

মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে শাহীন সুমন পরিচালিত শাকিব-বুবলীর জুটির এগারো তম ছবি ‘বিদ্রোহী’। রোজার ঈদে ছবিটি মুক্তি পাবার কথা থাকলেও করোনা ভাইরাসের কারণে থমকে যায়। কবে নাগাত মুক্তি পাবে তাও অনিশ্চিত। বর্তমানে চলচ্চিত্রের দুটি ফ্লোর ভাঙ্গা হচ্ছে এবং এফডিসির ভেতরেই বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বানানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে, অথচ বিশ্বের অন্য কোন দেশে এমন নজির নেই যা পুরো ইন্ডাস্ট্রির রুগ্নতাকেই প্রকাশ করে। বিরাট সূর্যের মতো তারকা শাকিবও একদিন অস্তমিত হবেন। তখন কে ধরবে ইন্ডাস্ট্রির হাল? তা কি কখনো শাকিব বা অন্যরা ভেবেছেন?

Previous articleআহত চিত্রনায়িকা পূজা
Next articleকর্মশূন্য এফডিসি, সবাই ব্যস্ত সংগঠন নিয়ে

Leave a Reply