রঞ্জু সরকার: টানা পাঁচ মাস ধরে সিনেমা হল বন্ধ। প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ থাকার সময় যত দীর্ঘ হচ্ছে ততই বিপাকে পড়ছে ঢাকা ও ঢাকার বাইরের হাজারো কর্মচারী। এরইমধ্যে অনেকেই হল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আগামী মাসেও যে সিনেমা হল খুলবে, এমন নিশ্চয়তা এখন অবধি নেই। সব কিছু খুলে দেওয়া হলেও সিনেমা হল খোলার ব্যাপারে নেই কোন উদ্যোগ। সিনেমা নির্মাণ ও হল বন্ধ থাকায় অনেকেই ভিন্ন পেশায় জড়িত হয়েছেন। দীর্ঘ দিন হল বন্ধ থাকায় অনেকেই ভিন্ন প্লাটফর্মের জন্য নির্মাণের চিন্তা করছেন। বর্তমানে ডিজিটাল আয়োজন চোখে পড়ার মতো। রয়েছে মানহীনতারও অভিযোগ। তবুও থেমে নেই ডিজিটাল মাধ্যমের জন্য নির্মাণ। সিনেমা না থাকলেও চলচ্চিত্রর আতুর ঘর এফডিসি ব্যস্ত কাদা ছোড়াছুড়িতে। করোনার কারণে ডিজিটাল মাধ্যমের বুনিয়াদ বেশ মজবুত হয়েছে। বাংলা ছবির মার্কেট ছোট। মূলত বিভিন্ন উৎসব কেন্দ্র করে একাধিক সিনেমা মুক্তি পায় প্রেক্ষাগৃহে। তবে করোনায় ওটিটি দেখতে অভ্যস্ত হয়ে পড়া দর্শক কি এর পর সিনেমা হলে গিয়ে বাংলা ছবি দেখবেন? এমন প্রশ্ন যে একেবারে নেই, তাও নয়। করোনাকে সঙ্গী করেই সবাইকে চলতে হবে। তাই সিনেমা হল খুলতে সমস্যা কোথায়? এই প্রশ্ন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের।

এক যুগ আগে সারা দেশে সিনেমা হলের সংখ্যা ছিল ১৪০০। প্রদর্শক সমিতির তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে সারা দেশে সিনেমা হলের সংখ্যা মাত্র ৬৮টি। করোনা সংকটে এর কারণে সম্প্রতি এর সংখ্যা আরো কমার আশঙ্কা। এমন বাস্তবায়তায় সরকারি প্রণোদনার দাবি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির পক্ষ থেকে। করোনাকে বাংলা চলচ্চিত্রর জন্য কেউ বলছেন ‘আশীবাদ’ কেউবা বলছেন ‘অভিশাপ’। হল বন্ধ থাকা সাময়িক চিন্তার কারণ। আগামী বছর শুরুর দিকেই সব ঠিক হয়ে যাবে। মিটিং, মিছিল, র‌্যালিতে মানুষের যেমন আগ্রহ, বাংলা ছবি দেখতেও দর্শক হলে আসবেন। কিন্তু সারা শহর মাস্ক পরে হাঁটছে… এমন দৃশ্য তো দুবছর আগেও লোকের কল্পনায় ছিল না। তাই এর পর বাংলায় অনেক নতুন কাজ হবে এটাই প্রত্যাশা। বাকিদের মতো অতটাও আশাবাদী নন প্রযোজকরা। ওটিটি প্ল্যাটফর্মে বাংলা ছবি বিক্রি করে যে টাকা আসে, তাতে খরচ ওঠে না।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি কাজী শোয়েব রশিদ বলেন, ‘সিনেমা হল যদি না বাঁচে প্রযোজক সিনেমা বানালে কোন লাভ নেই। সিনেমা বাঁচাতে সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে।’

চীন, জার্মানি রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ডেনমার্ক, নরওয়ে, ইতালি, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, মালয়েশিয়াসহ বিশ্বের অনেক দেশেই এরইমধ্যে সিনেমা হল চালু করা হয়েছে। ভারতেও চলতি মাসে সিনেমা হল খুলে দেয়ার কথা রয়েছে। এ প্রসঙ্গে স্টার সিনেপ্লেক্সের চেয়ারম্যান মাহবুব রহমান রুহেল বলেন, সংস্কৃতি ও বিনোদন সংশ্লিষ্ট ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আর্থিক সহায়তাও করছে বিভিন্ন দেশের সরকার। মুভি থিয়েটার ক্ষতিগ্রস্ত খাতগুলোর জন্য ২ ট্রিলিয়ন ডলার আর্থিক সহায়তা বিল পাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট। ফ্রান্সের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ৫ বিলিয়ন ইউরো বরাদ্দ দিয়েছে। যুক্তরাজ্য দিয়েছে ২ বিলিয়ন ডলার। এমন অবস্থায় আমাদের দেশেও সিনেমা হল চালু রাখতে সরকারের আন্তরিক সহায়তা জরুরি।

দৈনিক আজকালের খবরের বিনোদন প্রধান ও চলচ্চিত্র বিশ্লেষক আহমেদ তেপান্তর বলেন, ‘আমি এভাবে দেখি না। করোনার প্রকোপে মানুষ ঘরবন্দি হয়ে অবসাদে ভুগছে এই সত্যটাকে মেনে নতুন করে বাঁচতে বিনোদনের দরকার। শত অভাবেও মানুষ বিনোদিত হতে চায়। যেহেতু বিনোদিত হওয়ার মতো পর্যাপ্ত ব্যবস্থা আমাদের নেই; তাই বিনোদনের সবচেয়ে বড় মাধ্যম যেটিকে বলা হয় সেই সিনেমা এবং থিয়েটার খুলে দেওয়া সময়ের দাবি। একই সঙ্গে সিনেমা হলগুলোর জন্য বিদ্যুৎ বিল মওকুফ এবং টেক্স ফ্রি করে মানুষের রিক্রেশনের ব্যবস্থা করে দিতে হবে ক্ষতিগ্রস্থ সব সেক্টরই। সেটা পুষিয়ে ওঠার ব্যবস্থা করতে হবে সরকারকেই। নয়তো ঘরবন্দি মানুষগুলো হলে ঢোকার রুচি হারাবে। একইসঙ্গে বলতে হয় চলচ্চিত্র শিল্পে একশ্রেণির প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠীর আবির্ভাব কিন্তু সাম্প্রতিক অসহায় কর্মহীনতার কারণে। আর কিছুদিন হল বন্ধ থাকলে ইন্ডাস্ট্রি প্রতিক্রিয়াশীলদের দখলে চলে যাবে। সরকারকে সেটাও মাথায় রাখতে হবে।

কঠিন সময়, কঠিন পরিস্থিতি। কঠিন দায়িত্ব বাংলার পরিচালকদেরও হাতে। দর্শককে হলে আনার জন্য তাদের রণকৌশল বদলাতে হবে। যত কিছুই বদলাক, সিনেমা হল আগে খুলতে হবে। তা না হলে সংশ্লিষ্টরা কীভাবে বুঝবেন আসলে দর্শক কী চাচ্ছে। তাই করোনাকালে এখন সবকিছুই খুলে যাচ্ছে, সিনেমা হল কেন বাদ থাকবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিনেমা হল খোলা এখন সময়ের দাবি। বাংলা চলচ্চিত্রর ইতিহাসে এই প্রথম দুই ঈদে বন্ধ ছিল প্রেক্ষাগৃহ। করোনা পরবর্তী সময়ে বাংলা চলচ্চিত্রর ভবিষ্যৎ কি সেটিই এখন দেখার বিষয়।

Previous articleনীরবে কাটছে নির্মাতা তারেক মাসুদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী
Next articleশ্রাবন্তীর জন্মদিন আজ

Leave a Reply