চলচ্চিত্রর সংকটকাল। দীর্ঘ দিন ধরে প্রেক্ষাগৃহে নেই নতুন সিনেমা। ক্রমেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সিনেমা হল। কমে আসছে সিনেমা নির্মাণের সংখ্যা। করোনা মরার উপর খাঁরার ঘা। এমন সংকটময় সময় চলচ্চিত্রর আতুর ঘর এফডিসিতে থেমে নেই কাদা ছোড়াছোড়ি। এখানে যত না কাজ হচ্ছে তার চেয়ে সমিতি বেশি। কর্মশূন্য এফডিসি, সবাই ব্যস্ত সংগঠন নিয়ে। এই কাদা ছোড়াছুড়িতে বেকারের সংখ্যাই বেশি। অসংখ্য সুপারহিট ছবির নায়ক আলেকজান্ডার বো জমজমাটের একান্ত সাক্ষাৎকারে কিছু দিন আগে বলেছিলেন এফডিসিতে বিভিন্ন সংগঠনে যোগ্য লোকের চেয়ে অযোগ্য লোক চেয়ার দখল করে বসে আছে। আবার নির্বাচনের আগে অনেক নেতাই বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকলেও তা বাস্তবায়নে নেই কেউর মাথাব্যথা। ব্যস্ত তারা সমিতি চর্চা নিয়ে।

মাত্র ৮ একরের একটি জায়গা। ৯টি ফ্লোর যেখানে ছিলো এখন ৭টি বিদ্যমান। দুটি ফ্লোর বলা চলে চ্যানেলওয়ালাদের কাছে প্রায় চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত দেওয়া হয়েছে। অবশিষ্ট ৫টিতে চলে ঢিমেতালে শুটিং। বছরে যেখানে শতাধিক ছবি নির্মিত হতো এখন সেখানে দেশীয় প্রডাকশন ৩৫ থেকে ৪০টি। এরমধ্যে দুই তিনটা টেনেটুনে লগ্নিকৃত অর্থ ফেরত পায় বাকিরা কেবল আসে আর যায়। এরমধ্যে নতুন পরিচয়ে কিছু প্রযোজক ও শিল্পীর দেখা মেলে। তাদের কিছুদিন আনাগোনা দেখা যায় চলচ্চিত্রের আতুরঘর বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনে। জায়গাটি কেপিআইভূক্ত। স্বাধীনতা লাভের পর এখানে কাজের পরিধি যত বেশি ছিলো সংগঠন ততো কম ছিলো। এখন হয়েছে উল্টো ছবি কম সংগঠন আর জনসংখ্যা বেশি। আগে তিন চারটি থাকলেও এখন এর সংখ্যা দাবি করা হচ্ছিল ১৮টি! যদিও এদের অস্তিত্ব নিয়ে সন্দেহ আছে জনমনে। নতুন করে জানা গেল আরও একটি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘চলচ্চিত্র শিল্পী অধিকার রক্ষা ফোরাম’। চলচ্চিত্রের ১৮ পরিবারের আওতাভুক্ত হওয়ায় এফডিসিতে এ নিয়ে সংগঠনের মোট সংখ্যা দাঁড়ালো ১৯টি!

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চলচ্চিত্রের যেসব শিল্পীরা তাদের ভোটাধিকার অধিকার ও সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তারা এ সংগঠনের সদস্য। তাদের অধিকার রক্ষাই সংগঠনটির মূল উদ্দেশ্য। অর্থাৎ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি থেকে ১৮৪ জন ভোটাধিকার বঞ্চিত শিল্পীরা এ সংগঠনের সদস্য। এমনটাই জানা গেছে।

চলচ্চিত্রের সিনিয়র শিল্পী, প্রযোজক ও পরিচালক মিলিয়ে ১০ জনকে এ সংগঠনের উপদেষ্টা কমিটি করে আত্নপ্রকাশ করেছে নয়া এই সংগঠনটি। তারা হলেন- প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু, শামসুল আলম, এমডি ইকবাল, আলিমুল্লাহ খোকন, মেহেদি হাসান সিদ্দিকী মনি এবং বিপ্লব শরীফ। পরিচালকদের মধ্যে সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলকার ও বদিউল আলম খোকন রয়েছেন। আরও আছেন দুই অভিনেতা ওমর সানী ও অমিত হাসান। চলচ্চিত্র শিল্পী অধিকার রক্ষা ফোরাম-এর আহ্বায়ক করা হয়েছে ফিরোজ শাহী, সদস্য সচিব মিজানুর রহমান। মঙ্গলবার পরিচালক ও প্রযোজক সমিতি থেকে অনুমোদন নিয়ে সংগঠনটি কথিত চলচ্চিত্র পরিবারে যুক্ত হয়।

Previous articleসমালোচনা পিছু ছাড়ছে না শাকিবের
Next articleসুমনের ‘কেনো আমার মরণ আসে না’

Leave a Reply