চিত্রনায়ক, প্রযোজক ও ব্যবসায়ী অনন্ত জলিল। ২০১০ সালে খোঁজ-দ্যা সার্চ সিনেমার মাধ্যমে ঢালিউডের চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করেন তিনি। এর পর বেশ কিছু চলচ্চিত্র দর্শকদের উপহার দেন। ‘অসম্ভবকে সম্ভব করাই অনন্তের কাজ’ পর্দায় দেওয়া এমন সংলাপ বাস্তবেও কাজের মাধ্যমে প্রমাণ করতে চান তিনি।

করোনা মাহামারিতে নানা ভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। আলোচিত এই নায়কের সব কিছুতেই থাকে ভিন্নতা। যেমন অনন্ত জলিল যাতায়াতের জন্য অধিকাংশ সময় হেলিকপ্টার ব্যবহার করেন। এ নিয়ে ভক্তদের কৌতূহলের শেষ নেই। এবার এই নায়ক নিজেই জানালেন হেলিকপ্টারে যাতায়াতের কারণ।

অনন্ত জলিল ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘প্রায়ই দেখেন আমি ‘আর অ্যান্ড আর’ থেকে হেলিকপ্টার নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যাই। আর অ্যান্ড আর-এর সঙ্গে আমাদের কর্পোরেট চুক্তি আছে। আমার সময়ের অনেক মূল্য আছে। বায়ারদের সঙ্গে সব সময় যোগাযোগ রাখতে হয়। এছাড়া ত্রাণ দিতে যাই, বিভিন্ন কাজে যাই। আমাকে দিনে গিয়ে দিনে ফিরতে হয়। এ কারণে হেলিকপ্টার ব্যবহার করি। ব্যবসার কাজে, হসপিটালের কাজে বা যেকোনো কাজে হেলিকপ্টার খুব জরুরি।’

অনন্ত জলিল অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে এরই মধ্যে দর্শকদের উপহার দিয়েছেন বেশ কিছু সিনেমা। তার পরবর্তী সিনেমা ‘দিন-দ্য ডে’। বাংলাদেশ ও ইরানের যৌথ প্রযোজনায় সিনেমাটি নির্মিত হচ্ছে। তার বিপরীতে এই সিনেমায় নায়িকা বর্ষাকে দেখা যাবে। ‘দিন-দ্য ডে’ পরিচালনা করেছেন ইরানি নির্মাতা মুর্তজা অতাশ জমজম। এছাড়া নতুন আরেকটি সিনেমা প্রযোজনা করার ঘোষণা দিয়েছেন অনন্ত জলিল। সিনেমার নাম এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

গার্মেন্টস ব্যবসার পাশাপাশি চলচ্চিত্রে বিনিয়োগ করেন নিজের প্রযোজনা সংস্থার মাধ্যমে। অনন্ত জলিল সামাজিক কর্মকাণ্ডের অংশ হিসেবে তিনটি এতিমখানা নির্মাণ করেছেন। মিরপুর ১০ নম্বর, বাইতুল আমান হাউজিং ও সাভার মধুমতি মডেল টাউনে আছে এতিমখানাগুলো। এ ছাড়া সাভারের হেমায়েতপুরের ধল্লা গ্রামে সাড়ে ২৮ বিঘার ওপর একটি বৃদ্ধাশ্রম নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন অনন্ত জলিল। তিনি ঢাকার হেমায়েতপুরে অবস্থিত বায়তুস শাহ জামে মসজিদের নির্মাণ কাজেও অবদান রাখেন।

Previous articleসাফা কবিরের ‘তুমি আমার কেউ’
Next articleআহত চিত্রনায়িকা পূজা

Leave a Reply