ছবি: এম এ এইচ সাগর

ছোটপর্দার তরুণ নির্মাতা আদিবাসী মিজান। এরইমধ্যে ছোটপর্দায় নিজের মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন। গেল রোজার ঈদে আদিবাসী মিজান পরিচালিত ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত প্রথম ঈদ ধারাবাহিক ‘সিরাজগঞ্জের ছেলে ও কিশোরগঞ্জের মেয়ে’ টিআরপির শীর্ষ স্থানে জায়গা করে নেয়। মিজান ছোটপর্দার গন্ডি পেরিয়ে স্বপ্ন বুনেছেন বড়পর্দার। সমসাময়িক প্রসঙ্গে কথা বলেন জমজমাট প্রতিবেদকের সাথে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- রঞ্জু সরকার

* ঈদে কয়টি নাটক প্রচার হয়েছে?

ঈদে বেশ কয়েকটি নাটক প্রচার হয়েছে। তারমধ্যে সাত পর্বের ধারাবাহিকে ‘মেষ রাশি’, ‘চড়া তালুকদার’ ও ‘তিন দৈত্য’ অন্যতম। খন্ড নাটক ‘বৃটিশ বুদ্ধি’ ও ‘ভেরিফিকেশন’। প্রচারের অপেক্ষা আছে ‘আছর’।

* সমসাময়িক কাজ প্রসঙ্গে জানতে চাই-

প্রথমেই বলতে চাই গত রোজার ঈদে আমার পরিচালনায় সাত পর্বের একটি ধারাবাহিক ও একটি খন্ড নাটক প্রচার হয়েছে। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর ঈদে প্রচারিত প্রথম ধারাবাহিক ছিল ‘সিরাজগঞ্জের ছেলে ও কিশোরগঞ্জের মেয়ে’। কাজটি টিআরপির শীর্ষে স্থান করে নেয়। বেশ আলোচিত হয়। ধারাবাহিকটি আমার জন্য চ্যালেঞ্জিং ছিল। যখন কাজটি নেই ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর সিইও শ্রদ্ধের বড় ভাই সালাউদ্দিন শোয়েব চৌধুরী ভাইকে বলেছিলাম নাটকটি সেরা তিনে থাকবে। যেমন কথা বলেছি তেমনটাই রেখেছি।

* নাটক নির্মাণ করতে গিয়ে কখনো প্রতিবন্ধকতার শিকার হতে হয়েছে?

প্রায়ই শুনতে হয় বাংলা নাটক আগের মতো হয় না। কথাটি সত্য। আগের মতো নাটক হচ্ছে না। আগে গল্পের জন্য লোকেশন দেখতাম। কিন্তু বর্তমানে লোকেশন এর জন্য গল্প লেখা হয়। গল্পের জন্য শিল্পী নির্বাচিত করতাম। কিন্তু এখন শিল্পীর জন্য গল্প লিখতে হয়। দুঃজনক হলেও মেনে নিতে হচ্ছে। এটি আমাকে খুবই কষ্ট দেয়।

* এ থেকে বেরিয়ে আসার উপায়?

এ থেকে বের হবার উপায় নেই। আগামী দশ বছরেও এ থেকে বের হওয়া সম্ভব নয়। ইন্ডাস্ট্রি শিল্পী কেন্দ্রিক। হাতেগোনা চার-পাঁচ জন শিল্পীর কাছে নাটক ইন্ডাস্ট্রি জিম্মি। সেই শিল্পীরা কারা সেটি সবাই অবগত। এ থেকে বের হবার উপায় দেখছি না। হলে অনেক আগেই বের হয়ে যেত। আগামী দশ বছর এটিই থাকবে।

* নাটকের ক্রান্তিকাল চলছে। নাটকের মান নিয়েও অভিযোগ। আপনার অভিমত?

আমরা শিল্পীর জন্য নাটক নির্মাণ করি। তবে এর জন্য পরিচালক লেখকদের দায়ী করলে ভুল হবে কারণ, দায়ী স্পন্সরদাতা। তারা বলে দেন অমুক শিল্পীকে নিতে হবে। অমুক কে নেওয়া যাবে না। চ্যানেলও তাদের সাথে একমত পোষণ করে। আবার সেই সব শিল্পীরা বলে দেন ঐ লোকেশনে শুটিং করলে কাজ করবো না হলে কাজ করবো না। আমাদের স্বপ্নটা বেঁধে দেওয়া হয়। পরিচালকদের সীমাবদ্ধতার মধ্যে কাজ করতে হচ্ছে। লাটাই সুতোর মতো আমাদের হাতে রেখে ঘুরাচ্ছে তারা। এর বাইরে যেতে পারছি না। চাইলেও প্রতিবাদ করতে পারছি না।

* অভিযোগ তরুণ নির্মাতারা প্রেমের গল্পেই সীমাবদ্ধ। ঘুরেফিরে একই গল্প। পারিবারিক গল্পের নাটক নির্মাণ হচ্ছে না। ক্রমশ নাটক থেকে দর্শক হারিয়ে যাচ্ছে। গল্প নির্বাচনের আগে আপনার ভাবনাটা কি থাকে?

আগে পরিবার নিয়ে টেলিভিশনে নাটক দেখতাম। আর এখন ইউটিউবে নাটক দেখছি। এটি সময়ের পরিবর্তন। ইউটিউবের দর্শক ত্রিশ বছরের মধ্যে। তারা রোম্যান্টিক গল্পের নাটক পছন্দ করে। ইউটিউবের জন্য মূল চরিত্রের শিল্পী রয়েছে তাদের অনেকের বয়স চল্লিশ পেরিয়ে গেছে। তরুণরা বাবার বয়সই শিল্পীকে দেখতে চায় না। যার কারণে তারা ক্রমশ নাটক বিমুখ হচ্ছেন।

* ধারাবাহিকে বাজেট স্বল্পতার অভিযোগ-

এর দোষ আমাদের পরিচালকদের কারণ, আমরাই আমাদের ভাগ্য নষ্ট করছি। যে কাজটি করতে এক লাখ বিশ হাজার টাকা দরকার অন্য কেউ গিয়ে সেটি এক লাখে করে দিবে বলে কাজটি নিয়ে নেয়। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানও কম টাকার সুযোগ খুঁজে। তখন যে কম টাকায় কাজটি করে দেওয়ার প্রস্তাব দেয় তাকেই কাজটি দেওয়া হয়। এর জন্য তো চ্যানেল দায়ী নয় আমরাই দায়ী।

* বর্তমান ওয়েব সিরিজ কেমন হচ্ছে বলে মনে করেন?

দিন শেষে সবাই ইউটিউব দেখে। বর্তমানে অনলাইন মাধ্যমের কদর বেড়েছে। সবার চোঁখের দৃষ্টিও বেড়ে গেছে। চাহিদায়ও এসেছে ভিন্নতা। অনন্য দেশে সেক্সের কোন দৃশ্য থাকলে সেটি মালা গাঁধার মতো আসে। কখনোই অশ্লীলতা মনে হবে না। সেক্সেও মানানসইর একটি বিষয় থাকে। অশ্লীলতা তখনই হয় যখন অশ্লীলতার জন্য কাজটি করা হয়। গল্পের জন্য অশ্লীল হলে সেটি অশ্লীলতা মনে হবে না। বিশ বছর আগের ছবিতে ব্লাউজ ছাড়া দৃশ্য ছিল। সেটি ছিল গল্পের প্রয়োজনে সেখানে বাজে দৃষ্টিতে চিন্তা করার সুযোগ ছিল না। বর্তমানে আলোচনায় আসার জন্য অশ্লীল চিন্তা ভাবনা করেই কাজ করা হচ্ছে।

* আপনার দৃষ্টিতে টেলিভিশন না-কি ইউটিউব এগিয়ে?

আগামী পাঁচ বছর পর টেলিভিশন থাকবে না। তখন অনন্য টেলিভিশন বিটিভির মতো হবে। বিশ বছর পর টেলিভিশন যাদুঘর হয়ে যাবে। টেলিভিশন নামে যে কিছু ছিল সেটি সম্পর্কে অজানা থাকবে তখনকার প্রজন্মরা।

* সবারই স্বপ্ন থাকে ছোটপর্দা থেকে বড়পর্দায় কাজ করার। আপনার স্বপ্নটা কি?

জনপ্রিয় অভিনেতা ডিপজল ভাইয়ের সাথে একটি ছবির জন্য মিটিং হয়েছে এক বছর আগে। এরইমধ্যে গল্পও নির্বাচন করা হয়েছে। ডিপজল ভাইও গল্পটি পছন্দ করেছেন। আমার প্রথম কাজটি ডিপজল ভাইকে নিয়ে করার স্বপ্ন। গল্পের প্রয়োজনে তাকে নির্বাচন করেছি। এই গল্পে কাজ করার মতো তিনি ছাড়া বাংলাদেশে দ্বিতীয় কেউ নেই। গল্পের হিরো তিনি। ১৪ টি চরিত্রে ডিপজল ভাইকে দেখা যাবে। প্রাথমিক কথা হয়েছে তিনি কাজটি করতে আগ্রহী আছেন। করোনার সংক্রমণ শেষ হলেই ডিপজল ভাইকে চুক্তি করিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষণা দেব।

Previous article‘রাজধানীর এক সবুজ আশ্রয়ের নাম বোটানিক্যাল গার্ডেন’
Next articleবুদ্ধিজীবি কবরস্থানে সমাহিত হবেন আলাউদ্দিন আলী

Leave a Reply