জমজমাট প্রতিবেদক: সেনাবাহিনীর অবসারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেজর সিনহা হত্যাকান্ডে অন্যতম আসামী ওসি প্রদীপ কুমারকে যখন জিজ্ঞাসাবাদ চলছে তখন জমজমাটের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকার তথ্য। এই মর্মান্তিক ঘটনার সাথে চলচ্চিত্রের খলনায়ক ইলিয়াস কোবরা’র সংশ্লিষ্টতার তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, হত্যাকান্ড বাহারছড়া সংলগ্ন মারিসঘোণা এলাকাতেই বসবাস করেন চলচ্চিত্রের ফাইটিং গ্রুপ পরিচালনাকারী ইলিয়াস কোবরা। হঠাৎ তার টেলিফোনে করা আমন্ত্রণ পুরোপুরি এড়িয়ে যেতে পারেননি মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে চলচ্চিত্রের ফাইটিং গ্রুপের পরিচালক ইলিয়াস কোবরাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। আতিথেয়তার নামে নানা কৌশলে সন্ধ্যা পর্যন্ত মেজর সিনহাকে তার নিভৃত পাহাড়ি গ্রামে আটকে রাখার। ক্রসফায়ারের তালিকায় নাম থাকার গুজব ছড়িয়ে অসংখ্য মানুষকে গোপনে ওসি প্রদীপের সঙ্গে সমঝোতা করিয়ে দেওয়ার বেশ নামডাক রয়েছে বলে অভিযোগ কোবরার বিরুদ্ধে। মারিসঘোণায় নিজের বাগানবাড়ি ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখার নামে ইলিয়াস কোবরা সেদিন বিকেল সাড়ে চারটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত নির্জন পাহাড়েই নিজ হেফাজতে রেখেছিলেন মেজর সিনহাকে। এ সময়ের মধ্যে মেজরের অবস্থান, কতক্ষণ পর কোন রাস্তায় কোথায় যাবেন সেসব তথ্য জানিয়ে কোবরা ৯টি এসএমএস পাঠান ওসিকে।

এমন খবর গণমাধ্যমে চলে আসলে সূত্রের বরাত দিয়ে খলনায়ক ইলিয়াস কোবরার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জমজমাটকে বলেন, আমি লেখাপড়া জানি না এসএমএস তো দূরে কথা। এ সব তথ্য গুজব ভিত্তিহীন। আমার সম্মানহানি করার জন্য এমন খবর রটানো হচ্ছে। এ ব্যাপারে সত্যিই আমি কিছু জানি না।

বিষয়টি জানতে টেকনাফ থানার নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত ওসি আবুল ফয়সলের অফিসিয়াল মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, ১৯৮৭ সালে সোহেল রানা পরিচালিত ‘মারুক শাহ’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে ইলিয়াস কোবরার অভিষেক ঘটে। চলচ্চিত্রে আসার আগে তিনি মার্শাল আর্ট প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালাতেন। তিনি প্রায় পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। তিনি ২০০০ সালে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ক্রীড়া-সাংস্কৃতিক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

Previous articleঅপেক্ষায় জয়া আহসান
Next articleজায়েদের সাথে পপির বিয়ের গুঞ্জন, অবাস্তব বললেন পপি

Leave a Reply