ছোটপর্দার প্রিয়মুখ ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর। লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতার মাধ্যমে শোবিজ অঙ্গনে পা রাখেন। দু-হাজার নয় সালে অনুষ্ঠিত লাক্স চ্যানেল আই সুপার স্টার- এ অংশগ্রহণ করে টপ সিক্সে আসেন। তারপর আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। ছোটপর্দার দর্শকপ্রিয় এই অভিনেত্রী ঈদে বেশ কিছু ধারাবাহিক ও খণ্ড নাটকে কাজ করেছেন। এরইমধ্যে বিভিন্ন বৈচিত্র্যময় চরিত্র দিয়ে দর্শকদের কাছেও বেশ গ্রহণ যোগ্যতা অর্জন করেছেন এই গ্ল্যামার কন্যা। তাই নির্মাতাদের কাছেও আস্থা নির্ভর শিল্পী হয়ে উঠেছেন তিনি। প্রেম-ভালোবাসার চরিত্রের বাইরে সাংবাদিক, মা, নেতিবাচকসহ বিভিন্ন চরিত্রে তাকে সাবলীল দেখা গেছে। অভিনয়ে মুগ্ধতা ছড়াতে চান বলে এই অভিনেত্রীর ভাষ্য। সমসাময়িক প্রসঙ্গে কথা বলেন জমজমাট প্রতিবেদকের সাথে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- রঞ্জু সরকার

ঈদে কতটি নাটক প্রচার হয়েছে?

ঈদে বেশ কিছু নাটক প্রচার হয়েছে। তারমধ্যে সাত পর্বের ধারাবাহিক ‘চড়া তালুকদার’, ‘মেষ রাশি’ ও ‘তিন দৈত্য’। ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত ধারাবাহিক তিনটি পরিচালনা করেছেন আদিবাসী মিজান। রুমান রনির ‘আব্বা’ সহ বেশ কিছু নাটক প্রচার হয়েছে। প্রচারে অপেক্ষায় আছে আজাদ কালামের খন্ড নাটক ‘ছায়াকাব্য’।

‘ফরম বাংলাদেশ’ প্রসঙ্গে-

চলতি বছরের ১০ অক্টোবার সরকারি অনুদানের ‘ফরম বাংলাদেশ’ নামের ছবি দিয়ে প্রথমবার বড়পর্দার জন্য কাজ করলাম। ছবিটি পরিচালনা করছেন শাহনেওয়াজ কাকলী। মহান মুক্তিযুদ্ধের গল্প নিয়ে ছবিটি নির্মিত হচ্ছে। গল্প নির্ভর ব্যতিক্রমী একটি ছবি। প্রথম ছবিতেই ভালো একটি গল্পে কাজ করতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবতী মনে হচ্ছে। চলচ্চিত্রে অনেক ধরনের গেম থাকে। তবে আমাকে যখন প্রস্তাব দেওয়া হয় তখন কোন কিছু না ভেবেই কাজটি করার জন্য রাজি হই। প্রায় একযুগ ধরে নাটকে অভিনয় করছি। অনেক প্রস্তাবই পেয়েছি, তবে কাকলী আপার এই ছবির গল্প অসাধারণ। হাতে সময়ও ছিল। সব মিলিয়ে কাজটি করা। তবে চলচ্চিত্রে নিয়মিত হবার ইচ্ছে নেই। সাহিত্যি নির্ভর গল্পে কাজ করার আগ্রহ আছে। বিশেষ করে রবীন্দ্রনাথের যে কোন গল্প পেলে কাজ করবো। ভালো গল্প ও চরিত্র পেলে মাঝে মাঝে চলচ্চিত্রে দেখা যাবে।

শুটিংয়ে যাওয়ার আগে নিজের চরিত্রর জন্য কতটুকু সময় পান?

যখন পুরোদমে শুটিংয়ের ব্যস্ততা থাকে তখন সময় পাওয়া যায় না। তবে যতটুকু সময় পাই সর্বোচ্চ চেষ্টা করি নিজেকে গল্পের সাথে মানিয়ে নিতে। চরিত্রে প্রবেশ করা বিশাল ব্যাপার। আমার জায়গা থেকে বরাবরই চেষ্টা থাকে।

অভিযোগ টিভি পর্দার ‘শালীন’ শিল্পীরা ওয়েব সিরিজে ‘অশালীন’। কি বলবেন?

নির্মাণ একটি স্বাধীন জায়গা। আপনি কি নির্মাণ করছেন সেটি আপনার স্বাধীনতা। আর আমি যেটা দেখছি সেটা আমার স্বাধীনতা। কেউর যদি মনে হয় এটি আপত্তিজনক সংযমের বাইরে যাচ্ছে তাহল সেটি সে না দেখলেই পারে।

এতে করে দর্শক হারাচ্ছে না?

যখনই ইন্ডাস্ট্রি টালিউড, হলিউড, বলিউডের সাথে মাপকাঠি করি তখন আমাদের বনর্না দিয়ে সেই কাতারে নিয়ে যাই। ঐ সব দেশে এটা হচ্ছে, ওটা হচ্ছে বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে। রেফারেন্স দেওয়ার সময় কিংবা দেখার সময় ঐ সব দেশের কথা বলি। সেই কাজগুলো নিয়েই প্রশংসা করছি। কিন্তু ঐ কাজগুলো যখন আমাদের দেশে করা হয় তখনই আমরা বাজে ভাবে সমালোচনা করি। আমার কাছে মনে হয় গল্পের প্রয়োজনে যে কোন কিছুই দেখানো যেতে পারে। এটি নিয়ে সমালোচনা করার কিছু নেই। যারা সমালোচনা করছেন তাদের দিলেও তারা কাজটি আগ্রহ নিয়ে করবে। অশ্লীল দৃশ্য বা সংলাপ দিয়ে ইন্ডাস্ট্রি ধ্বংস হচ্ছে না। ইন্ডাস্ট্রি ধ্বংসের জন্য হাজার হাজার কারণ রয়েছে। সাধারণ একটি দৃশ্য নিয়ে সমালোচনা করা অযথা সময় নষ্ট করা। আলোচনা সমালোচনা করার অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আছে। কাপড় খোলা নিয়ে সমালোচনা করার যুক্তিই দেখছি না। যে দৃশ্য নিয়ে কথা হচ্ছে সে রকম ছবি ফেসবুকে গেলে প্রতিনিয়তই দেখতে পাই। এ রকম ছবি এখন ডাল ভাঁত। ইনস্টাগ্রাম কিংবা টিকটকে এর চেয়েও ‘অশালীন’ ছবি দেখতে পাই। সেগুলো আগে বন্ধ করে ওয়েব সিরিজ নিয়ে কথা বলা উচিৎ। চলচ্চিত্রে এডাল্ট কনটেন্ট সারা জীবনই ছিল। ওয়েব সিরিজে থাকলে দোষ কি?

Leave a Reply