জমজমাট প্রতিবেদক: স্লো পয়জন হিসেবে সিগারেট সারা বিশ্বব্যাপী পরিচিত। ধূমপানে একদিকে যেমন নিজের ক্ষতি হয়, ঠিক তেমনি পরোক্ষভাবে ক্ষতি হয় আশেপাশের লোকজনের। বলা বাহুল্য প্রতিটি নেশার সূত্রপাত হয় সিগারেটকে কেন্দ্র করেই। আর তা থেকেই একটি সচেতনতামূলক ডকুমেন্টারি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন তরুণ নির্মাতা আরমান পাশা। অনেকটা নিজের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকেই স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রর চিত্রনাট্য রচনা করেন তিনি।

স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনেতা ফখরুল বাশার মাসুম, সাবেরী আলম, মোতাহের, জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি, সাজ্জাদ সাজু, মাহফুজ মুন্না, সঞ্জীব আহামদ, নাসিফ শুভ এবং সোহাগ হোসেন শাহীন।

এ প্রসঙ্গে আরমান পাশা বলেন, ধূমপান আমাদের দেশে আইন থাকলেও কার্যত তা প্রয়োগ করা হয় না। বরং প্রকাশ্যেই সিগারেট কেনা-বেচা এখন মর্ডানিজম হয়ে দাঁড়িয়েছে। একদিকে যেমন অর্থের অপচয়, অন্যদিকে স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণও হয়ে দাঁড়িয়েছে ধূমপান। ডকুমেন্টারি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটির প্রধান সহকারি পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন সোহাগ হোসেন শাহীন। আর চিত্রগ্রহণে ছিলেন কাওসার রাজীব।

মূলত একটি মধ্যবিত্ত পরিবারে ধূমপানকে কেন্দ্র করে এগুতে থাকে ‘সিগারেট’র গল্প। এই গল্পে আমাদের চরিত্রের দৈন্যতা তীব্রভাবে প্রকাশ পায়। যেখানে দ্বৈতনীতি নগ্নভাবে ফুটে উঠেছে। একদিন বাবার সামনে ধূমপানরত অবস্থায় ধরা পড়ে বাড়ির ছোট ছেলে নাবিল। তারপর নাবিলের বাবা বাসায় ফিরে নিজের স্ত্রীর সাথে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন। এভাবেই চলতে থাকে ‘সিগারেট’র গল্প।

Previous articleনিয়ন্ত্রণের বাইরে টিকটক ও লাইকি, সস্তা জনপ্রিয়তায় মরিয়া তরুণ প্রজন্ম
Next articleছন্দা’র ‘সেকান্দার আলীর চেক’

Leave a Reply