অকাল প্রয়াত জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী খালিদ হাসান মিলুর বড় ছেলে প্রতীক হাসান। বাবার মতোই সুরেলা মিষ্টি গায়কী তার। এরইমধ্যে বেশ কিছু গান দিয়ে তৈরি করে নিয়েছেন গ্রহণযোগ্যতা। অডিও গানের পাশাপাশি প্রতীক গান করেছেন চলচ্চিত্র ও নাটকে। সমসাময়িক কাজ নিয়ে কথা বলেন জমজমাট প্রতিবেদকের সাথে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- রুহুল আমিন ভূঁইয়া

* নতুন গান প্রসঙ্গে-

করোনার কারণে সবাই ঘরবন্দি। ঘরে বসে কিছু কাজ করছি। বঙ্গবন্ধুর শতবার্ষিকীর দুটি গান করেছি। বঙ্গ বিডির একটি গান করলাম। সচেতনামূলক কাজও করছি। ঈদের দুটি নাটকের গান করেছি আদিবাসী মিজান পরিচালিত সাত পর্বের ধারাবাহিক মেষরাশি ও একক নাটক নো চিন্তা ডু ফুর্তি। শোয়েব চৌধুরীর কথা ও সুরে নাটকের টাইটেল গানে কন্ঠ দিয়েছি। চলতি বছর অনেকগুলো কাজ করার পরিকল্পনা ছিল কিন্তু করোনার কারণে সেগুলো বন্ধ রয়েছে। করতে পারবো কিনা তাও জানি না। দেশের অবস্থা স্বাভাবিক হলে ডিসেম্বরে কাজ শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে।

* ভার্চুয়ালি কাজের অভিজ্ঞতা কেমন?

এক দিকে ভালো অন্য দিক চিন্তা করলে ভালো না। যারা বাহিরে বসে কাজে অভ্যস্ত তারা তো ঘরে বসে কাজ করে স্বাছন্দ্যবোধ করবে না। আমাদের কাজের যে ধরন ঘরে বসে কাজ করলে অলসতা কাজ করে। সবাই এক সাথে বসে কাজ করলে কাজের প্রতি যে ডেডিকেশন আসে সেটি একা বসে করলে তা হয় না। ভার্চুয়ালি কাজ করা মোটেও আনন্দায়ক হবে না কারণ বাংলাদেশের নেটওর্য়াকের অবস্থা খুবই দুর্বল। যে কোন কাজ করতে গেলে নেটওর্য়াকের কারণে কাজটি অনেক লেন্দি হয়ে যায়। ত্রিশ মিনিটের কাজ দুই ঘন্টা লেগে যায়। কাজটি পাঠানোর পর কারেকশন আসলে আবার সেইম সময় দরকার। এ ক্ষেত্রে বলবো ভার্চুয়াল কাজে বাজে অভিজ্ঞতা।

* ঘরবন্দি মানুষের জন্য বিনোদন দুনিয়ার মানুষের এখন দায়িত্ব অনেক। আপনার কী মত?

এখন আমরা সবাই যে সময়টা পার করছি এ সময়ে সবার মন ডিপ্রেশন কাজ করছে না। সবাই এক ধরনের ঝামেলার মধ্যে দিয়ে সময় পার করছে। একটা ভালো কাজের জন্য মন ভালো থাকা খুবই জরুরি। এখন কেউই ভালো নেই। এই সময়টা গান অনেক বড় প্রাপ্তি। বিনোদনের লোকজনের সবচেয়ে বড় দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের মন ভালো রাখার। সাধারণ মানুষের যখন মন খারাপের দিন শুরু হয় তখন শিল্পীদেরও মন খারাপ হয়। শিল্পীরা মানুষের মন ভালো করে আবার খারাপও করে। নাচায় হাসায় আবার কাঁদায়। করোনার কারণে আমাদের সকল কার্যক্রম বন্ধ। সে ক্ষেত্রে আমাদের অন্যদেরকে ও মটিভেট করা কষ্টের। এ জায়গা থেকে আমাদের যুদ্ধ করতে হচ্ছে। বিনোদন কর্মী হিসেবে যেটুকু দায়িত্ব তা পালন করছি।

* মহামারির এই অবস্থায় গান কীভাবে মানুষের মনোজগতে শক্তি দিতে পারে, এবং এই সময়টায় যারা হতাশ হচ্ছেন, তাদের জন্য আপনি কী বলবেন?

হতাশ হবার কিছু নেই। অন্ধকার শেষে আধার আসবেই। শুধু সেই আলো আসার অপেক্ষায়। মেঘের পরে রৌদ্র আসবে। মানুষের জীবনে ঝড় আসবে যাবে তবে সেই ঝড় কাটিয়ে উঠাটাই বড় প্রাপ্তি। ঝড় কাটিয়ে উঠার মনোবল রাখতে হবে। ধৈর্যশীল হতে হবে।

* করোনার কারণে পৃথিবীর অনেক কিছুই একটা সংকটের মধ্যে পড়েছে। সংগীতাঙ্গনও এই সংকটময় সময় পার করছে। এই অঙ্গনের ভবিষ্যৎ কী মনে করছেন?

এখন সবারই ভবিষ্যত অনিশ্চিত। কবে নাগাত এর সমাধান হবে কেউ বলতে পারে না। পূর্বে যে রকম কাজ করেছি সে ধরনটি পরিবর্তন হয়ে যাবে। আর ভালো লাগা খারাপ লাগা দুটিই আছে। প্রিয় মানুষদের সাথে অনেক দিন দেখা হবে না তাদের খুব মিস করবো।

* শিল্পীদের স্টেজ শো আগামী দু-তিন বছর বন্ধ। শিল্পীদের আয়ের বড় এই জায়গা নিয়ে একটা শঙ্কা তৈরি হয়েছে। যারা সংগীতকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন, কীভাবে মনোবল শক্ত রাখার কথা বলবেন?

নতুনদের জন্য এটি বড় ধরনের একটা ধাক্কা। পুরাতনদের জন্যও ধাক্কা। তবে নতুনরা খুব ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে যারা এই পেশার উপরই নির্ভরশীল। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে সেই চলার পথটি পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। এই ধাক্কা পুষিয়ে নেওয়া অনেকের জন্য কষ্ট হয়ে যাবে। নবীন-প্রবীণ সবার জন্যই কষ্ট হবে। শিল্পীরা কখনও একবারে বিপদে না পড়লে মুখ খুলে না। একজন শিল্পী হয়ে অন্য শিল্পীর সেটা দেখাও কাম্য নয়। শিল্পীদের নিয়ে একটা দুনর্মও আছে যে শিল্পীদের শেষটা ভালো হয় না। শিল্পীদের শেষটা কেন ভালো হয় না সেটি যদি কেউ খুজে তাহলে বুঝবে শিল্পীদের শেষ বয়সে কেন হাত পাততে হয়। আমাদের কাজের পারিশ্রমিক যদি দশ ভাগের এক ভাগও ঠিকমতো পেতাম তাহলে ‘দুস্থ’ শিল্পী কথাটি শোনা লাগত না।

Previous articleতিশা-ফারহানের ‘লজ্জা’
Next articleপ্রয়োজন অনুযায়ী বাজেট না দেওয়ায় কাজের মান কমে যাচ্ছে: শতাব্দী ওয়াদুদ

Leave a Reply