রঞ্জু সরকার: নন্দিত অভিনেতা শতাব্দী ওয়াদুদ। করোনার কারণে এবারের ঈদে হাতে গোনা কয়েকটি কাজ করেছেন। তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য বাবারা সব পারে, ঘুন মিয়ার মেঘ। করোনার কারণে পরিবার থেকে অনুমতি না পাওয়ায় কম কাজ করেছেন শতাব্দী ওয়াদুদ। যে কাজগুলো করেছেন সেগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে হয়েছে বলেই করেছেন। এরমধ্যে বিটিভির একটা সিরিয়ালে কাজ করেছেন শীঘ্রই প্রচার শুরু হবে। এছাড়াও পনেরো আগষ্টের দুটি কাজ করেছেন। ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের প্রযোজনায় গোলাম সোহরাব দোদুল পরিচালিত রানার। অন্যটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। রানার গল্পে প্রসঙ্গে বলেন, ১৯৭৭ সালের পনেরো আগষ্টে সহ পরিবারে হত্যার গল্প দেখা যাবে। রানার মুক্তিযোদ্ধা চিঠি বিলি করে। এ কাজটি করে সে বেশ আনন্দ পায়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ছড়িয়ে বেড়ায় রানার ভূমিকায়। গ্রামে তার কিছু জমি ছিল সেটি রাজাকাররা দখল করতে চায় তখন রাজাকারের সাথে মতবিরোধ তৈরি হয়। এক পর্যায়ে রানারের ঘর বাড়ি পুরিয়ে দেয় রাজাকাররা। এবং তাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করলে সে পালিয়ে যায়। এ ভাবেই গল্পটি এগিয়ে যাবে। চমৎকার একটি গল্প বলার চেষ্টা করা হয়েছে। -বললেন শতাব্দী ওয়াদুদ।

মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে পাল্টে গেছে বিনোদন দুনিয়ার হিসেব-নিকেষ। যেখানে ঈদ নাটক ঘিরে চাঁত রাত পর্যন্ত শুটিং চলে সেখানে সব কিছু পাল্টে দিয়েছে অচেনা করোনা ভাইরাস। করোনার কারণে শুটিংয়েও এসেছে পরিবর্তন। নন্দিত এ অভিনেতার কাছে জানতে চাই- করোনার আগের শুটিং আর করোনাকালে শুটিংয়ের পার্থক্য কেমন? বলেন, শুটিংয়ে সামাজিক দূরত্ব মানা সম্ভব না। তারপরও যতদূর সম্ভব ছিল লোকজন কমিয়ে সকল প্রকারের নিয়ম মেনে শুটিং করেছি। আগে ৩০ জনের ইউনিট থাকতো বর্তমানে তা অর্ধেকেরও বেশি কমে গেছে। সারা পৃথিবী জুড়েই ক্রান্তিকাল। কেউ কাজ পাচ্ছে আবার অনেকেই কাজ পাচ্ছে না। শুটিংয়ের অনুমতি পাবার পর যাদের কাজ পাবার কথা ছিল তারা কাজ পায়নি। অনেকেই গ্রামে চলে যাচ্ছেন। তাদের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তা হচ্ছে। একজন প্রডাকশন বয় কিংবা লাইটের ছেলে পড়ালেখা যানে না কিন্তু ভালোবেসে মিডিয়ায় কাজ করতে এসেছে। তারা চাইলে অন্য পেশায় ক্যারিয়ার গড়তে পারতো কিন্তু সেটা করেনি। ভালোবেসে মিডিয়াই বেছে নিয়েছে। ইন্ডাস্ট্রি কি তাকে সেই ফিডব্যাক দিতে পেরেছে? পারেনি। এই যে অনেকেই আপন নিবাসে ফিরে যাচ্ছে তাদের জন্য কি আমরা কিছু করতে পারি না। ব্যক্তিগত ভাবে সহযোগিতা করে সমাধান সম্ভব না। সমিষ্টিগত ভাবে সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে। ইন্ডাস্ট্রির সকল সংগঠন মিলি সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে। তাহলে তাদের মানবেতর জীবন-যাপন করতে হবে না।

আগে থেকেই বাজেট স্বল্পতার অভিযোগ রয়েছে। করোনার কারণে এখন শুটিংয়ে লোক সংখ্যা কমানো হয়েছে। লোক সংখ্যা কমার কারণে খরচও কমে গেছে। করোনা চলে গেলে বাজেটে এই প্রভাবটি পড়বে বলে মনে করেন? অবশ্যই প্রভাব পড়বে। যে জিনিসের একবার দাম কমে যায় সহজে সেটির দাম বাড়ে না। নাটকের ক্ষেত্রেও তা হচ্ছে। সারা বিশ্বে সংস্কৃতির প্রতি ব্যাপাক পরিমানে টাকা লগ্নি করা হয় কিন্তু আমাদের দেশে সেটি খুবই সীমিত। সে ক্ষেত্রে নাটকের বাজেট যেহেতু একবার কমেছে সেটি বাড়ার সুযোগ খুবই কম। বাজেটের পাশাপাশি রয়েছে নানান অভিযোগ। যোগ করে তিনি বলেন, একজন নির্মাতা চাইলেও তার মতো করে শিল্পী নির্বাচন করতে পারছে না। চ্যানেল বলে দেয় কাদের নিতে হবে। গল্পের প্রয়োজনে লগ্নি করা হয় না। প্রয়োজন অনুযায়ী বাজেট না দেওয়ায় ক্রমশ ভালো কাজের মান কমে যাচ্ছে। গল্পকার যখন একটা গল্প লিখে তখন সে একটা ভাবনার জায়গা থেকে লিখে কিন্তু সেই ভাবনাটা বাজেটের কারণে বাস্তবায়ন করতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, এখন অতিরিক্ত কসলানোর যুগ। যত বেশি কসলাবেন তত বেশি ভালো অভিনয় করবে অনেকেই মনে করেন। ভাড়ামি করে অভিনেতা হওয়া যায় না। একটা নাটক একজন লোকের ভাবনা নয় অনেকগুলো লোকের ভাবনা মিলে একটা নাটক নির্মাণ হয়। এতগুলো মানুষের মেধার দাম তিনশ টাকা হলেও দেওয়া হচ্ছে একশ টাকা। এতগুলো মানুষের মেধার দাম হবে মাত্র একশ টাকা? এই বাজেটের কারণেই ক্রমশ মানহীন কাজ হচ্ছে।

উত্তরণের উপায়? এজেন্সি, প্রডিউসার, টেলিভিশন চ্যানেল সবাই মিলে বসে একটা পলিসি মেইনটেন করতে হবে। এক সময় কিন্তু ভারত আমাদের নাটক দেখেছে এখন তাদের নাটক আমরা দেখছি। আমাদের এখানে নাটকের বড় একটা মার্কেট আছে কিন্তু সেটি আমরা হ্যান্ডেল করতে পারছি না। সঠিক পলিসি নেই। পলিসি মানতে হবে। দেখা গেছে ঘুরে ফিরে একই শিল্পীর নাটক প্রচার হচ্ছে সব চ্যানেলে। যার ফলে দর্শক ভাগাভাগি হয়ে যাচ্ছে। এগুলো যদি পলিসির মধ্যে আসে তাহলে নাটকের সুদিন ফিরে আসবে। বর্তমানে অনেক তরুণ নির্মাতা আছেন যারা ভাবনা প্রয়োগের দিক থেকে অনেক এগিয়ে। কিন্তু তারা বাজেটের কারণে ভালো কিছু দেখাতে পারে না। অভিযোগ রয়েছে ক্রমশ ঈদ নাটকের আকর্ষন হারাচ্ছে। আপনার অভিমত? ঈদের সময় নাটক নির্মাণের পরিমান বেড়ে যায়। এ সময় বাজেটও বেশি থাকে। যার ফলে সবাই হুমড়ি খেয়ে পরে। তখন সবাই নাটক করে কিন্তু করাটা খারাপ নয় তবে সেটির মান বজায় রাখতে হবে। সংখ্যা না বাড়িয়ে মানে নজর দিতে হবে। -বললেন শতাব্দী ওয়াদুদ।

Previous articleশিল্পীরা ন্যায্য পারিশ্রমিক পেলে ‘দুস্থ শিল্পী’ কথাটি শোনা লাগত না: প্রতীক হাসান
Next article‘মুখোমুখি একজন শিল্পী ও বিচারক’

Leave a Reply