জমজমাট প্রতিবেদক: মাত্র ১৫ সেকেন্ডেই মনের ভাব প্রকাশ। এ কারণে ২০১৭ সালেই বাংলাদেশে তরুণদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে টিকটক অ্যাপ। সেখানে কেউ জনপ্রিয় হয়েছেন নিজের রূপ দিয়ে, কেউ হাস্য-রসাত্মক ও ব্যাঙ্গাত্মক ভিডিও দিয়ে। এরপর টিকটকের সাথে যতদিনে লাইকি প্রতিযোগিতায় এসেছে ততদিনে পাল্টে গেছে দৃশ্যপট। অদ্ভুদ অঙ্গভঙ্গি, উদ্ভট রঙের চুল আর শালিনতাহীন ভিডিওতে ভরপুর এই দুই সোশ্যাল মিডিয়া। এমনকি দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনাও আছে বাংলাদেশে। টিকটক ও লাইকি এরই মধ্যে সামাজিক অস্থিতিশীলতা তৈরিতে ভূমিকা রাখতে শুরু করেছে বলছেন, তথ্য-প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা।

তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ড. মাহফুজুল ইসলাম বলেন, টিকটিক ও লাইকি সমাজে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির জন্য যতেষ্ট ভূমিকা রাখতে পারে বলে আমি বিশ্বাস করি। মনো-বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভার্চুয়াল জগতে নিজের পরিচয় তৈরি ও জনপ্রিয়তার আশায় বাস্তব জীবনে সম্ভাবনা থেকেও ছিটকে পড়ছে তরুণ প্রজন্ম।

মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মেখলা সরকার বলেন, সম্ভাবনার দিকে মনোযোগ না দিয়ে টিকটক লাইকি নিয়েই মেতে উঠেছে বর্তমান প্রজন্ম। তারা মনে করছেন এ সব তাদের জীবনের অনেক কিছু। এই সমস্যা সমাধানে অ্যাপসগুলোয় নজরদারি বাড়ানো পাশাপাশি অভিভাবকদেরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিষেজ্ঞরা। তারা বলছেন মাত্র ১৫ সেকেন্ডের ভিডিওর পেছনে হাজার হাজার লাইক ও লক্ষ লক্ষ মরীচিকার পেছনে তরুণ সমাজ ছুটছেন। মরীচিকা বাস্তব জীবনের সম্ভাবনাকে দিন দিন ক্ষীন থেকে ক্ষীন করে দিচ্ছে। যার দায়িত্ব নিতে হবে অভিভাবক থেকে শুরু করে রাষ্ট্রকেও।

Previous articleলাইফ সাপোর্টে আলাউদ্দিন আলী
Next articleসচেতনতামূলক স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘সিগারেট’

Leave a Reply