জমজমাট প্রতিবেদন

কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকার সুরক্ষিত বিশাল চত্বরের ১৮ ফুট উঁচু দেয়াল টপকে, শতশত কারারক্ষীর চোখ ফাঁকি দিয়ে একজন যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত বন্দী পালিয়ে গেছেন। কারা সূত্র বলছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লকআপের পর থেকে খোঁজাখুঁজি করেও তাঁকে কারাগারের ভেতরে কোথাও পাওয়া যায়নি। তাঁকে খুঁজে না পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কাশিমপুর কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক জাহানারা বেগম। তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় কারারক্ষীরা জড়িত থাকতে পারে বা তাদের অবহেলার কারণেও বন্দী পালিয়ে যেতে পারে। আমরা তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।’

কয়েদি আবু বকর সিদ্দিক কাশিমপুর-২ কারাগার থেকে পালিয়ে গেছেন।

আবু বকর সিদ্দিক ২০১১ সালে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে এসেছিলেন ফাঁসির আসামি হিসেবে। ২০১২ সালের ২৭ জুলাই তাঁর সাজা সংশোধন করে তাঁকে যাবজ্জীবন দেওয়া হয়। কাশিমপুর কারাগার সূত্রে জানা গেছে, আবু বকর সিদ্দিকের বাড়ি সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার আবাদ চণ্ডীপুরে।

জাহানারা বেগম এর দাবী, আবু বকর সিদ্দিক জেলের ১৮ ফুট দেয়াল বেয়ে চলে গেছেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে হাবিলদার টিকু মোল্লা এই প্রতিবেদককে জানান, তিনি ২০১৮ সাল থেকে দীর্ঘ সময় কাশিমপুর কারাগারে ডিউটি করেছেন। তার মতে, সেখানে মোট চারটি কারাগার নিয়ে বিশাল এক কমপ্লেক্স, যেখানে কড়া নিরাপত্তা গলিয়ে কারো পক্ষেই পালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়।

কিন্তু টিকু মোল্লার এই দাবী উড়িয়ে দিয়ে ওপর আরেক কারারক্ষী বলেন, কাশিমপুর কারাগার এলাকাটা ১৮ দেয়াল ঘেরা হলেও, সেখানে নিয়মিতভাবে নানা ধরনের অবৈধ কাজকর্ম চলছে। কারারক্ষীদের বেশিরভাগই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। এসব অবৈধ কাজের পেছনে জেল সুপার, জেলার এমনকি ডেপুটি জেলারদেরও হাত আছে।

সূত্রটি বলে, কারা বিভাগ চরমভাবে দুর্নীতিগ্রস্থ। ২০১৮ সালে চট্টগ্রামের জেলার সোহেল রানাকে কোটি টাকাসহ গ্রেফতার করা হয়। এরপর একাধিক ডিআইজি গ্রেফতার হন দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগে। এমন একটি দুর্নীতিগ্রস্থ বিভাগ থেকে একজন বন্দীর পক্ষে মোটা টাকার বিনিময়ে পালিয়ে যাওয়া অসম্ভব নয়।

Previous articleমৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন শানাই
Next articleকরোনায় আক্রান্ত সোহানুর রহমান সোহান

Leave a Reply