করোনা মহামারীর এ সময়ে আমাদের মাঝে ঈদ এসেছে ভিন্ন ভাবে। অনেক কষ্ট না পাওয়ার বেদনার মাঝেও থেমে নেই কারো জীবন। জীবনের প্রয়োজনে আছে উৎসবও।জানতে চেয়েছিলাম কেমন কেটেছে শোবিজ তারকাদের করোনাকালীন ঈদ। লিখেছেন- রুহুল আমিন ভূঁইয়া

ফৌরদৌস: জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ফৌরদৌস পরিবার নিয়ে ঢাকাতেই বেশ আনন্দে ঈদ পালন করেছেন। সন্তানদের সাথে এক সাথে নামাজ পরেছেন এবং পরিবার নিয়ে ঘুরতে বের হয়েছেন। করোনাকালে ঈদ কেমন কাটতেছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, খুব ভালো কাটতেছে। অনন্য সময়ে ঈদ আর করোনাকালে ঈদ অনেক পার্থক্য। তবে এখন আলাদা করে ভাবছি না। বেশ ভালোই উপভোগ করতেছি। তবে এখনই শূটিং নিয়ে ভাবছেন না তিনি। আরও কিছু দিন দেখে শূটিংয়ে যাবার পরিকল্পনা রয়েছে। তবে তিনি মনে করেন সিনেমা হল খোলাটা জরুরি। হল না খুললে সিনেমা করে লাভ নেই। সিনেমা না থাকলেও কাদা ছোড়াছুড়িতে ব্যস্ত এফডিসি। এ প্রসঙ্গ টেনে এ নায়ক বলেন, এখন কেউর হাতেই কাজ নেই তাই সবাই এ সব নিয়ে ব্যস্ত। তবে এই কাদা ছোড়াছুড়ির ব্যস্ততা যেনও কেউর ক্ষতির কারণ না হয়। সে ব্যাপারে সবার মাথায় রাখতে হবে। আমরা শিল্পীরা সবার হৃদয়ে আছি তাই আমরা এমন কিছু করবো না যাতে করে সামাগ্রিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন হতে হয়। সবার কাছে আমার অনুরোধ থাকবে। যে যাই করি না কেন আর্দশের জায়গা বজায় রাখতে হবে। মূলমন্ত্র যেন সঠিক থাকে। উপরে থুথু দিলে আমার গায়েই পড়বে। নিজেদের মধ্যে অনেক কিছুই হবে চেষ্টা করতে হবে ঘরোয়া ভাবে তা সমাধান করার। সেটি যদি রাষ্ট্রীয় ভাবে করি তাহলে আমাদেরই ভাবমূতি নষ্ট হবে। আমি চাই সচেতন ভাবে সবাই কাজ করি। আঠারো দল যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেটি যদি সঠিক হয় তাহলে সবাই যেন এটি মেনে নেই। আর যদি তাদের সিদ্ধান্ত ভুল হয় সেটিও যেন ধরিয়ে বুঝিয়ে বলি। এ ভাবেই নিজেরাই নিজেদের সমস্যার সমাধান করতে হবে। এবারের ঈদ মানুষ খুব পজিটিব ভাবে করেছে। দেশের প্রতি সবারই দেশপ্রেম রয়েছে সেটি বোঝা গেছে। গত ঈদের মতো এবার আর পাগলের মতো গ্রামে ছুটে যায়নি। সবাই সচেতনতা অবলম্বন করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনা সবাই মেনেছে। ভয়াবহ সময়ও প্রধানমন্ত্রী আমাদের পাশে ছিলেন তার সুস্থতা কামনা করি।

পপি: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্ত চিত্রনায়িকা পপি গ্রামেই ঈদ পালন করেছেন। করোনার শুরুর দিকে তিনি গ্রামে চলে যান। তাই গত ঈদের মতো এবারের ঈদও গ্রামে পালন করেছেন। দীর্ঘ ২৫ বছর পর গ্রামে রোজার ঈদ ও কোরবানির ঈদ পালন করেছেন। তিনি বলেন, দুই যুগ পর গ্রামে ঈদ পালন করেছি। সবাই আমায় পেয়ে খু্ব খুশি। বেশ আনন্দে কেটেছে ঈদ। করোনার প্রাদুর্ভাব কমলে ঢাকা আসবো। মাঝে পপি অসুস্থ ছিলেন তবে বর্তমানে সুস্থ আছেন। তিনি মনে করেন করোনা খুব শীঘ্রই বিদায় নিবে। এই অন্ধকার বেশি দিন থাকবে না অচিরে আলো আসবে।

পরীমনি: বেশ কয়েক বছর ধরে প্রাণের এফডিসিতে প্রিয় মানুষদের জন্য কোরবানি দেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের আলোচিত নায়িকা পরীমনি। বরাবরের মতো এবারও এফডিসিতে পাঁচটি গরু কোরবানি দিয়েছেন তার পরিবারের মানুষের জন্য। কোন সংগঠনের মাধ্যমে নয় ব্যক্তি উদ্যোগে দিনমজুরে কাজ করে তাদের জন্য এ কোরবানি। যতদিন বেঁচে থাকবেন তাদের জন্য কোরবানি দিবেন তিনি। পরীমনি বলেন, বেশ কয়েক বছর ধরে সামর্থ্য অনুযায়ী চেষ্টা করছি পরিবারের জন্য কোরবানি দেওয়ার। যতদিন আছি এ ধারাবাহিকতা অবহ্যাত থাকবে। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এবারের ঈদ বেশ ভালোই কেঁটেছে।

সাইমন সাদিক: চিত্রনায়ক সাইমন সাদিক গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জ এবারের ঈদ পালন করেছেন। তিনি জানান, গ্রামের বাড়ি বন্ধুদের নিয়ে খুবই আনন্দে ঈদ কাঁটতেছে। জোৎসনার আলো আঁধারি রাতে বন্ধুরা মিলে দূর দূরন্তে মোটরসাইকেল করে ঘুরে বেড়িয়েছেন। করোনাকালীন ঈদ বেশ উপভোগ করছেন।

Previous articleআধুনিক মানেই কি সেক্স? প্রশ্ন শামীম জামানের
Next articleক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ অপপ্রচার চালাচ্ছে দুর্বৃত্ত চক্র

Leave a Reply