রঞ্জু সরকার : দীর্ঘ তিন মাস ঘরবন্দি থাকার পর ঈদ নাটকের মাধ্যমে কাজে ফিরেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা ও নির্মাতা শামীম জামান। এবারের ঈদের জন্য বারোটি নাটক নির্মাণ করেছেন। কাজে ফেরা প্রসঙ্গে এ অভিনেতা বলেন, আমরা কাজের মানুষ কাজ ছাড়া থাকতে পারি না। তবুও করোনার কারণে সব কিছু বন্ধ করে ঘরে থাকতে হয়েছে। না চাইলেও মেনে নিতে হয়েছিল। করোনা থেকে আমরা অনেক কিছু শিক্ষা নিতে পারি। করোনা আামাদের মানবিক হতে শিখিয়েছে। এ শিক্ষাটা সবার ধরে রাখতে হবে। সবার অনিয়ম মাফিক জীবন-যাবনের পরিবর্তন এসেছে। ঘরে থেকে আমারও কিছু অভ্যাস পরিবর্তন হয়েছে। দোয়া করি করোনা যেন দ্রুত দূর হয়। এ রকম আর কিছু দিন থাকলে খুবই ভয়াবহ অবস্থা হবে। ঘরবন্দি থাকলেও নিজেকে কাজের মধ্যে রাখার চেষ্টা করেছি। কয়েকটি গল্প লিখেছি। বই পড়ে, নাটক-সিনেমা দেখে ঘরবন্দি তিনমাস কেটেছে।

শুরুতেই তার কাছে প্রশ্ন রাখি স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করতে বলা হলেও সত্যিই কি স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করা সম্ভব? না সম্ভব না। তবুও সবার জায়গা থেকে চেষ্টা করছি মানার। এটি মেনে কাজ করা অনেক কঠিন। কেউ ঠিকঠাক মেনে কাজ করতে পারবে না। প্রচলিত আছে টেলিভিশন নাটক বাজে সিন্ডিকেটে চলছে। করোনার পর এই সিন্ডিকেট ভাঙবে কি? বাজে সিন্ডিকেট সারা জীবনই ছিল। এরমধ্যে থেকে আমাদের কাজ করতে হবে। ভালো কাজ করার চেষ্টা করতে হবে। তবে পরিচালকদের উচিৎ সিন্ডিকেটদের সাথে কাজ না করা। লক ডাউনের পর এটি ভাঙলে কিছু আসে যায় না। থাকলেও কিছু আসে যায় না। এরা হচ্ছে মৌসুমী পাখির মতো। আসা যাওয়ারে মধ্যে থাকবে।

শামীম জামান অভিনেতা ও নির্মাতা। তিনি দুই পরিচয়ই সমান ভাবে পরিচিত। দুই পরিচয়ে দিতে স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। তবে তিনি যখন যে কাজটি করেন সমান গুরুত্ব দিয়ে করেন। নির্মাতা অনেক বড় একটি ব্যাপার তাকে অনেক কাজ করতে হয়। কখনো কোন কাজ ছোট করে দেখি না। আমার সব পরিচয়ে ভালো লাগে। লক ডাউনের আগের শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা আর সাধারণ ছুটি কাটিয়ে এখনকার অভিজ্ঞতা কেমন ছিল? আগের অভিজ্ঞতা থেকে এখন অনেক পরিবর্তন এসেছে। আগে স্বাধীন ভাবে কাজের সুযোগ ছিল। কিন্তু এখন সেই পরিবেশ নেই। অনেক পরিবর্তন এসেছে। পরিবর্তনগুলো মেনেই কাজ করতে হবে। না চাইলেও কিছু করার নেই। করোনার সংক্রমণ দূর হওয়া পর্যন্ত এটি মেনেই কাজ করতে হবে। এখনকার অভিজ্ঞতা খুবই বাজে। -বললেন শামীম জামান।

ওয়েব সিরিজে অশ্লীলতার অভিযোগ। অভিমত? টিভির ‘শালীন’ শিল্পীরা ‘অশালীন’ এটি খুবই আপত্তিজনক। আমাদের সমাজ ব্যবস্থা অনন্য দেশের সংস্কৃতি থেকে একেবারে আলাদা। এ ধরনের দৃশ্য ও সংলাপের সাথে বাংলাদেশের দর্শক ও সমাজ অভ্যস্ত নয়। ওয়েব সিরিজ মানেই সেক্স নয়। যারা এ ওয়েব সিরিজগুলোতে অভিনয় করেছেন তাদের ক্যারিয়ারের জন্য বেশ বেগ পেতে হবে। এটা তাদের জন্য মাইনাস পয়েন্ট। আধুনিকতা মানেই কি সেক্স? সাবলীল ভাবে অনেক কিছু দেখানো যায়। ওয়েব সিরিজে অনেক সুন্দর গল্প বলা যায়। এ ধরনের কনটেন্ট আমি ঘৃনা করি। আমাদের কনটেন্ট দর্শক দেখে না? সেগুলো তো কোটি কোটি ভিউ হচ্ছে। অশ্লীলতা করে কেন আলোচনায় আসতে হবে? ভালো কিছু করলে এমনিই আলোচনায় আসবে। যারা এ সব কনটেন্ট এ কাজ করেছে তারা সামনে আমাদের সাথে কাজ করতে পারবে কি-না প্রশ্ন থেকে যায়। অশ্লীলতা দিয়ে টিকা যায় না। এটার ফল তারা পাবে। এখন বুঝতে আছে না সময় হলে ঠিকই বুঝবে। পূর্বে কয়েক জন শিল্পীর নামের আগে অশ্লীলতার তকমা যুক্ত হয় তারা কিন্তু কাজ করতে পারেনি। অনেক কান্নাকাটি করার পর আমরা মায়া করে কাজে নিয়েছি। এরাও সময় হলে বুঝবে। ওয়েব সিরিজের নামে অশ্লীলতা বন্ধ করতে হবে।

গবেষকেরা বলছেন, লকডাউনের পরও বছর দুয়েক সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। তাহলে রোমান্টিক শুটিং কীভাবে হবে? এখনও রোমান্টিক দৃশ্যর শুটিং হচ্ছে। করোনা এমন একটি বিষয় হাসি কাশির মধ্যে দিয়ে ছড়ায়। এরমধ্যে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করতে হবে। বসে থাকা তো সম্ভব না। প্রতিটি নির্মাতারই একটি স্বপ্ন থাকে চলচ্চিত্র নির্মাণের। আপনি কি ভাবছেন? সব কিছু ঠিক হলে হয়তোবা চলতি বছরও চলচ্চিত্রর ঘোষণা দিতে পারি। এখন করোনা মুক্ত বাংলাদেশের অপেক্ষা করছি।

Previous articleপ্রথমবার জুটি বাঁধলেন আলীনূর জয় ও লাক্স তারকা অর্ষা
Next articleকরোনাকালে শোবিজ তারকাদের ঈদ

Leave a Reply