সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

শুধু বাংলাদেশের নয়, বরং দু’বাংলার চলচ্চিত্র ‘শিল্প’ই এখন চরম সঙ্কটে। করোনা মহামারীর কারণে লন্ডভন্ড পৃথিবী। সিনেমা হলে আবার কবে দর্শকরা ফিরবেন এ নিয়ে সংশয়। যৌথ প্রযোজনার নামে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্পের বারোটা বাজিয়ে একজন ব্যাংক লুটেরার বিতর্কিত প্রতিষ্ঠান অবশেষে ধুলো কামড়াচ্ছে। সিনেমা হলগুলোতে ডিজিটাল করার নামে প্রজেক্টার ভাড়া দিয়ে ওই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এবং এক নায়িকা শুধু হলমালিকদের পকেটই কাটেনি, বরং অন্য প্রযোজকদের রক্ত শুষে গোটা সেক্টরকে ফোকলা করে দিয়েছে। সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর জাসদীয় জমানায় এফডিসির জন্যে কেনা হয় নাটক নির্মাণের ক্যামেরা, যেগুলো দিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ অসম্ভব। সোজা কথায়, দেশের চলচ্চিত্র ‘শিল্প’কে নিয়ে এক ধরনের নোংরা ফটকাবাজি চলেছে বছরের-পর-বছর। পরিণতিতে আজ ওই সেক্টরে কর্মরত হাজার-হাজার মানুষের সামনে প্রকট শঙ্কার কালো সময়।

পাঠকরা লক্ষ্য করছেন আমি চলচ্চিত্রকে শিল্প লিখতে শিল্প শব্দটা ইনভার্টেড কমায় বন্দী করছি। এর কারণ, সবাই এটিকে শিল্প বললেও সরকারীভাবে এধরনের স্বীকৃতি এখনও আসেনি, কবে আসবে কেউ জানেনা। আসলে এ নিয়ে কারো মাথা ব্যাথা আছে বলেও মনে হয়না। সবাই ব্যাস্ত নিজেকে নিয়ে। কেউকেউ নেতা সেজে অনুদানের ছবির জন্যে লাখলাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। কেউকেউ চলচ্চিত্র পরিচালক কিংবা নায়ক-নায়িকার তকমা ব্যবহার করে হাতিয়ে নিচ্ছে সরকারী প্লট কিংবা ব্যাংক ঋণ। এফডিসি হয়ে গেছে ধান্দাবাজদের আখড়া।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখছি কিছু অভিনেতা-অভিনেত্রী ঢাকঢোল পিটিয়ে এবার এফডিসিতে গরু জবাই দিলেন। এদের কারো-কারো পেছনে গডফাদারের ভূমিকায় ছিলেন কেউকেউ। বাহ্ চমৎকার! যুগযুগ ধরে এফডিসি ছিলো গুরুত্বপূর্ণ স্থান বা KPI, যা এরই মাঝে কেড়ে নিয়েছে নির্মাণাধীন বহুতল ভবন। সহজ কথায়, এফডিসির নিয়ন্ত্রণ এবার চলে গেলো অন্য পেশার লোকদের হাতে। এক সময় সেখান থেকে বিতাড়িত হবেন চলচ্চিত্রের লোকজন। সে দিনটা একদম কাছে। এসব নিয়ে চলচ্চিত্র জগতের নেতাদের মাথাব্যাথা নেই। ওনারা এরই মাঝে আখের গুছিয়ে নিচ্ছেন। প্রস্তুতি নিচ্ছেন চলচ্চিত্রের শেষকৃত্যের। একারণেই হয়তো ওই শেষকৃত্যের মহড়া হয়ে গেলো, পশু জবাইয়ের মাধ্যমে। রক্তাক্ত হলো এফডিসি।

চলচ্চিত্রের মতোই বাংলা নাটকেরও বেহাল দশা বেশ কিছুকাল থেকে। এর জন্যে দায়ী একটি বিতর্কিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান, যাদের পেছনে হাওয়া ভবনের লোকেরা টাকা খাটিয়েছে। ওই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকেই নায়িকা কিংবা অভিনেত্রীদের সাপ্লাই করতো শাহেদ করিম, এমন অভিযোগও পত্রিকায় দেখেছি। সবচেয়ে বড় কথা হলো, ওই বিতর্কিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার নিজের স্বার্থে নির্মাতা এবং শিল্পীদের যথেচ্ছ ব্যবহার করেছেন। বাংলাদেশে নাটকের বাজেট আজ তলানীতে পৌঁছানোর জন্যেও তিনিই দায়ী। শুনেছি বাংলাদেশের নাটক সেক্টরকে ধ্বংস করে তিনি কলকাতা থেকে ডাবিং করা নাটক এনে সেগুলো বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোয় সরবরাহের মতলব আটছিলেন। তার এই জঘন্য কাজে প্রত্যক্ষ সহযোগীর ভূমিকায় যারা ছিলেন তাদের অনেকেই মিডিয়ার চেনা মুখ।

জানি পাঠকরা এরই মাঝে এই লেখা পড়ার ধৈর্য হারিয়ে ফেলছেন। কারণ, কেউই মন্দ খবর শুনতে চায় না। কিন্তু আমি যা লিখেছি, এটাই বাস্তবতা। এটাকে মেনে নিয়ে বিদ্যমান ক্রান্তিকালে একটা প্রতিষ্ঠানই এগিয়ে এসেছে চলচ্চিত্র ও নাটকের সেক্টরে আবারও সম্ভাবনার আলো জ্বালতে। ওরা ঈদে গরু জবাই দিয়ে এফডিসি রক্তাক্ত করেনি। বরং ওরাই এবারের ঈদে সর্বোচ্চ সংখ্যক নাটক, ধাকারাবাহিক ও টেলিফিল্ম প্রযোজনা করেছে, আগামীতেও এটা অব্যাহত থাকবে। এই প্রতিষ্ঠানের মতোই অন্য প্রযোজকরাও যদি ভালোবাসার মন নিয়ে এগিয়ে আসেন, তাহলে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র এবং নাটক আবার জেগে উঠবে। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে চলচ্চিত্র মুক্তির টার্গেট নিলে বছরে ৫০-৬০ টা সিনেমা নির্মাণ হবেই।

আমাদের মনে রাখতে হবে, পৃথিবীতে আমরাই একমাত্র জাতি যারা মায়ের ভাষা বাংলার জন্যে বুকের রক্ত দিয়েছে। চলচ্চিত্র এবং নাটক আমাদের সংস্কৃতির অংশ – মায়ের ভাষার বাহক। এগুলোকে ধ্বংস করতে অশুভ চক্র অপচেষ্টা চালাচ্ছে। বাঙ্গালী বীরের জাতি। আমরা কি ওই অপশক্তির কাছে আত্মসমর্পণ করতে পারি? এটা কি আমাদের মানায়?

আসুন, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র ও নাটক সেক্টরের বিকাশে যার-যার অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টাটা এক্ষুনি শুরু করি। এফডিসি যেদিন পশুর রক্তের বদলে আল্পনার রঙ্গে রঞ্জিত হবে, সেদিন আমি আনন্দে আত্মহারা হয়ে বলবো – আমরা জিতে গেছি!

(সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক, লেখক, গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী কাগজ ব্লিটজ এর সম্পাদক)

Previous articleঈদ অ্যালবাম ‘আমি কি আমাকে চিনি?’
Next articleআজ মিলনের ‘মুনিরা মঞ্জিল’

Leave a Reply