রুহুল আমিন ভূঁইয়া:

করোনা মহামারিতে সারা বিশ্বেই এখন নতুন সিনেমা মুক্তি অনিশ্চিত। তাই বড় ধরণের লোকশানের মুখে প্রযোজক ও পরিচালকগণ। এমন বাস্তবতায় অনলাইনে সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। তবে বাংলাদেশে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে সিনেমা মুক্তিকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছেন অনেকেই। তাই বর্তমানে সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে যে ক্ষতি হচ্ছে তা পুঁষিয়ে বাংলা সিনেমা ঘুরে দাঁড়াবে কিনা তা বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গত ঈদুল ফিতুর ছিল প্রেক্ষাগৃহ শূণ্য। এবারও ঈদুল আযহায় মুক্তি পায়নি নতুন-পুরাতন কোন ছবিেই। দুই ঈদে মুক্তির তালিকা ছিল বেশ কয়েকটি সিনেমা। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে মাসুদ হাসান উজ্জ্বল পরিচালিত ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’, দেবাশীষ বিশ্বাস পরিচালিত ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ-২’, নাট্যনির্মাতা চয়নিকা চৌধুরীর প্রথম চলচ্চিত্র ‘বিশ্ব সুন্দরী’, শাহীন সুমন পরিচালিত শাকিব খান অভিনীত ‘বিদ্রোহী’ সহ বেশ কিছু বড় বাজেটের সিনেমা। কিন্তু বর্তমান করোনা সংকটে আটকে যায় এ সব সিনেমার মুক্তি। যার ফলে বড় ধরণের লোকশান গুনতে হচ্ছে দেশের প্রযোজক ও পরিচালকদের।

এ প্রসঙ্গে প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, ‘দীর্ঘ দিন ধরে সিনেমা হল বন্ধ। মুক্তি পাচ্ছে না নতুন সিনেমা। এতে সিনেমা শিল্পের বড় ধরণের ক্ষতি হচ্ছে। এ ক্ষতির পরিমাণ ৫০০ কোটি টাকার কাছাকাছি। ব্যক্তি প্রযোজক এ টাকা লগ্নি করেছে। এখানে কোন সরকারি ইনভেস্ট নেই।এ ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে সরকারি সহযোগিতা দরকার।’

পরিচালক সমিতির মহাসচিব বদিউল আলম খোকন বলেন, ‘আমরা খুবই খারাপ সময় পার করছি। তারমধ্যে করোনায় সবচেয়ে চলচ্চিত্রর মানুষের বেশি ক্ষতি হয়েছে। সরকারি সহযোগিতা ছাড়া এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠা সম্ভব না।’

বাস্তবতা বলছে আগামী এক দুই মাসেও মুক্তি অনিশ্চিত নতুন সিনেমা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনলাইনে সিনেমা মুক্তির রীতি চালু হলেও বাংলাদেশে এখনও তা সম্ভব হয়নি। নির্মাতারা বলছেন সম্ভাবনার পাশাপাশি ঝুঁকির কথাও মাথায় রাখতে হচ্ছে তাদের। পরিচালক মাসুদ হাসান উজ্জ্বল বলেন, ‘একটি সিনেমা তৈরি হয় অনেক বড় বাজেটে। সে ক্ষেত্রে অনলাইনে ছবি মুক্তি দিলে সেই টাকাটা কিভাবে উঠে আসবে সেটাও ভাবনার বিষয়।’ দেবাশীষ বিশ্বাস বলেন, ‘তারা যে প্ল্যাটফর্মে ছবি মুক্তি দিচ্ছে তাদের মতো আমাদের প্ল্যাটফর্মে তেমন শক্ত অবস্থান তৈরি হয়নি। আমাদের দেশে এটি বাস্তবায়ন হতে আরো সময় লাগবে।’

গত ১৮ই মার্চ থেকে বন্ধ দেশের সকল সিনেমা হল।সরকারি সিদ্ধান্ত না আসায় কবে খুলবে এসব প্রেক্ষাগৃহ তারও নেই ঠিক। অনেক হল মালিক এরইমধ্যে হল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল বলেন, ‘হল মালিক ও কর্মচারীর কথা চিন্তা করে সরকার হল গুলো খুলে দিবেন এবং দ্রুত হলগুলো সংস্কার করার পদক্ষেপ নিবেন।’ বিষন্ন এই সময় কেটে যাবে। আবারও সবাই সিনেমা উৎসবে মেতে উঠবে এমন প্রত্যাশা সিনেমা সংশ্লিষ্ট সবার।

Previous articleআজ মিলনের ‘মুনিরা মঞ্জিল’
Next articleঅভিনেতা মাসুম আজিজের বিরুদ্ধে ‘পাপাচারের’ অভিযোগ

Leave a Reply