জমজমাট প্রতিবেদন:

জাজ মাল্টিমিডিয়া- চলচ্চিত্রাঙ্গনে একটি বিতর্কিত নাম। ২০১১ সালে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয় ‘ভালোবাসার রঙ’ সিনেমার মধ্য দিয়ে। পরবর্তীতে এই প্রতিষ্ঠানটি অনেকগুলো সিনোমায় অর্থ লগ্নি করে এমনকি যৌথ প্রয়োজনার নামে দেশীয় চলচ্চিত্রের বাজার ছেড়ে দেয় ভারতীয় বাংলা সিনেমার হাতে । নানা সময়ে নানাভাবে সমালোচিত হয়েছে জাজ মাল্টিমিডিয়া ও এর কর্ণধার আব্দুল আজিজ। মূলধারার চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিচারকগন একাধিকবার আন্দোলন করেছে জাজ মার্টিমিডিয়ার বিপক্ষে। চলচ্চিত্র জগতের সাথে সম্পৃক্ত সবাইকে উপেক্ষা করে বিদেশী টেকনেশিয়ান ও বিদেশী শিল্পীদের নিয়ে সিনেমা বানানোর রীতি মূলত তারাই চালু করে। দীর্ঘদিন ধরে জাজ-মাল্টিমিডিয়া বাংলা চলচ্চিত্রে একাধিপত্য বিস্তার করলেও গতবছর আব্দুল আজিজ এর বিরুদ্ধে জনতা ব্যাংক অর্থ কেলেংকারীর অভিযোগ ও মামলা হবার পর হতে থেমে যায় জাজ মাল্টিমিডিয়ার গতি। আব্দুল আজিজ পালিয়ে বাঁচেন কিন্তু তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটির হাল বেশিদিন ধরে রাখতে পারেনি বর্তমান সিইও আলীমুল্লাহ  খোকন। করোনাকালীন সময়ে অফিস বন্ধ করে দিয়ে জাজ মাল্টিমিডিয়ার সকল কার্যক্রম এক প্রকার বন্ধ করে দেয়া হলেও আজ আব্দুল আজিজ তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে ঘোষনা দেন ‘‘হলিউডের সাথে যৌথ প্রযোজনায় ৩টা সিনেমা নির্মান করছি । নির্মাণ শেষে হলিউডের ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির মাধ্যমে সিনেমা গুলো ওয়ার্ল্ডওয়াইড রিলিজ পাবে।’’

তার স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হলো- ‘‘হলিউডের সাথে যৌথ প্রযোজনায় ৩টা সিনেমা নির্মান করছি । নির্মাণ শেষে হলিউডের ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির মাধ্যমে সিনেমা গুলো ওয়ার্ল্ডওয়াইড রিলিজ পাবে।

আমেরিকা যাচ্ছি, তবে আমি একা না; বাংলাদেশ থেকে আরো অনেক শিল্পী ও কলাকুশলীদের নিয়ে যাচ্ছি। যেমন- ‘MR-9 – মাসুদ রানা’ সিনেমার জন্য এবিএম সুমন সহ আরো অনেকে। সিনেমাটি ইউরোপ – আমেরিকা – এশিয়ার বিভিন্ন দেশে বিশাল পরিসরে নির্মিত হ’তে যাচ্ছে। আশা করি সিনেমাটি ভালো হবে এবং বিশ্বব্যাপী ব্যবসা সফল হবে।

আর যদি ‘MR-9 – মাসুদ রানা’ ব্যবসা সফল হয়, বাংলাদেশের এবিএম সুমন সহ আরো অনেকেই হলিউডে প্রতিষ্ঠিত হবে। একবার প্রতিষ্ঠিত হ’য়ে গেলে, পরবর্তীতে তাঁরা সিনেমা প্রতি মিলিয়ন ডলার (নয় কোটি টাকা প্রায়) পারিশ্রমিক পাবে ।

‘MR- 9 – মাসুদ রানা’ সিনেমার টাইটেল গান ইংলিশেই হয়েছে। একজন বাংলাদেশী মিউজিক কম্পোজারের মাধ্যমেই টাইটেল গান সম্পন্ন হয়েছে, এবং এই গান দিয়েই তিনি হলিউডে পা রাখতে যাচ্ছেন। অর্থাৎ, আমি একা না; আরো অনেক শিল্পী ও কলাকৌশলীদের সাথে নিয়ে বাংলাদেশ ও হলিউডের সাথে একটি ব্রিজ তৈরি করতেছি। যা, পরবর্তী প্রজন্মের চলচ্চিত্র ভাবনার পথ সুগম হয়। সবার দোয়া প্রত্যাশী। সঙ্গে থাকুন…’’

উল্লেখ্য কিছুদিন আগেই জাজ মাল্টিমিডিয়ার অফিস বন্ধ করে আসবাবপত্র সরিয়ে নেয়া হয়। আলোচিত এই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার আব্দুল আজিজ একাধিক মামলায় ফেরারী আছে প্রায় এক বছর ধরে। অনেকেই বলছেন, ফেইসবুকে স্ট্যান্টবাজি করে আব্দুল আজিজ মূলত নারীদের প্রলুব্ধ করে তার প্রতারণার ফাঁদে ফেলার খেলায় মেতে উঠেছেন। জাজ মাল্টিমিডিয়া দাবী করে তাদের MR-9 মাসুদ রানা ছবিটি প্রযোজনা করবে হলিউড সিলভার নাইন নামের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। হলিউডে যোগাযোগ করে এবং ইন্টারনেট সার্চ দিয়ে এধরনের কোনো প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্বই পাওয়া যায়নি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে হলিউড সিলভার নাইন নামের কোনো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন নেই এমনকি হলিউডের প্রযোজকদের প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে, হলিউড সিলভার নাইন (Hollywood Silver Nine) নামের কোনো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নামও তারা শোনেননি।

উল্লেখ্য, MR-9 মাসুদ রানা নামের চলচ্চিত্রের জন্যে নায়ক-নায়িকা খুঁজতে জাজ মাল্টিমিডিয়া যৌথভাবে চ্যানেল আই’র সাথে ট্যালেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতার আয়োজন করে। পরবর্তীতে চ্যানেল আই কর্তৃপক্ষ এই প্রতারকের কাছ থেকে সরে গেলেও আব্দুল আজিজ এককভাবেই ওই চলচ্চিত্র নির্মাণের ঘোষণা দেন।

গত এক বছর ধরেই আব্দুল আজিজ হলিউডে সিনেমা বানানোর নাম করে অসংখ্য ছেলেমেয়েকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে আবার নতুন কোন ফন্দি আঁটছেন সেটাই দেখার বিষয় বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন চলচ্চিত্র প্রেমী কর্মীগন।

Previous articleআতঙ্কে আছেন নাটক-সিনেমার কিছু নায়িকা
Next articleচুম্বন দৃশ্যে আপত্তি নেই: পায়েল

Leave a Reply