জমজমাট প্রতিবেদন

বিনোদন জগতের দুই বিতর্কিত নাম জাজ মাল্টিমিডিয়া ও টেলিহোম। জাজ এর কর্ণধার আব্দুল আজিজ এর বিরুদ্ধে জনতা ব্যাংকের সাড়ে সাত হাজার কোটি টাকা লোপাটের পাশাপাশি ভারতে যৌথ প্রযোজনার নামে সিনেমা বানিয়ে বিপুল অংকের অর্থ পাচারের অভিযোগ আছে। পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে হলিউড সিলভার নাইন নামের একটি অস্তিত্ববিহীন প্রতিষ্ঠানের নামে বাংলাদেশ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শতশত কোটি টাকা পাচারের অভিযোগও আছে। অপরদিকে টেলিহোম এর কর্ণধার আলী বশিরকে কিছুদিন আগে উঠিয়ে নিয়ে যায় আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি তার ভায়রা শাহেদ করিমের সহযোগী।

পত্র-পত্রিকার রিপোর্ট জানা গেছে করোনা কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়া রিজেন্ট হসপিটাল নামের প্রতিষ্ঠানের মালিক ও বর্তমানে আটক শাহেদ করিম তার উপার্জিত অবৈধ অর্থ বিনিয়োগের পাশাপাশি নাটকের অভিনেত্রীদের নানা সময়ে বিভিন্ন ব্যাক্তির কাছে সরবরাহ করতেন।

উল্লেখ্য, শাহেদ করিমের উত্থান হওয়া ভবনের গিয়াসউদ্দিন মামুনের হাত ধরে।

মিডিয়ায় শাহেদ করিমের নারী সংগ্রহের কাজের ওপর প্রত্যক্ষ সহযোগী বিএনপির সাংস্কৃতিক শাখার এক নেত্রী, যিনি নিজেকে নাট্য পরিচালক হিসেবে পরিচয় দেন। শাহেদ গ্রেফতার হওয়ার পর ওই নারী গা ঢাকা দিয়েছেন।

জাজ মাল্টমিডিয়ার আব্দুল আজিজ পলাতক হবার পর থেকেই জাজ কেন্দ্রীক কিছু অভিনেত্রী চরম আতঙ্কে থাকলেও শাহেদ করিম গ্রেফতার হবার পর নাটকের বেশ কিছু অভিনেত্রী, যাদেরকে শাহেদ অনৈতিক কাজে ব্যবহার করেছে, তারা শঙ্কায় আছেন। এসব অভিনেত্রীদের শাহেদ নাটকে কাজ করানোর পাশাপাশি নিজে ব্যাবহার করতেন এবং এদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তির কাছে সরবরাহ করতেন বলে অভিযোগ আছে। এরই মাঝে তদন্তকারী সংস্থা শাহেদ করিমের সাথে কিছু অভিনেত্রীর টেলিফোন কথোপকথনসহ ভিডিও এবং স্টিল ছবি সংগ্রহ করেছে।

Previous articleসিনেমা আর জীবন!
Next articleজাজ মাল্টিমিডিয়া বন্ধ! পলাতক আব্দুল আজিজ দিচ্ছে সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা

Leave a Reply