জমজমাট প্রতিবেদক:

খ্যাতিমান অভিনেতা মাসুম আজিজ এর বিরুদ্ধে ‘পাপাচারের’ অভিযোগ তুললেন জুনিয়ার এক শিল্পী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়ে ওই অভিযোগ তোলার পর মাসুম আজিজ তাকে আনফ্রেন্ড এবং ব্লক করে দিয়েছেন।

মাসুম আজিজ কে নিয়ে কেনো এধরনের স্ট্যাটাস, এ প্রশ্নের জবাবে জুনিয়র ওই শিল্পী নিজের ফেসবুক ওয়ালে স্বাধীন মতামত প্রকাশের অজুহাত দিয়ে যা বলেন, তা প্রকাশের অযোগ্য। এ নিয়ে অভিনেতা মাসুম আজিজের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‘বর্তমানে দেশের অবস্থা ভালো না। দিন দিন করোনায় মারা যাচ্ছে মানুষ। এদিকে বন্যার কারণে অনেকেই খারাপ সময় পার করছে। এমন অবস্থায় গরু কোরবানি দিয়ে ছবি দেওয়া কতটুকু যুক্তি সঙ্গত বলেন? যে মানুষটি কোরবানি দিতে পারছে না অসহায় দিন যাপন করছে তারা এমন ছবি দেখলে নিশ্চয় তাদের ভালো লাগবে না। তাই মানবিক দৃষ্টিতে বলেছিলাম যে, এ সময়ে কোরবানির গরুর ছবি ফেসবুকে না দিলে ভালো হয়। তাহলে কি বলবো? আমরা কি লোক দেখানোর জন্য কোরবানি দিচ্ছি? আমি এও বলেছি যে, আমার ফেসবুক কোন বন্ধু যদি গরুর ছবি ফেসবুকে দেয় তাহলে তাকে ব্লক করে দেব। শুধু এটুকু বলেছি। আসলে ফেসবুকে ছবি দিয়ে কাকে দেখাচ্ছে?

তিনি আরো বলেন, এবার সব কিছু বিবেচনা করে আমি নিজেও কোরবানি দেইনি। কোরবানির টাকা অসহায়দের মাঝে দিয়ে দিছি। যত বছর কোরবানি দিয়েছি কখনোই ফেসবুকে ছবি দেইনি, কখনো দিতেও চাই না। যারা দিচ্ছেন দেশের অবস্থা তাদের চিন্তা করা দরকার। সবার মানবিক দৃষ্টিতে একটু ভাবা দরকার। সে তো একজন শিল্পী। একজন শিল্পীকে মানবিক হতে হবে। শিল্পী হওয়া এত সহজ নয়। সে যদি স্ট্যাটাস দিয়ে শান্তি পায় তাহলে আমার কিছু বলার নেই ”।

উল্লেখ্য তুহিন চৌধুরী নামের একজন শিল্পী তার ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে লিখেন- “আসসালামু আলাইকুম মাসুম আজিজ ভাই, ভেবেছিলাম বিষয়টি নিয়ে লিখবোনা। আসলে না লিখেও পারলামনা। কারণ, বিষটি আমার ইগোতে লেগেছে তাই বাধ্য হলাম লিখতে আপনাকে। আমার টাইম লাইনে আমি আমার কোরবানির গরুর ছবি দেয়াতে আপনি সেই ছবির নিচে লিখেছেন, আপনার টাইম লাইনে আমার গরুর ছবি দেখতে পাওয়ায় আপনি আমাকে শুধু আন ফ্রেন্ড নয় সাথে ব্লক দিচ্ছেন। এবং করেছেনও সেটাই। আমার প্রথম প্রশ্ন আপনার কাছে, আমি কি আপনার টাইম লাইনে আমার কোরবানির গরুর ছবি ট্যাগ করেছি? যদি ট্যাগ করে না থাকি তবে আপনার টাইম লাইনে সেটা পেলেন কোথা থেকে? আপনি হয়তো নোটিফিকেশনে দেখেছেন সেটা হতে পারে। আমার নোটিফিকেশনকে তো আর আমি বলতে পারবোনা এমন নিউজটি যাতে আপনার নোটিফিকেশনে না যায়।

আবার এটাও বলেছেন আপনি, “আমি কেন এমন ছবি দিলাম আমার টাইম লাইনে”।

আমার টাইম লাইন মানে আমার স্বাধীন চেতা মনের বহিঃপ্রকাশের ক্যানভাস। এখানে আমি কি দেবো সেটা নিশ্চয়ই আপনার মতামতে দেবোনা। আপনি নিশ্চয়ই আমার বন্ধু নন বা নন আমার সম বয়সী কোন মানুষ অথবা আমার প্রতি শুদৃষ্টি সম্পন্ন কেউ বা আমার উপদেষ্টা। তাহলে আপনি আমায় আনফ্রেন্ড বা ব্লক মারলে তাতে আমার কি এসে যায়? শুনেছিলাম মানুষের বয়স বাড়লে মানুষের নাকি সুবুদ্ধি লোপ পায়, আপনার এমন কর্মে সেটাই প্রমাণ দিলেন। আল্লাহর কাছে দোয়া করছি যাতে আপনার সুবুদ্ধির উদয় দান করেন। এবং এ বয়সে আপনাকে তিনি যেনো সকল গুনহার কাজ থেকে দূরে রাখেন। ভালো থাকবেন।

Previous articleধ্বংসের মুখে সিনেমা শিল্প!
Next articleসিনেমা আর জীবন!

Leave a Reply