জমজমাট প্রতিবেদক:

বদিউল আলম খোকন। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির মহাসচিব। চিত্রনায়ক শাকিবের ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বেশি হিট সিনেমা উপহার দিয়েছেন তিনি। শাকিবকে নিয়ে এ পর্যন্ত ২৩টি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন তার অধিকাংশই দর্শকপ্রিয়তা পায়। শাকিবকে নিয়ে নির্মাণধীন ২৪তম সিনেমা ‘আগুন’। চলচ্চিত্র ও সমসাময়িক প্রসঙ্গে জমজমাটের সাথে কথা বলেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- রুহুল আমিন ভূঁইয়া

* শুটিং নিয়ে কি ভাবছেন?

– মার্চের পাঁচ তারিখ শুটিংয়ের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তিনটি শর্তসাপেক্ষে শুটিং করতে হবে। সব কিছু বিবেচনায় শুটিংয়ে লোক সংখ্যা সীমিত রাখতে বলা হয়েছে। এবং করোনা টেষ্ট করে শুটিংয়ে শিল্পী নিতে হবে। কেউ শুটিং করলে সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনেই করতে হবে। শুটিংয়ের অনুমতি দেওয়ার পর শুধু ‘বিক্ষোভ’ ছবির দুই দিন শুটিং হয়েছে। এ মুহূর্তে কেউ ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে ইচ্ছুক নয়। কেউকে শুটিংয়ের জন্য জোরও করা যাবে না।

* ‘আগুন’ ছবির শুটিং শুরু করবেন কবে?

– এখন কেউই শুটিংয়ের জন্য আগ্রহী নয়। প্রায় এলাকাই লকডাউন। আমারও শুটিং করা দরকার কিন্তু আয়োজন করতে পারছি না। এক শিশু শিল্পীর সাথে শুটিংয়ের জন্য যোগাযোগ করি। তার পরিবার জানিয়েছে তাদের এলাকা লকডাউন এ মুহূর্তে ঝুঁকি নিয়ে শুটিং করতে আগ্রহী নয়। তাছাড়া ঈদের আগে শুটিং সম্ভব নয়। অবস্থা স্বাভাবিক হলে একটা সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

দীর্ঘ দিন সিনেমা হল বন্ধ। এখন সিনেমা তৈরি হচ্ছে না। কিছু সিনেমা সেন্সর হয়ে মুক্তির জন্য প্রস্তুত। তবে এই মুহূর্তে কেউ সিনেমা হলে যাবে না। সামাজিক দূরত্ব মানতে হবে সেটি সিনেমা হলে সম্ভব নয়। এবং হলে সেই ব্যবস্থাও নেই। সিটের সাথে সিট লাগানো। আগে জীবন তারপর বিনোদন। বিনোদন চার নম্বর। এখন বেঁচে থাকার লড়াই। করোনা সবাইকে নাকাল অবস্থা করে দিছে। এই পরিস্থিতি হল খুলে দিলেও কেউ হলে যাবে না। এই পরিস্থিতিতে আমি নতুন ছবি মুক্তি দেব না। আমরা হল খোলায় এখন তেমন একটা আগ্রহী নই। এমন পরিস্থিতিতে আসছে ঈদে কেউ নতুন ছবি মুক্তি দিতে চায় না।

* আগে থেকেই সিনেমার অবস্থা ভালো না। ক্রমশ করোনার সংক্রমন বাড়ছে। এমন অবস্থায় চলচ্চিত্রর ভবিষ্যত কেমন হবে?

– অনিশ্চিত ভবিষ্যতে আমাদের চলচ্চিত্র। এ অনিশ্চিত ভবিষ্যত কিভাবে কাটিয়ে উঠবো আমরাও জানি না। সব কিছু একটা অভ্যাসের ব্যাপার। আমি যখন কলেজে পড়তাম তখন প্রতি শুক্রবার মর্নিং শোতে সিনেমা দেখতাম। সেই অভ্যাসের পরিবর্তন হয়েছে। তেমনি বেশ কিছু দিন সিনেমা হল বন্ধ থাকায় দর্শকের সেই অভ্যাসের পরিবর্তন এসেছে। হুট করেই কেউ সিনেমা হলে যাবে না। এ অভ্যাসে ফিরিয়ে আনা কষ্টকর হবে। আমরা সরকারের কাছে ৫০টি সিনেমা নির্মাণের আবেদন জানিয়েছি। ৫০ কোটি টাকা দিয়ে সিনেমা বানানো তার কাছে কোন ঘটনা না। এক সাথে ৫০টি ছবি নির্মাণের উদ্যোগ নিলে চলচ্চিত্র কিছুটা হলেও ঘুরে দাঁড়াবে। ৫০টি ছবি বানাতে বিএফডিসি সব রকম সহযোগিতা করবে। সরকার অনেক কিছু করতেছে। সে চাইলে এটা বাস্তবায়ন সম্ভব। ৫০ কোটি টাকা তার কাছে ব্যাপার না। আশা রাখছি তিনি সিনেমার দুর্দিন চিন্তা করে সিনেমার কল্যাণে আবেদনটি বাস্তবায়ন করবেন। চলচ্চিত্রর ১৭টি সংগঠন মিলে আমরা এ আবেদন করেছি।

* অনেকেই অনলাইন মাধ্যমে সিনেমা মুক্তির কথা ভাবছেন। আপনার অভিমত?

– ডিজিটাল মাধ্যমে সিনেমা দেখা আজ না হয় কাল বাস্তবায়ন হবেই। বর্তমানে সব কিছু অনলাইন নির্ভর হয়ে গেছে। একটা সময় সিনেমাও অনলাইনে মুক্তি পাবে। আস্তে আস্তে সেটি চলে আসবে। নিদিষ্ট সময় মানুষ ছবি দেখতে চায় না। সবাই নিজের নিয়ন্ত্রনে দেখতে চায়। সামনে ডিজিটাল মাধ্যমের জন্যই কনটেন্ট বানানো হবে।

*‘আগুন’ অনলাইনে মুক্তি পাবে?

– এই মুহূর্তে বলতে পারবো না কারণ একটি সিনেমার মালিক ছবির প্রযোজক। সে যেখানে চাইবে সেখানে মুক্তি পাবে। আমরা তাকে সাজেশন দিতে পারবো। দেশের অবস্থা এ রকম থাকলে সেটি হতেও পারে। তবে এটি  নির্ভর করে প্রযোজকের উপর।

* কয়েকজন শিল্পী পারিশ্রমিক কমানোর ঘোষণা দিয়েছে। আবার এমনও অভিযোগ আছে দশটার শুটিং দুইটায় আসার। শুধু কি পারিশ্রমিক কমালেই হবে?

– এই পরিস্থিতি যারা পারিশ্রমিক কমানোর ঘোষণা দিয়েছেন তাদের সাধুবাদ জানাই। এই মুহূর্তে সবারই সহযোগিতা করতে হবে। সিনেমা বড় মাধ্যম। একটি সিনেমা নির্মাণে করতে গেলে কম সংখ্যক লোক

Previous articleএফডিসিতে গরু কোরবানি দিবেন সানী-মৌসুমী
Next articleএখন সুস্থ আছি: জাহিদ হাসান

Leave a Reply