থিয়াট্রন ঢাকার নাটক সিচুয়ানের সুকন্যা মঞ্চায়নের আজ এক বছর পূর্তি। এই নিয়ে কথা হয় নাট্য সংগঠন  থিয়াট্রন ঢাকার প্রধান নির্বাহী নূর-ই-আলম সুমনের সাথে।

  • থিয়াট্রন নিয়ে কিছু বলুন-

থিয়াট্রন একটি নতুন প্লাটফর্ম, নতুনের প্লাটফর্ম। এখানে নতুন শিল্পী, কলাকুশলীদের অগ্রাধিকার দেয়া হয়। সবাইকে নুন্যতম সম্মানী দিয়ে কাজের ভাবনা আছে। থিয়াট্রন ঢাকার প্রথম প্রযোজনাটির মাধ্যমে একজন নতুন অনুবাদকের অভিষেক হয়েছে, ভবিষ্যতেও হবে। যে কোন নতুন নাট্যকার, নির্দেশক নতুন হলেও এখানে কাজের সুযোগ পাবে।

  • থিয়াট্রন ঢাকার প্রথম প্রযোজনা নিয়ে জানতে চাই-

থিয়াট্রন ঢাকা গঠনের পর থেকেই স্ক্রীপ্ট খুজতেছিলাম, অনেকদিন পর অনুবাদক মামুন হকের সাথে আমার আলাপ হয়। উনি বার্টল্ড ব্রেখট এর এ গুড ওমেন অফ সিযুয়ান নাটকের বাংলা অনুবাদ করেছেন সিচুয়ানের সুকন্যা নামে। স্ক্রিপ্টটি নিয়ে  আমি আমার উপদেষ্টাদের সাথে আলোচনা করি এবং মঞ্চে আনতে সম্মত হই। নির্দেশনা দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলাম শিল্পকলা একাডেমীর নাটক ও চলচ্চিত্র বিভাগের আলি আহমেদ মুকুল ভাইকে। কিন্তু ব্যস্ততার কারনে তিনি না পারায় সম্রাট প্রামানিক স্যারকে নির্দেশনার দায়িত্ব দেই।  বিভিন্ন দলের ১৪ জন অভিনয় শিল্পি এতে অভিনয় করেছেন। এবং সাতটি সফল মঞ্চায়ন করেছি।

  • থিয়াট্রন নিয়ে ভবিষ্যৎ ভাবনা কি?

নাটকের পাশাপাশি সংস্কৃতির অন্যান্য ক্ষেত্রেও কাজ করার পরিকল্পনা আছে। শুধু দলে সীমাবদ্ধ না থেকে থিয়াট্রন ঢাকাকে একটি আন্তর্জাতিক মানের সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ার ইচ্ছে আছে।

  • নতুন প্রযোজনায় আপনাকে মঞ্চে দেখা যাবে কি?

আসলে থিয়াট্রন ঢাকার প্রধান নির্বাহী হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির সবকিছুই আমাকে নির্বাহ করতে হয়। তাই অভিনয়ে মনোযোগ দেয়ার সুযোগ কম। এজন্য হয়তো অভিনয় করা হবে না, আর এখন কেন যেন নিজে কাজ না করে  ছেলেমেয়েদের দলে কাজের সুযোগ করে দিতেই আনন্দ পাই।

  • নাটক পরিচালনা করার ইচ্ছে আছে?

মঞ্চ নাটক নির্দেশনা অনেক কঠিন কাজ মনে হয়। আমি এতো মেধাবী নই, আর এমন দুঃসাহস আমার নেই।  তবে টেলিভিশন নাটক পরিচালনার ইচ্ছে আছে।

  • থিয়াটারে আপনার অনুপ্রেরণা কে?

অবশ্যই আমার স্ত্রী জিনিয়া আজাদ। সে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের মুখ্য কর্মকর্তা, পাশাপাশি পদাতিক নাট্য সংসদের একজন কর্মী,  অভিনেত্রী। থিয়াট্রন ঢাকারও সে একজন নির্বাহী পরিচালক।

  • ৩০ জুলাই থিয়াট্রন ঢাকার প্রথম প্রযোজনা সিচুয়ানের সুকন্যা মঞ্চায়নের এক বছরপুর্তি কিভাবে পালন করছেন?

কতসব চ্যালেঞ্জ আর প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে ‘সিচুয়ানের সুকন্যা’  নাটকটি শুরু করেছিলাম সেটা আমার সহকর্মীরা ভালো বলতে পারবে। আমি কথা বলার চেয়ে কাজে বিশ্বাসী বলেই পেরেছিলাম নাটকটি মঞ্চে আনতে।  অনেক কষ্ট করে প্রথম প্রযোজনা জার্মান নাট্যকার বার্টল্ড ব্রেখট এর এ গুফ ওমেন অফ সিচুয়ানের বাংলা অনুবাদ ‘সিচুয়ানের সুকন্যা’ মঞ্চে আনতে সক্ষম হয়েছি এবং ৭টি সফল মঞ্চায়ন করেছি। করোনাকালীন এই সময়ে নাটকটির মঞ্চায়ন স্থগিত আছে। থিয়াট্রন ঢাকা’র শুরু থেকে যারা পাশে ছিলেন তাদের আজকের  দিনে আন্তরিক শুভেচ্ছা।  করোনা দুর্যোগে কারনে ইচ্ছে থাকা সত্বেও কোন অনুষ্ঠান করতে পারছি না সামনের বছর ঝমকালো আয়োজনে দুই বছরপুর্তি পালনের জন্য সবাইকে বাসায় অবস্থান করে নিরাপদে থাকার আহবান জানাচ্ছি।

Previous articleঢাকাই চলচ্চিত্রে অশনিসংকেত
Next articleসাত পর্বের ধারাবাহিক ‘মামা-ভাগ্নে যেখানে বিপদ নেই সেখানে’

Leave a Reply