জমজমাট প্রতিবেদক: করোনা কেলেঙ্কারিতে গ্রেফতার হওয়া মহা প্রতারক শাহেদ করিমের বিনিয়োগ আছে একটি বিতর্কিত টেলিভিশন নাটকের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানে। আর এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেই নাটকের অভিনেত্রীদের সংগ্রহ করে এদের অনৈতিক কাজে ব্যবহার করতো শাহেদ। পত্র-পত্রিকার রিপোর্ট জানা গেছে অন্তত তিনজন অভিনেত্রীকে শাহেদ নিজের রক্ষিতা হিসেবেও ব্যবহার করতো।

বিএনপির সমর্থক এক নারী নাট্য নির্মাতার মাধ্যমেও করোনা শাহেদ প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় সারির কিছু অভিনেত্রীকেও সংগ্রহ করে এদের বিভিন্ন প্রভাবশালীর কাছে উপঢৌকন হিসেবে পাঠাতো।

জানা গেছে, শাহেদের বিনিয়োগে চলা একটি বিতর্কিত টেলিভিশন নাটকের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কেবলমাত্র নারী সরবরাহেই নয়, বরং সেখান থেকে ইয়াবার ব্যবসাও চলতো গোপনে।

শাহেদ ও ওই বিতর্কিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সেখানে যেসব অভিনেত্রীরা কাজ করেছেন তাদের বেশির ভাগকেই পতিতাবৃত্তিতে নামানো হয়। এদিকে, শাহেদ গ্রেফতার হবার পর তার সাথে ঘনিষ্ট বেশ কিছু অভিনেত্রীর নাম উঠে এসেছে, যারা বর্তমানে চরম আতঙ্কে আছে।

জানা গেছে, ওই অভিনেত্রীদের অনেকেরই গোপন ভিডিও সংগ্রহে আছে বিতর্কিত ওই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের আলোচিত কর্ণধারের কাছে, যার ফলে ওই অভিনেত্রীরা মিডিয়ার সামনে তাদের ঈদ নাটক নিয়েও কথা বলতে ভয় পাচ্ছে। এরা গণমাধ্যম কর্মীদের কাছ থেকে নিজেদের আড়াল করে রাখছেন এই ভয়ে যে অনেকেই এদের ওই বিতর্কিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ললনা হিসেবেই চেনে।

এদিকে, ওই বিতর্কিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাবসহ কর্তা ব্যাক্তিদের মোবাইল ফোনের কল রেকর্ড এরই মাঝে গোয়েন্দারা সংগ্রহ করেছে। ওই কল রেকর্ডের সূত্র ধরেই এখন শাহেদ ললনাদের চিহ্নিত করা হচ্ছে।

Previous articleতাল তমালের বনেতে আগুন লাগে মনেতে…
Next article‘ওয়েব সিরিজের পক্ষে, অশ্লীলতার বিপক্ষে’

Leave a Reply