রঞ্জু সরকার: ছোটপর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেতা জামিল হোসেন। ‘মিরাক্কেল আক্কেল চ্যালেঞ্জার- ৬’ এর চূড়ান্ত পর্বের প্রতিযোগী ছিলেন তিনি। দেশে ফিরে অভিনয় করছেন নিয়মিত। জামিলের এখন সব ব্যস্ততা অভিনয় ঘিরেই। করোনার আগে প্রতিদিনই কোন না কোন নাটকের শুটিং এ অংশ নিতেন। ব্যস্ততা দেয়নি অবসার। তবে এবার করোনার কারণে দম ফেলার ফুরসত মিলেছে এ অভিনেতার। তিন মাস একেবারে কাজ বিহীন ছিলেন তিনি।

গত ঈদে জামিল অভিনীত মাত্র একটি নাটক প্রচার হয়েছে। করোনার কারণে কাজ করতে পারেননি। তিনমাস ঘরে ‘লকড’ থাকার পর কাজ শুরু করেন। জামিল জমজমাটকে জানান, ‘ঘরে থাকাকালীন গান করে সময় পার করতাম। সচেতনা মূলক বার্তা দিতাম। রান্নার হাতটিও পাকা করে নিয়েছি। দেশের খুবই খারাপ অবস্থা। অনেক ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। অভিনয় করেই চলতে হয়। ঘরে বসে বসে খেলে রাজার ভান্ডারও শেষ হয়ে যায়। নিজের প্রয়োজনের তাগিত থেকে কাজ করছি।’

জামিলের সমসাময়িক ব্যস্ততা প্রসঙ্গে বলেন, ‘সঞ্জিত সরকারের চলতি থারাবাহিক ‘চিটিং মাষ্টার’ এর শুটিং দিয়ে দীর্ঘ দিন পর কাজে ফিরলাম। তারপর কয়েকটি সাত পর্বের ও অভিনেতা-নির্মাতা শামীম জামানরে ‘জিম জসিম’ নামের একটি সিঙ্গেল নাটক করেছি। ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর প্রযোজনায় আদিবাসী মিজান পরিচালিত ‘তিন দ্বৈত্য’ এবং ফরিদুল হাসান পরিচালিত ‘সুন্দরী বাইদানী’ নাটকের শুটিং শেষ করলাম। ‘তিন দ্বৈত্য’ ধারাবাহিকের গল্পটি তিন জ্বীন নিয়ে। তিন জ্বীনের মধ্যে আমি অভিনয় করেছি ডিজিটাল জ্বীনের ভূমিকায়। অনন্য জ্বীনের সাথে আমার অনেক পার্থক্য। ওদের আমি খুব বিরক্ত করি। হাস্যরসে ভরা। আমার বিশ্বাস ক্রাউনের ধারাবাহিকটি সকলে পছন্দ করবে।

এখনকার শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা কেমন? খুবই ভয়াবহ অভিজ্ঞতা। খুবই আতঙ্কের মধ্যে দিয়ে শুটিং করতে হচ্ছে। তবে শুটিংয়ে সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করছি। নিয়মনীতি মেনে কাজ করা সম্ভব নয়। তবে কিছু করার নেই করতে হচ্ছে। বর্তমান ওয়েব সিরিজ প্রসঙ্গ টেনে এ অভিনেতা বলেন, ‘আমি শতভাগ ওয়েব সিরিজের পক্ষে। তার মানে এই নয় যে ওয়েব সিরিজ মানে উত্তেজনা থাকবে। বাংলাদেশে অনেক গল্পের ভান্ডার আছে। এত গল্প থাকতে আমরা কেন ওয়েব সিরিজের নামে অশ্লীলতা করছি? আমরা ঐ গল্পগুলো ভালো ভাবে দর্ককদের কাছে উপস্থাপন করার চেষ্টা করি। সবার কাছে আমার অনুরোধ ওয়েব সিরিজের নামে কেউ অশ্লীলতা করবেন না। যারা অশ্লীলতা করে দর্শকদের কষ্ট দিয়েছে সবার হয়ে আমি দর্শকের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি আপনারা ভুল বুঝবেন না। বাংলাদেশে ওয়েব সিরিজ শুরু হয়েছে এখন ভালো ভালো ওয়েব সিরিজ হবে একটু অপেক্ষা করুন। আমি ওয়েব সিরিজের পক্ষে কিন্তু অশ্লীলতার পক্ষে নই।’

জামিল ছোটপর্দার গন্ডি পেরিয়ে কাজ করেছেন বড়পর্দায়ও। জামিল যে ধরনের চরিত্রে অভিনয় করেন সে রকম চরিত্র নিয়ে পরিচালকরা ভাবলে চলচ্চিত্রে নিয়মিত হবার আগ্রহ রয়েছে। নাটকের নামে একঘেয়ামি তুলতেই এ অভিনেতা জানান, বর্তমানে ৪ ধরনের গল্পের নাটক হচ্ছে এক. চরম রোমান্টিক- কথা নেই বার্তা নেই রোমান্টিকতা দিয়ে গল্প শেষ। দুই. স্যাড- নাটকের শুরু হয় কান্না দিয়ে শেষও হয় কান্না দিয়ে। তিন. কমেডি- কয়েকটি ভাষার নাটক। চার. ওয়েব সিরজি- সাড়া জাগাতে ওয়েব সিরিজের নামে অশ্লীলতা। কমেডির নামে ভাড়ামি হচ্ছে। অভিযোগ- ‘ভাড়ামি একটা আর্ট। কমেডি করতে গিয়ে কয়েকটি ভাষা ব্যবহার করতে হয়। আঞ্চলিকতা কমেডির একটি পাট। কমেডির মূল হচ্ছে কালচারাল। আমি একটি শো থেকে এসেছি। তবে সেটি আমাদের এখানে উপস্থাপন করতে পারছি না। আমরা মনে করি কমেডি নাটক করতে হলে আঞ্চলিক ভাষা লাগবেই। আঞ্চলিক ভাষা ছাড়াও নরমাল ভাষা দিয়ে কমেডি নাটক করা যায়। আমাদের কিছু করার নেই করতে হচ্ছে। গল্পকার-পরিচালক বিষয়টি ভাবলে আশা করি সমাধান হবে।’ -বললেন জামিল।

Previous articleকরোনা: শাহেদ ললনারা চরম আতঙ্কে
Next articleকরোনা ভাইরাস নিয়ে নাটক ‘মানুষের গল্প’

Leave a Reply