চিত্রনায়ক আলেকজান্ডার বো ১৯৯৫ সালে শহীদুল ইসলাম খোকন পরিচালিত ‘ম্যাডাম ফুলি’ সিনেমায় অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে তার যাত্রা শুরু হয়। মার্শাল আর্ট ভিত্তিক চলচ্চিত্রের অন্যতম অভিনেতা রুবেল এর সহযোগি হিসেবে চলচ্চিত্রে বো’র আগমন। তৎকালীন সময়ে রুবেল-শহীদুল ইসলাম খোকনের জুটি অত্যন্ত সফল ছিল। এই জুটি ভেঙ্গে যাওয়ার পর খোকন আলেকজান্ডার বো-কে নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। বো অভিনীত ‘ম্যাডাম ফুলি’ চলচ্চিত্রটি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করলে তিনি অভিনেতা হিসেবে সকলের দৃষ্টি কাড়েন। এরপর অসংখ্য অ্যাকশন ছবিতে পাওয়া গেছে এ অভিনেতাকে। মার্শাল আর্টে চারবার ব্ল্যাকবেল্ট জয়ী এই অভিনেতা বাংলাদেশী চলচ্চিত্রে ফুটবল কারাতে উপস্থাপন করে বেশ আলোচিত হয়েছিলেন। একজন সফল মার্শাল আর্ট শিল্পী হিসেবে শুধু দেশে নাম কামাননি, আন্তর্জাতিক পর্যায়েও বাংলাদেশকে এর মাধ্যমে তুলে ধরেছেন একাধিকবার। এ নায়ক বর্তমানে চলচ্চিত্র অভিনয় থেকে কিছুটা দূরে আছেন। অভিনয় থেকে দূরে থাকলেও বর্তমানে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। চলচ্চিত্র ও সমসাময়িক বিষয়ে জমজমাটের সাথে কথা বলেন আলেকজান্ডার বো। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- রঞ্জু সরকার

  • কেমন আছেন, এই সময়টা কি ভাবে পার করছেন?

আল্লার রহমতে ভালো আছি। দীর্ঘ কয়েক মাস ঘরবন্দি থাকার পর বেশ কয়েকবার এফিডিসি এসেছিলাম শিল্পী সমিতির একজন প্রতিনিধি হিসেবে নিম্ন আয়ের শিল্পীদের খাবার সামগ্রী বিতরণ করতে। করোনার শুরু থেকে শিল্পী সমিতি নিম্ন আয়ের শিল্পী ও কলাকুশলীকে সহায়তা করে আসছে। আগামীকাল বুধবার শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে শিল্পীদের ঈদ উপহার দেওয়া হবে। সমিতি ঘোষণা দিয়েছে যতদিন করোনা ততদিন শিল্পীদের পাশে আছে শিল্পী সমিতি।

  • অনেক ব্যবসা সফল ছবি উপহার দিয়েছেন। কিন্তু চলচ্চিত্র থেকে দূরে সরে গেলেন কেন?

আমি কখনই চলচ্চিত্র থেকে দূরে সরে যেতে চাইনি। চলচ্চিত্রর মানুষই আমাকে দূরে সরিয়ে দিয়েছে। আমি যখন এক চাটিয়ে কাজ করি তখন প্রয়াত মান্না ভাইকে শুধু কাউন্ট করতাম। রুবেল ভাই আমরা দুজন মার্শাল আর্টের তাই চেষ্টা করতাম তার থেকে কিছু শেখার। আমি যে সময় কাজ করি তখন দুজন নায়ক নির্ভর সিনেমা নির্মাণ হতো। সে ধারা পরিবর্তন করে একক অভিনয় করি, সফলও হয়েছি। নিজের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সে ধারা পরির্বতন করি। প্রথম প্রযোজিত ছবি ‘গ্যাংস্টার’। সাতটি ছবির সাথে প্রতিযোগিতা করে এক নম্বর স্থান করে নেয় ছবিটি। তখন মান্না ভাইয়ের ‘রুস্তম’, শাকিব খানের একটি ছবি ছিল, আমারও আরো ছয়টি ছবি ছিল। ছবিগুলো ঈদে মুক্তি পায়। প্রথম ছবিটি সুপার ডুপার হিট হয়। তখন থেকে ইন্ড্রাস্টিতে একক নায়ক হিসেবে যাত্রা শুরু। পরবর্তীতে ‘মা মুভিজ’ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে ‘অর্ডার’ ছবিটি করি। এটিও ভালো ব্যবসা করে। পরে ‘বিয়ের সানাই’ নামের একটি ছবি করার ঘোষণা দেই শাবনূরকে নিয়ে। তবে শাবনূরের কারণে ছবিটি করতে পারিনি। যে দিন শুটিং হবার কথা তার দুই দিন আগ পর্যন্ত শাবনূর অস্ট্রেলিয়া ছিলেন। ছবিটি না করার পেছনে মান্না ভাইর ইন্ধন ছিল। এটা করার কারণ ছিল মান্না ভাইকে নিয়ে মানিক ভাই আরেকটি ছবি নির্মাণ করছেন। যদি আমার ছবিটি আগে শুরু করে তাহলে মান্না ভাইয়ের ছবি পিছিয়ে যাবে যার কারণে সে গেম করে শাবনূরকে অস্ট্রেলিয়া পাঠিয়ে দেয়। ছবিটি বন্ধ করতে যা যা করণীয় সে তখন তা করেছিল। ছবিটির জন্য ১২ লক্ষ টাকা লগ্নি করি। প্রয়াত রাজ্জাক ভাই, শাবনূর, এফ আই মানিক, কাজী হায়াত, ডলি জহুর তাদের সবাইকে সাইনিং মানি দেওয়া হয়েছিল। ছিন্তু ছবিটি আজও হয়নি। কিছু দিন পর এফ আই মানিক একটি বক্তব্য দিলেন শাবনূর মুটিয়ে যাবার কারণে ওজন কমাতে অস্ট্রেলিয়া গেছেন। এতে শাবনূর আরো সুযোগ পায়। পরে ছবিটি একেবারেই বন্ধ হয়ে যায়। আমার স্বপ্নের একটি ছবি ছিল। ছবিটি নিয়ে অনেক আশা ছিল।

  • নতুন করে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান নিয়ে চিন্তা ভাবনা আছে?

এখন আমাদের সবার অবস্থা নরবরে। যার যেখানে থাকা উচিৎ সে সেখানে নেই। বিভিন্ন সমিতিতে সব অদক্ষ লোক বসে আছে। চলচ্চিত্রর কথা বলার যোগ্য লোক নেই। শুধু মাত্র শিল্পী সমিতি দিয়ে এত বড় ইন্ড্রাস্টি ধরে রাখা সম্ভব নয়। শিল্পীরা শুধু কাজ করবে, চরিত্র নিয়ে ভাববে। এখন শিল্পীরা যদি ভাবে একটা হল কি ভাবে বাঁচবে, প্রডাকশন কি ভাবে হবে। সব কিছুই যদি শিল্পীরা চিন্তা করে তাহলে অন্যদের দিয়ে কি হবে?  তাহলে তাদের থাকার প্রয়োজনই দেখছি না। কত দিন শিল্পীরা এ নিয়ে চিন্তা করবে। শাকিব ইন্ড্রাস্টির একটা ভাইরাস। কিছু দিন আগে দেখলাম ও (শাকিব) পারিশ্রমিক কমানোর কথা বলেছে। দামি জিনিসের যখন দাম কমে যায় তখন সেটি কেউ কিনতে চায় না। যখন চলচ্চিত্রর দূর সময় ছিল তখনও শাকিব ৪০-৫০লক্ষ টাকা পারিশ্রমিক নিয়েছে। তখন উচিৎ ছিল পারিশ্রমিক কমিয়ে ইন্ড্রাস্টির কথা চিন্তা করা। তাহলে আজ ইন্ড্রাস্টির এ বেহাল দশা হতো না।

  • শুধু কি পারিশ্রমিক কমালেই হবে। অভিযোগ-শুটিংয়ে দেরি করে আসার-

একজন প্রযোজক যদি একটি ছবির সিংহভাগ একজন শিল্পীকেই দেয় তাহলে বাকি শিল্পীরা তো কোন টাকাই পাচ্ছে না। বরং ছবিটি ঝুঁকিতে পড়ে যায়। আমাদের বাজার অনেক ছোট। শাকিব যদি স্টারই হতো, অনেক বড় মানের শিল্পী হতেন তাহলে বাজারটা আরো বড় হতো। সেই শাকিব খানই বাজারটি ছোট করেছে। এত ছোট করেছে যে এখন ছবি মুক্তি দিতেই ভয় পায়। পারিশ্রমিক কমালেই যে আমাদের ব্যবসা হবে তা কিন্তু নয়। শাকিব যদি বলে ছবি প্রতি দশ লক্ষ টাকা নেব। কিন্তু দেখা গেল শুটিংয়ে নয়টার কল আসলেন বিকাল চারটায়। তাহলে কমিয়ে লাভ কি?  আবার তার ছবিতে এমনও অভিযোগ শোনা যায় অন্য শিল্পীদের সিন কাটা, গান কেটে দেওয়ার। এ রকম করতে করতে যখন একটি প্রডাকশন বেড়ে যায় তখনই ছবিটি লোকশন হয়। সব কিছু প্রেপার মানতে পারলে সুফল পাবে প্রযোজক।

  • প্রায় পাঁচ মাস ধরে সিনেমা হল বন্ধ। বন্ধ হলগুলো নতুন করে না খোলার আশঙ্কা। সে ক্ষেত্রে অনেকেই অনলাইন মাধ্যমে সিনেমা মুক্তির কথা ভাবছেন। আপনার অভিমত?

হলের দর্শক আলাদা অনলাইনের দর্শক আলাদা। সবাইকে হলের দর্শক নিয়ে ভাবতে হবে। সবাই শুধু ব্যবসার চিন্তাই করছেন ইন্ড্রাস্টি নিয়ে কিছু ভাবছে না। ব্যবসা করতে হবে তবে ইন্ড্রাস্টির জন্যও ভাবতে হবে। হলের দর্শক খেটে খাওয়া মানুষ। খেটে খাওয়া মানুষের জন্য ছবি বানাতে হবে। তারা যখন ছবি দেখে তখনই একটি ছবি ব্যবসা সফল হয়।

  • করোনার কারণে চলচ্চিত্রে অনেক বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে। আগামী দিনে সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির পরিস্থিতি কেমন হবে, এবং এই ক্ষতি পুষিয়ে উঠার উপায় কি বলে মনে করেন?

আমরা ক্ষতির মধ্যেই আছি। এত বড় ক্ষতি হয়েছে যে এ ক্ষতি কি ভাবে পুষিয়ে উঠবে সেটি নিজেরাও চিন্তা করতে পারছি না। যদি করোনা ভাইরাস শিথিল হয় মানুষের পাশাপাশি মানুষ থাকতে পারবে, কথা বলতে পারবে তখন কিছুটা হলেও কাটিয়ে উঠতে পারবে। দু-হাজার বিশ সাল আমাদের চলচ্চিত্রর জন্য সম্ভাবনাময় বছর ছিল। অনেক আশা ভরসা ছিল। আমি নিজেও চলতি বছর আমার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ‘মা মুভিজ’ থেকে নতুন করে সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল। এরইমধ্যে ছবিটির নাম এন্ডি করেছি। সব কিছু প্রস্তুত ছিল করোনার কারণে সব থমকে যায়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে কাজ শুরু করবো।

  • আবার চলচ্চিত্রে দেখা যাবে?

বর্তমানে যে ছবির প্রস্তাব পাই সেগুলো আমার কাছে মনে হয় সময় কাটানোর ছবি। গল্প চরিত্র পছন্দ হয় না। ক্যারিয়ারে যা অর্জন করেছি তা নষ্ট করার ছবির প্রস্তাব আসে। যারা আসেন তারা এখনও পরিচালক হয়ে উঠতে পারেনি। তারা মনে করেন একজন সিনিয়ার শিল্পী থাকলেই ছবি চলবে। গল্প শুনে পছন্দ হয় না। ভালো কাজ হলে কম টাকায়ও কাজ করতে রাজি আছি। ভালো গল্পের ছবির প্রস্তাব পেলে আবারও চলচ্চিত্রে দেখা যাবে।

Previous articleকাজী শুভর ‘দুঃখ দিলা’
Next articleজামাই বাজারে রাশেদ সীমান্ত

Leave a Reply