ছটকু আহমেদ: চলচ্চিত্রে আগেও অনেক ভাইরাস এসেছে বিভিন্ন নামে। নগ্নতার ভাইরাস- মূল সিনেমার সাথে কাটপিস না দিলে ছবি চলে না। থার্ডপার্টি ব্রোকাররা আপনার ছবি নিতে আসতো না। বিদগ্ধ হল মালিক সমাজ তাদের হলে কাটপিস ছাড়া আপনার সামাজিক ছবি চালাতো না। নগ্নতার ভাইরাসে মুখ থুবড়ে পরেছিলো চলচ্চিত্র।

ভিডিও পাইরেসি ভাইরাস- আপনার ছবি হলে মুক্তির সাথে সাথে চুরি করে ভিডিও করে ডিশে চালিয়ে দেবে আপনার অনুমতি ছাড়াই আপনি কিছু করতে পারতেন না। মিটিং করেছেন মন্ত্রীর সাথে, স্টেডিয়াম মার্কেটে গিয়ে রেড দিয়েছেন কোন লাভ হয়নি। বাসার ডিস চ্যানেলে দেদারসে আপনার কোটি টাকায় নির্মিত ছবি পরিবারের সবাই দেখছে মুফতে। আপনি একটা পয়সাও পাচ্ছেন না। পাটুয়াটুলির সিডির দোকান আপনার ছবির সিডিতে ভরে গেছে। আপনি মাথায় হাত দিয়ে বসেছেন কিন্তু ওরা লালে লাল।

উন্মুক্ত আকাশ সংস্কৃতির ভাইরাস- একশোর উপর দেশী বিদেশী চ্যানেলে যখন ঘরের বিছানায় শুয়ে আপনার সুবিধামত সময়ে রিমোট কন্ট্রোল টিপে, ইচ্ছামত টিভির চ্যানেল বদলিয়ে সহজেই টিভিতে বিদেশের একশো কোটি টাকার চোখ ঝলসানো ছবি, নায়ক নায়িকার যৌন রগড়ানি, চুমুতো ডালভাত- বেডসীন পর্যন্ত বিনে পয়সায় দেখতে পারেন তখন বোকার মত কস্টার্জিত টাকা খরচ করে, অসহনীয় রাস্তার জ্যামযট পাড়ি দিয়ে এক কোটি টাকা খরচ করা বাংলাদেশের ছবি, যেখানে নায়িকার শাড়ি বাতাসে উড়লেও নাভী দেখাতে পাওয়া যাবে না, যেখানে স্কার্ট পড়লেও নায়িকার হাঁটু বের হতে পারবে না, লো কাট ব্লাউজ পড়লেও বুকের ভাঁজ দেখা যাবে না, বৃষ্টিতে ভিজলেও শরীর বাঁকগুলি স্পস্ট হবে না, চুমুতো দুরে থাক একটু যৌন সুড়সুড়িও সেন্সার বোর্ডের কল্যানে দর্শক দেখতে পাবে না সে ছবি হলে গিয়ে কেন আপনি দেখবেন? পাগল নাকি আপনি?

সেন্সারবোর্ড ভাইরাস- যে ছবিই করেন না কেন সেন্সার বোর্ড আতংকে সেন্সারের আগের দিন মেম্বারদের ফোন নাম্বার খুঁজে বের করে ফোন করে কাঁদো কাঁদো স্বরে (যেন আপনি ছবি বানিয়ে পাপ করেছেন) বলতে হবে ভাই আমার ছবিটা একটু দেখবেন। প্রশাসনের, রাজনীতির, পুলিশের, পেশাজীবিদের কোন দুর্নীতি আপনার নির্মিত ছবিতে দেখাতে পারবেন না। যদি বা দেখান তাহলে অবশ্যই একজন ভালো লোক দেখাতে হবে সেটা আপনার গল্পে প্রযোজন হোক আর না হোক। তারপর আছে সেন্সার বোর্ড সদস্যদের ব্যাক্তিগত রুচি অরুচির ব্যপার। সেন্সার বোর্ডে এইবার অমুক ইসলামি চিন্তাবিদ মেম্বার, সুতারাং হাঁটুর উপড়ে কাপড় পড়া নায়িকার ছবি সেন্সার ছাড়পত্র পাবে না। কারণ কি। হাঁটুর উপড় কাপড় কি বাংলাদেশের মেয়েরা পড়ে না। আবার কোন কোন সেন্সার বোর্ডের মেম্বার নিজেদের বেশি চলচ্চিত্র বোদ্ধা দেখাতে গিয়ে ছবিকে সেন্সারে আটকে দিচ্ছে- না না গল্পটা এই রকম হওয়া উচিৎ হয়নি, এই রকম হওয়া উচিৎ ছিলো। আরে মর জ্বালা, মেম্বার সাহেবের মনের মত ছবির গল্প হবে এটা কি সেন্সার নীতি মালায় আছে। আবার কেউ গানের সময় নড়ে চড়ে বসেন। শাড়ির আঁচল উড়ে গিয়ে নায়িকার নাভী দেখিয়েছে, কাটো জলদি কাটো। কেন ভাই, বাতাসে শাড়ির আঁচল উড়লে নাভী দেখা যাবে না। সব জায়গায় অদক্ষ লোক। সাধারণ ব্যাপারটা কেউ বুঝতে চাইছে না। কোনটা কোথায় ভালো কোথায় খারাপ সেটা বুঝতে হবে। বেশ্যাবাড়ীর মেয়েদের বোরখা পড়া দেখালে সেটা হবে অশোভনীয়। কিন্তু মসজিদে বোরখা না পড়লে শোভনীয় হবে না।

সিনেমা হল ভাইরাস- গুটি দুই তিনেক সিনেমা হল ছাড়া মান্ধাতার আমলে নির্মিত এই সব সিনেমা হলে পরিবার নিয়ে সিনেমা দেখতে গেলে আপনি নাজেহাল অবস্থায় পড়বেন। সিনেমা হলের দুষনীয় পরিবেশ, অসহনী ভ্যপসা গরম, টয়লেট রুমের থেকে ভেসে আসা দুর্গন্ধ, সিগারেটের ধোঁয়ার চারিদিকে কুয়াশার আস্তরণ, ব্ল্যাকারের ইচ্ছে মত টিকিট এর চড়া মুল্য, আপনার সিনেমা দেখে বিনোদন লাভের আশিভাগ আশাকে ধুলিসাৎ করে দেবে। কোন কোন হলে টিকিটে এসির মুল্য নিয়েও দর্শক স্বপ্লতার দোহাই দিয়ে এসি বন্ধ করে রাখা আপনার কাছে মনে হবে কেউ আপনার পকেটে কেটে টাকা চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে। আর ডিজিটাল সিনেমা সিস্টেম আসার পর এই সিনেমা হলগুলি মেশিন সংকটে নিজেদের অস্তিত্ব ভাড়াটে গুদামের মত করে ফেলেছে। আপনি মেশিন ভাড়া করে দেবেন, হল পোষ্টার দিয়ে সাজিয়ে দেবেন, লাইটিং করে দেবেন, ব্যানার লাগিয়ে দেবেন, বুকিং এজেন্ট দেবেন, প্রিন্ট বানিয়ে দেবেন, ট্যাক্সের টাকা দেবেন, ভ্যাট দেবেন তারপর এরা উপযুক্ত হবে। আপনার সিনেমা চালাবার জন্যে। তারপরও আপনি মুক্ত নন। প্রতিদিন আপনি সেল রিপোর্টে চেক করতে অন্ধকারে হলের ভিতর এসে লোক গুনবেন। এবং আপনি যে সামান্য কয়টা টাকা পাবেন তার জন্যেও আপনাকে দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতে হবে এবং মাঝে মাঝে কোন কালেই সেই টাকার মুখ দেখতে পাবেন না।

যৌথ প্রতারনার ভাইরাস- যৌথ প্রযোজনার নামে যৌথ প্রতারণায় আমদানী করা ভারতীয় ছবির আগ্রাসন এই দেশীয় ছবিকে কোনঠাসা করে দিয়েছিলো। নাম মাত্র একজন দুইজন এই দেশীয় শিল্পী রেখে বাকী নব্বইভাগ বিদেশী শিল্পী কলাকুশলী নিয়ে, বিদেশের মাটিতে ছবির শুটিং করে ছবি নির্মাণ করে যৌথ প্রযোজনার ছবির সাইনবোর্ড লাগিয়ে এক শ্রেণীর লোভী সিনেমা ব্যবসায়ীরা আমাদের দেশের সিনেমা হলে মুক্তি দেয়া শুরু করে আমাদের দেশের নির্মিত চলচ্চিত্রকে কোনঠাসা করে ফেললো। বিদেশের বিগ বাজেটের ছবির সাথে আমাদের কম বাজেটের ছবি ব্যবসা সামলাতে পারলো না। যৌথ প্রতারনার ভাইরাসে ডুবে গেলো দেশী চলচ্চিত্র। বেকার হয়ে গেলো দেশীয় শিল্পী কলাকুশলী।

জাজ ভাইরাস- এই দেশের ডিজিটাল পদ্ধতির ছবি নির্মাণের ক্ষেত্রে জাজের একটা ভালো ভূমিকা ছিলো। হঠাৎ করে এই জাজ বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের জন্যে ভাইরাস হয়ে গেলো। জাজ এর মেশিন ছাড়া কোন ছবি হলে মুক্তি দেয়া যাবে না। ছবি রিলিজের সময় জাজ এর কাছে যেতে হবে। বেশির ভাগ হলে তার মেশিনে চলে। জাজ ছবি মুক্তি দেবে সো আর কোন ছবি মুক্তি দেয়া যাবে না। ঈদ মানেই জাজের ছবি। ব্যাস বিগ বাজটের দেশীয় চলচ্চিত্রে বানাবার আগ্রহ হারিয়ে ফেললো বড় বড় প্রযোজকরা। কে নিজের টাকা খরচ করে জাজের কাছে মুখাপেক্ষী হয়ে থাকবে বলুন।

শাকিব খান ভাইরাস- শাকিব খান ছাড়া ছবি বানিয়েছেন তো সেই ছবি হলে চলে না। হল মলিক ফোন করে বলবে, ভাই ছবি জবর বানাইছিলেন মগর ওই নায়কটার জায়গায় শাকিব খানরে নিলে ফাটাফাটি ব্যবসা করতো। নিজের ঘরের বুকিং ম্যানেজার মুখ কালো করে বলবে, স্যার শাকিব যত জ্বালাক তবু ওর ছবি ছাড়া এখন আর কোন ছবির কোন রেট নাই। এই দেখেন সেল, কাল রবিবার এক লাখ টাকাও হয়নি। অথচ আপনার ছবি হিট। শাকিব এর ফ্লপ ছবিরও সেল রবিবার ৫ লাখ টাকার উপর থাকে। শাকিবকে নিয়ে ছবি করেন। তো শাকিবকে নিতে গেলেই ছবির বাজেট দুই কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে যা সুপার ডুপার হিট হলেও হলের যে সংখ্যা তাতে টাকা উঠবে না।

নকল গল্পের ভাইরাস- যে ছবিই হয় সেই ছবিই অমুক না অমুক মাদ্রাজি বা বিদেশী ছবির নকল। আর নকল মাদ্রাজি গল্পের চর্বিত চর্বণ দেখে দেখে দর্শকের অনীহা ধরে গেছে তাই ছবিও আর চলে না। ভাইরাসে ধরে গেছে। প্রতি সপ্তাহে একই গল্প একটু হের ফের করে কতদিন আর মানুষকে গিলানো যায়। প্রতিদিন পোলাও মাংস খেতেও মানুষের ভালো লাগে না আর সেখানে যদি দিন দিন খারাপ বাবুর্চির কল্যাণে বাসি মসলা দিয়ে রান্না হয় তবে মানুষতো মুখ ফিরাবেই। চলচ্চিত্রের গল্পের ভেরিয়েশান দর্শক পায় না আর এর জন্যে দর্শকও সিনেমা হলে কমছে।

আঁতেল পরিচালকদের ভাইরাস- তথাকথিত এই সব আঁতেল পরিচালকরা এমন ছবি বানান যা দর্শক বুঝতে পারে না তাই তারা সিনেমা হলে দেখতেও যায় না। চলচ্চিত্রকে ধরা হয় বৃহত্তর গণমাধ্যম তবে এই সব আঁতেল পরিচালকের ছবিকে ছবিই বলা যায় না। নিজেদের আঁতেল বলে প্রমানিত করতে এরা দেশের ৯৫ ভাগ মানুষের জন্যে ছবিকে অবোধ্য করে দিয়ে হল থেকে ঝেটিয়ে বিদায় করে দিয়েছে। ভালো চলচ্চিত্র সেটাই যে ছবি সব শ্রেণির দর্শক গ্রহণ করবে। অথচ নিজেদের বুকে ইন্টেলেকচুয়্যাল এর তকমা লাগানো কিছু জ্ঞ্যানমুর্খদের এটা কেউ বোঝাতে পারবে না। ফিল্ম ক্লাবে বা সেমিনারে অথবা বড়জোড় সিনেপ্লেক্সে শতকরা দশভাগ লোককে ছবি দেখিয়ে এরা প্রমাণ করতে তৎপর হয়ে উঠে যে এরা ভালো ছবির নির্মাতা। আর দেশের সরকার, মিডিয়া সবাই এদের এমন করে মাথায় তুলে নাচায় যে এরা নিজেদের অসাধারণ ভাবতে শুরু করে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে দুরে সরে যায়। তাই এদের চলচ্চিত্র দর্শক প্রিয় হয় না।

টিভি চ্যানলে ভাইরাস- কম টাকায় ছবি বানিয়ে হলের দর্শককে বিনে পয়সায় ছবি দেখাতে টিভি চ্যানেলরা উদারতা দেখানো শুরু করে হলের দর্শক কমিয়ে দিয়েছে। বিজ্ঞাপন এজেন্সীর থেকে প্রচুর টাকা কামাই করে পাঁচ হাজার দশ হাজার টাকা দিয়ে আমাদের সুপারহিট ছবিগুলো প্রতিদিনই দর্শকদের দেখাচ্ছে। তো হলে দর্শক গিয়ে কি করবে। তাছাড়া বিদেশী সিনেমাতো আছেই।

শিল্পীর ভাইরাস- একটা ভালো চরিত্রে অভিনয় করার জন্যে একের অধিক কাউকে পাবেন না। আর সেই একক শিল্পী তার কদর বুঝে এমন পারিশ্রামিক হাঁকাবে যে আপনার ছবি করার ইচ্ছেটাকে গলা টিপে মেরে ফেলবে। আর ভালো শিল্পী যারা আছেন তাদের সব ছবিতে ঘুড়িয়ে ফিরিয়ে একই রকম চরিত্রে দেখতে দেখতে দর্শকের বিতৃষ্ণা এসে গেছে।

এফডিসি ভাইরাস- ফিল্ম ডেভোলোপমেন্ট করপোরেশানে ফিল্মের কোন ডেভোলোপমেন্টে পাবেন না। আর একশোটা সরকারী প্রতিষ্টানের মত বড় বড় অফিসার দিয়ে এফডিসি চলছে। যারা বাংলাদেশী সিনেমাই দেখেনাতো তারা বাংলাদেশের সিনেমার কি উন্নয়ন করবে। এখন এরা নিজেদের পিঠ বাঁচাতে শুটিং ফ্লোর গুলি টক শো, নাটক, ধারাবাহিকের জন্যে ভাড়া দিচ্ছে। সরকার প্রধানতো চায় তার আমলে দেশের সবাই দুধে ভাতে থাকবে কিন্তু যাদের দুধ দেবার জন্যে রেখেছে তারা যে নদীর ঘোলা জল খাওয়াচ্ছে সেটা কে দেখবে। তারা মনে করছে চলচ্চিত্র জাহান্নামে যাক আমরা তো দুধের সর খেতে পারছি। আর তাদের সেই লোভের পাপে মৃত্যু হচ্ছে আমাদের দেশের চলচ্চিত্র। ভেজাল ধরবেন খাদ্যে আর সংস্কৃতির ভেজাল ধরবেন না। এটা ঠিক না। এই সব ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশীয় চলচ্চিত্র এমনি ছিলো ত্রিশংকুল অবস্থা তার উপর মহামারী করোনা ভাইরাস এটাক করে সবাইকে শয্যাশায়ী করে দিয়েছে। মরার উপর খাড়ার ঘা হিসেবে এসেছে বয়কট আর অবাঞ্চিতর ভাইরাস। প্রযোজক, পরিচালক, শিল্পী, কলাকুশলী একটা ছবির দেহের চারটি ভাইটাল অঙ্গ। এর একটা অঙ্গে পক্ষপাত ধরলে চলচ্চিত্রে ভাইরাস ধরে পঙ্গু হয়ে যাবে এটা কেউ বুঝতে পারছে না। তবে ইংরাজিতে একটা কথা আছে -the darkest time of day is the minute before sunrise, so when you will feel you are at the darkest moment in your life remember that sunrise is just a minute away. অন্ধকার যত গভীর হবে ততই সূর্য উঠার সময় নিকটবর্ত্তী হবে। করোনার ওষুধ যেমন বের হচ্ছে তেমনি চলচ্চিত্রের এই সব ভাইরাসেরও ওষুধ একদিন আবিস্কার হবে। তখন আবার চলচ্চিত্র হাসি মুখে ঘুড়ে দাড়াবে। ধ্বংসের উপর নতুনের বীজ রোপিত হবে।

ছটকু আহমেদ: লেখক, পরিচালক ও প্রযোজক।

Leave a Reply