জমজমাট প্রতিবেদক: ঢাকাই সিনেমার আলোচিত জুটি অনন্ত জলিল ও বর্ষা। জুটি হয়ে এ পর্যন্ত উপহার দিয়েছেন ‘খোঁজ দ্য সার্চ’, ‘হৃদয় ভাঙা টেউ’, ‘দ্য স্পিড’, ‘মোষ্ট ওয়েলকাম’, ‘মোষ্ট ওয়েলকাম টু’, ‘নিঃস্বার্থ ভালোবাস’। অনন্ত-বর্ষা করোনার সংক্রমণের শুরু থেকেই চলচ্চিত্র ও তার বাইরের মানুষদের সহায়তা করে আসছেন। এদিকে সম্প্রতি আবারও শিল্পী সমিতির মাধ্যমে চলচ্চিত্রর নিম্ন আয়ের শিল্পী ও কলাকুশলীকে খাদ্যদ্রব্য দিয়ে সহায়তা করেছেন তাঁরা। এছাড়াও অনন্য সমিতির মাধ্যমেও সহায়তার হাত বাড়িয়েছেন। আসছে ঈদ উপলক্ষে দুইশ মানুষকে খাবার সামগ্রী দিয়েছেন। তাদের সহায়তা কার্যক্রম অবহ্যাত রয়েছে। গত ২৯ ফ্রেব্রুয়ারি ছিল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির বার্ষিক বনভোজন, একইদিন ছিল চিত্রনায়িকা বর্ষার জন্মদিন। উপস্থিত সবার মাঝে বর্ষার কেক কাটেন শিল্পী সমিতি। জন্মদিন ঘিরে তখন বর্ষার বাস্তবের নায়ক অনন্ত জলিল পাঁচ লক্ষ টাকা সমিতির ফান্ডে দেওয়ার ঘোষণা দেন। একই দিনে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ফান্ডে নগদ পাঁচ লক্ষ টাকা অর্থ সহায়তা দিয়েছেন।

অনন্ত জলিল বলেন, দেশের দূর সময়ে টাকাটি নিম্ন আয়ের শিল্পীদের কাজে লাগবে। নিয়মিত সহায়তা করে আসছি। চলচ্চিত্রে এর আগেও খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহায়তা করেছি। ঐ দিন চিত্রনায়িকা আঁচল ও আইরিন সুলতানার সাথেও মৌখিক কথা বলেন অনন্তর সামনের ছবিতে নেওয়ার জন্য। প্রতি বছর নায়ক অনন্ত জলিল দুই থেকে তিনটি ছবি প্রযোজনা করবেন। অনন্ত মনে করেন চলচ্চিত্রর ক্রান্তিলগ্ন দূর করতে বেশি বেশি ছবি প্রযোজনা করতে হবে। নতুন নতুন ছবি প্রযোজনা না করলে ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা বেহাল দশা হবে। তাই তিনি উদ্যাগ নিচ্ছেন ছবি প্রযোজনার। বলেন, করোনার কারণে সবারই আর্থিক অবস্থা খারাপ হয়েছে। নতুন ছবি প্রযোজনা করা কঠিন হয়ে যাবে। তবে আমরা যেহেতু চলচ্চিত্রর মানুষ তাই আমাদের সামনের ছবিগুলোতে নিয়মিত চলচ্চিত্রর নায়ক নায়িকাকে নেওয়া হবে। অনন্ত জলিল জানিয়েছেন তাদের নতুন ছবি ‘নেত্রী’। জুটি হিসেবে পর্দায় অনন্ত-বর্ষার রসায়ন দেখতে পাবে দর্শক। ছবির গল্পও লিখেছেন নায়ক-প্রযোজক অনন্ত জলিল। পূর্বেও অনন্ত গল্প লিখেছেন কিন্তু কখনো নাম দেয়নি। তবে ‘নেত্রী’ ছবিতে নিজের নাম দিবেন বলেন জানান। অনন্ত এও জানান, ‘নেত্রী’ ছবির গল্প কোন ছবির সাথে মিলবে না। মরক্কোর সাথে যৌথ প্রযোজনায় ছবিটি নির্মিত হবে।

অনন্ত জলিলের কথা শেষ হলে বর্ষা বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য করোনার এই দূর সময়ে মানুষকে সহায়তা করা। সবাই যাতে একটু ভালো থাকতে পারে তাই তাদের জন্য কিছু করার চেষ্টা করছি। আমরা বরাবরই মানুষের পাশে ছিলাম, সামনেও থাকবো। মানুষের জন্য কিছু করতে পারলে তৃপ্তি লাগে। এরইমধ্যে আমাদের নতুন ছবি ‘নেত্রী’র গল্প রেডি হয়েছে। খুব শীঘ্রই শূটিংয়ের পরিকল্পনা করা হবে। চলচ্চিত্র শিল্পকে বাঁচাতেই প্রতি বছর নতুন নতুন ছবি করার উদ্যোগ নিচ্ছি। করোনার কারণে প্রতিকূল একটা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে কবে নাগাত এ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে কেউ জানে না। বর্ষা মনে করেন সব কিছুরই শুরু আছে শেষও আছে। রাতের শেষে যেমন দিন আসে, দিন শেষে তেমনি রাত আসবে। এই অন্ধকার থাকবে না কেঁটে যাবে। অচিরেই এ ভাইরাস দূর হবে বলে বিশ্বাস করি। দীর্ঘ দিন ধরে সিনেমা হল বন্ধ। প্রেক্ষাগৃহে নেই নতুন ছবি। বন্ধ হওয়া অনেক হলই নতুন করে খুলবে না এমন পরিস্থিতিতে অনেকেই অনলাইন মাধ্যমের জন্য কাজের কথা ভাবছেন। অনলাইন মাধ্যমের জন্য কাজ করা নায়িকা বর্ষাও ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন।

বর্সার সাথে একমত পোষণ করে অনন্ত জলিল বলেন, চলচ্চিত্র বাঁচাতে নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করতে হবে। শিল্পী ও কলাকুশলীর জন্য সবারই শূটিংয়ে নামা উচিৎ। বর্ষার মতো অনন্তও অনলাইন মাধ্যমের জন্য কাজ করা ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন। তার কথায় সংস্কৃতি বাঁচাতে অনলাইন বড় একটি মাধ্যম। বিটিভির যুগ পেরিয়ে দেশ ডিজিটাল হয়েছে। সবাই ব্যতিক্রম কিছু করার কথা ভাবছেন। যতটুকু সম্ভব গল্প নির্ভর ছবি বানাতে হবে। এতো দিন আমাদের জন্য ছবি নির্মাণ করেছিলাম। তবে এখন থেকে আমাদের ছবিতে অনন্য নায়ক নায়িকা নিয়েও ছবি প্রযোজনা করবো। আমাদের মূল ফোকাস করতে হবে চলচ্চিত্র প্রযোজনায়। বেশি বেশি ছবি বানাতে হবে। শিল্পী কলাকুশলী ও হাল মালিকদের কথা চিন্তা করে ছবি নির্মাণ করতে হবে। চলচ্চিত্রর এই দূর দিন থাকবে না ঘুরে দাঁড়াবে। বর্ষা মনে করেন চলচ্চিত্রে সম্ভাবনাময়ী অনেক নায়ক নায়িকা রয়েছে তাদের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। তারা সুযোগ পেলে নিজেদের অবস্থান জানান দিতে পারবেন। তাই তাদের কে আমাদের সামনের ছবিগুলোতে সুযোগ দেওয়া হবে। রিস্ক নিয়েই অনন্ত বর্ষা নতুন জুটি তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন। সামনে লেবানন, তুর্কির সাথেও ছবি করবেন বলে জানান। অনন্ত বর্ষা জুটি পর্দায় কখনো আলাদা হবেন না যতদিন অভিনয় করবেন জুটি হিসেবেই দেখা যাবে।

গার্মেন্টস ব্যবসার পাশাপাশি চলচ্চিত্রে বিনিয়োগ করেন নিজের প্রযোজনা সংস্থার মাধ্যমে। অনন্ত জলিল সামাজিক কর্মকাণ্ডের অংশ হিসেবে তিনটি এতিমখানা নির্মাণ করেছেন। মিরপুর ১০ নম্বর, বাইতুল আমান হাউজিং ও সাভার মধুমতি মডেল টাউনে আছে এতিমখানাগুলো। এ ছাড়া সাভারের হেমায়েতপুরের ধল্লা গ্রামে সাড়ে ২৮ বিঘার ওপর একটি বৃদ্ধাশ্রম নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন অনন্ত জলিল। তিনি ঢাকার হেমায়েতপুরে অবস্থিত বায়তুস শাহ জামে মসজিদের নির্মাণ কাজেও অবদান রাখেন। মুক্তির অপেক্ষায় আছে এই তারকা দম্পতির বড় বাজেটের সিনেমা ‘দিন দ্য ডে’। ছবিটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে একশ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ও ইরানের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ছবিটির বাংলাদেশ অংশের প্রযোজক চিত্রনায়ক অনন্ত জলিল। আর ছবিটি পরিচালনা করছেন ইরানি নির্মাতা মুর্তজা অতাশ জমজম। আমরা বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র পৌঁছে দিতে চাই। এই সিনেমাটি বাংলাদেশ ও ইরানসহ আরো বেশ কিছু দেশে মুক্তি পাবে। আমরা সেই লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। ‘দিন দা ডে’ অনলাইনে নয় সিনেমা হলে মুক্তি পাবে। করোনা চলে গেলেই ছবিটির মুক্তির পরিকল্পনা করা হবে বলে জানান অনন্ত-বর্ষা।

Previous articleঅ্যালেন-ইভানার ‘গায়ে হলুদ’
Next articleটানা পাঁচ মাস সিনেমা হল বন্ধ, বিপাকে কর্মচারীরা

Leave a Reply